Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বুধবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৮ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:১৩
স্বামীর পক্ষে সাফাই ট্রাম্পের স্ত্রীর
প্রতিদিন ডেস্ক
স্বামীর পক্ষে সাফাই ট্রাম্পের স্ত্রীর

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে সবকিছুকে ছাড়িয়ে গেছে রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের যৌন হরয়ানির অভিযোগ। তবে এসব অভিযোগকে ‘পুরোটাই মিথ্যা’ বলে দাবি করলেন তার স্ত্রী মেলানিয়া ট্রাম্প। তিনি তার স্বামীকে একজন নিপাট ভদ্রলোক বলে মূল্যায়ন করেছেন। তিনি বলেছেন, যেসব নারী যৌন হয়রানির অভিযোগ তুলেছেন, তারা ‘মিথ্যা’ বলেছেন।

মার্কিন সংবাদভিত্তিক টেলিভিশন চ্যানেল সিএনএনকে সাক্ষাৎকারে এমন দাবি করেন মেলানিয়া। তিনি বলেন, ‘আমি আমার স্বামীকে বিশ্বাস করি। তিনি কখনই এ ধরনের কাজ করতে পারেন না। আমি জানি তিনি নারীদের সম্মান করেন।’ তিনি বলেন, ‘এ অভিযোগগুলো (যৌন হয়রানি) অস্বীকার করছি। কারণ এগুলো মিথ্যা অভিযোগ।’ মেলানিয়া এও বলেন, ভিডিও টেপে ধরা পড়া তার স্বামী ট্রাম্পের অশ্লীল মন্তব্য অগ্রহণযোগ্য। তবে স্ত্রী হিসেবে তিনি যে ট্রাম্পকে চেনেন, ওই মন্তব্য তাকে তুলে ধরে না। ৭ অক্টোবর ১১ বছর আগে ট্রাম্পের এক নারীবিদ্বেষী মন্তব্যের ভিডিও প্রকাশিত হয়। ২০০৫ সালে ধারণ করা অডিও সাক্ষাৎকারটি মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্ট ফাঁস করে। এতে দেখা যায়, মার্কিন টেলিভিশন চ্যানেল এনবিসির উপস্থাপক বিলি বুশকে ট্রাম্প বলেন, ‘তারকারা নারীদের নিয়ে যা খুশি করতে পারে; আর এতে ওই নারীরাও বাধা দেবে না।’ সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প এক বিবাহিত অভিনেত্রীর সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপনে তার আগ্রহের কথাও জানান। মিস ইউনিভার্সসহ কয়েকটি সৌন্দর্য প্রতিযোগিতার অন্যতম আয়োজক ট্রাম্প সুন্দরী নারীদের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপনের আকাঙ্ক্ষাও জানিয়েছিলেন। ভিডিওটি প্রকাশিত হওয়ার পর তোপের মুখে পড়েন ট্রাম্প। নির্বাচন থেকে তার সরে দাঁড়ানোর দাবি ওঠে। দলের অনেক নেতা তাকে পরিত্যাগ করেন। এসব অভিযোগের পর স্বামী ট্রাম্পের পক্ষে সাফাই গাইতে গিয়ে মেলানিয়া বলেন, তিনি জানেন, ট্রাম্প নারীদের শ্রদ্ধা করেন। অভিযোগকারী নারীরা ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মিথ্যা বলছেন। তিনি আরও বলেন, তিনি তার স্বামীকে বিশ্বাস করেন। ট্রাম্প দয়ালু। তিনি ভদ্রলোক। তিনি ওসব বাজে কাজ কখনো করেননি। ট্রাম্পের মতো তার স্ত্রীও দাবি করেন, রিপাবলিকান প্রার্থীর সুনাম নষ্ট করতে বিরোধীরা সংগঠিতভাবে কুৎসা রটাচ্ছে। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের প্রচারশিবির ও গণমাধ্যম এ কাজ করছে। অবশ্য এর আগে ৮ অক্টোবর নারীদের প্রতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের ‘অগ্রহণযোগ্য ও আক্রমণাত্মক’ মন্তব্যের জন্য তাকে ক্ষমা করার জন্য জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন মেলানিয়া ট্রাম্প।

ট্রাম্প তরুণীদের উপভোগের সামগ্রী মনে করেন : আমেরিকায় সুন্দরী প্রতিযোগিতার আয়োজন করতেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। কিন্তু প্রতিযোগিতার আগে ট্রাম্প ব্যক্তিগতভাবে প্রতি প্রতিযোগী তরুণীকে নিজে পরখ করেন। আর প্রতিযোগীদের দেখার সময় ট্রাম্পের অভিব্যক্তি ছিল তরুণীরা শুধু একটি মাংসের দলা ও যৌন উপভোগের সামগ্রী। ট্রাম্পের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ করেছেন ২০০৬ সালের মিস নর্থ ক্যারোলাইনা সামান্থা হোলভে। সিএনএন টেলিভিশনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি আরও বিস্তারিত বলেছেন এসব নিয়ে। সামান্থা বলেছেন, ‘ট্রাম্প নারীদের সঙ্গে যে আচরণ করেন তা আমার পুরো জীবনে দেখা সবচেয়ে নোংরা বিষয়। প্রতিযোগিতার আগে তিনি প্রতিটি প্রতিযোগী সুন্দরীর সামনে চলে যান। তার পা থেকে মাথা পর্যন্ত পরখ করে নেন।’ ২০০৬ সালে এ প্রতিযোগিতার সময় গর্জিয়াস সুন্দরী সামান্থার বয়স ছিল ২০ বছর। তিনি ট্রাম্পের ওই আচরণকে অসংযত বলে মনে করেন। বিষয়টি তিনি নিজের মায়ের সঙ্গে শেয়ার করেছেন। সামান্থা হোলভের বসবাস নর্থ ক্যারোলাইনার বুয়েস ক্রিকের হার্নেট কাউন্টি সম্প্রদায়ে। তিনি বলেছেন, প্রতিযোগিতায় কে জিতবে তা নির্ভর করত ডেনাল্ড ট্রাম্প ও তার স্ত্রী মেলানিয়া ট্রাম্পের ওপর। তারা প্রতিযোগিতার ব্যাকস্টেজে চলে যেতেন। তারা দুজন মেয়েদের ড্রেসিংরুম পর্যন্ত চলে যেতেন, যেখানে প্রতিযোগীরা প্রস্তুতি নেন। সেখানে ট্রাম্প মেয়েদের খুব বাজেভাবে দেখতেন। এমন অভিযোগ শুধু সামান্থার একার নয়, আরও বেশকিছু মিস ইউএসএ এমন অভিযোগ করেছেন। সিএনএন, বিবিসি।

up-arrow