Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২০ অক্টোবর, ২০১৬ ০৩:১৩
বখাটেদের হামলা
মুন্সীগঞ্জে কুপিয়ে আহত স্কুলছাত্রীকে
মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি

সিলেটে কলেজছাত্রী খাদিজাকে কুপিয়ে হত্যাচেষ্টার ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখানে দশম শ্রেণির ছাত্রী তাহমিনা জাহান আঁখির (১৬) ওপর বর্বরোচিত হামলা চালিয়েছে বখাটেরা। সে বর্তমানে ঢাকা মেডিকেলে  চিকিৎসাধীন। এ ঘটনায় এক দিন পার হলেও কাউকে আটক বা এর কোন কিনারা করতে পারেনি পুলিশ। শ্রীনগরের সার্কেল এএসপি সামসুজ্জামান বাবু বলেছেন, ‘এ বিষয়ে আমরা তত্পর রয়েছি। আঁখি একটু সুস্থ হলেই তার সঙ্গে কথা বলে রহস্য উদ্ঘাটন করতে পারব।’ অনেকে ধারণা করছেন, প্রেমঘটিত ঘটনার জেরে এমনটি হতে পারে। জানা যায়, সিরাজদীখান উপজেলার চোর মর্দন গ্রামের মো. তফিজুদ্দিনের মেয়ে আঁখি স্থানীয় রসুনিয়া উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী। স্কুলের পরীক্ষা শেষে বাড়ি ফেরার পথে মঙ্গলবার বিকালে দুই মুখোশধারী দুর্বৃত্ত ধারালো ছোরা আর চাপাতি নিয়ে তার ওপর হামলা চালিয়ে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। সে যাতে চিৎকার-চেঁচামেছি করতে না পারে সেজন্য দুর্বৃত্তরা ওড়না দিয়ে তার মুখ বেঁধে ফেলে। একপর্যায়ে আঁখি রক্তাক্ত আহত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়লে তাকে মৃত ভেবে বখাটেরা পালিয়ে যায়। পরে এলাকাবাসীর সহায়তায় আঁখিকে সন্ধ্যার দিকে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে এবং পরে রাতে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়।

সেখানে রাতেই তাকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে সেলাই দেওয়া হয়। গত রাত সাড়ে ১১টার দিকে তার বড় বোন সানজিদা আক্তার জানান, আঁখির অবস্থা কিছুটা উন্নতির দিকে। তবে এখনো কথা বলতে পারছে না। জ্ঞান না ফেরা পর্যন্ত তার অবস্থা সম্পর্কে নিশ্চিত কিছুই বলতে পারছেন না তারা। কেন বা কারা আঁখির ওপর বর্বরোচিত হামলা চালিয়েছে সে সম্পর্কে স্কুলশিক্ষক, সহপাঠী বা তার পরিবারের কেউ কিছুই বলতে পারছেন না। তবে স্কুলের শিক্ষক, সহপাঠীসহ সবাই এ হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে দোষীদের বিচারের আওতায় এনে শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। রসুনিয়া উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুর রশীদ তালুকদার এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে সুবিচার চেয়েছেন। ঘটনার এক দিন পেরিয়ে গেলেও কাউকে গ্রেফতার বা এর কোনো রহস্য উদ্ঘাটন করতে না পারায় এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow