Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২০ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:৪৩
মেধাশূন্যদের দিয়ে দল শক্তিশালী হবে না
—— অধ্যাপক আবু সাইয়িদ
মেধাশূন্যদের দিয়ে দল শক্তিশালী হবে না

প্রবীণের স্বার্থতাড়িতা ও নবীনের মেধাশূন্যতা আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করবে না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা অধ্যাপক ড. আবু সাইয়িদ। তিনি বলেন, ‘শোনা যাচ্ছে আওয়ামী লীগের ২০তম জাতীয় সম্মেলনের মধ্য দিয়ে নবীন-প্রবীণের মিলনে দলের কেন্দ্রীয় কমিটি গঠিত হবে।

এটি ভালো সিদ্ধান্ত। তবে প্রবীণ ব্যক্তি যদি স্বার্থতাড়িত এবং নবীন যদি মেধাশূন্য হয় কমিটিতে তাদের স্থান হওয়া উচিত নয়। ’ ধানমন্ডির বাসভবনে গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে অধ্যাপক ড. আবু সাইয়িদ বলেন, ‘নেতা নির্বাচন সুচারুভাবে সম্পন্ন করতে পারলে নেতৃত্বের প্রজ্ঞা, দূরদৃষ্টি প্রতিফলিত হয়। সেই সংগঠনের মাধ্যমে দেশ ও জাতি উপকৃত হয়। যারা আওয়ামী লীগের জন্ম, ক্রমবিকাশ, সংগ্রাম এবং আত্মত্যাগের ইতিহাস জানে না কোনোক্রমেই তাদের কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করা সঠিক হবে না। আমি আশা করব আওয়ামী লীগের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন প্রজ্ঞাময় শীর্ষ নেতা আবেগ বা অনুরাগে তাড়িত না হয়ে বাস্তবতার নিরিখে আদর্শবান এবং যারা দীর্ঘদিন আওয়ামী লীগের সঙ্গে জড়িত তাদের যথাযথ মূল্যায়ন করবেন এবারের সম্মেলনে। ’ তিনি বলেন, দলে যিনি শীর্ষ নেতা থাকেন তার দায়িত্ব ও কর্তব্য হলো সংগঠন শক্তিশালী করার স্বার্থে সঠিক ব্যক্তিকে বাছাই করা এবং তাকে যথাযথ স্থানে অধিষ্ঠিত করা। সাবেক এই তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, কমিটিতে তাদেরই স্থান হওয়া উচিত যারা সৎ, আদর্শবাদী ও আত্মত্যাগের মহিমায় উজ্জ্বল। গণধারণায় (পাবলিক পারসেপশনে) যারা গ্রহণযোগ্য। শুধু কর্মীসংলগ্নতা নয়, জনপ্রিয় নেতাদের আওয়ামী লীগের কমিটিতে নিয়ে আসা নেতৃত্বের অপরিহার্য দায়িত্ব। তার মতে, যাদের নিয়ে কমিটি গঠিত হবে তাদের মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও মূল্যবোধ, বঙ্গবন্ধুর দর্শন ও আদর্শের হতে হবে। তবেই তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রূপকল্প বাস্তবায়নে যথাযোগ্য দক্ষতা, যোগ্যতা, দূরদৃষ্টি, প্রজ্ঞা ও কৌশলগত দিক নির্ণয়ে সক্ষম হবে। তিনি বলেন, টাকা-পয়সা বিত্ত-বৈভব দিয়ে কমিটি গঠন করা কোনোক্রমেই বিধেয় হতে পারে না। আওয়ামী লীগের কমিটিতে যারা আসবেন তাদের আদর্শ বাস্তবায়নে আত্মত্যাগে উৎসর্গকৃত হতে হবে। দলের নাম ভাঙিয়ে যারা লুটপাট, অবৈধ অর্থ উপার্জনে লিপ্ত তাদের দল থেকে শুধু বহিষ্কার নয়, শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে; যাতে গৌরবোজ্জ্বল আওয়ামী লীগে কলঙ্কের দাগ না পড়ে। আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্তরের নেতার এবং সংসদ সদস্যের সম্পদ ও সম্পত্তির হিসাব নিয়ে তাদের দলে মূল্যয়ন করা উচিত বলে মনে করেন অধ্যাপক আবু সাইয়িদ।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow