Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ, ২০১৭

প্রকাশ : শনিবার, ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৪০
পরিবারের দাবি
জঙ্গি আস্তানায় গ্রেফতার তিনজনকে অনেক আগে ধরে নেওয়া হয়
শাহজাদা মিয়া আজাদ, রংপুর

সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী পরিচয়ে রংপুরের তিন মেধাবী ছাত্রকে ধরে নেওয়ার কয়েক মাস পর তাদের অস্ত্র ও গোলাবারুদসহ জঙ্গি আস্তানায় গ্রেফতার দেখানো হয়। তাদের পরিবারের দাবি, আশফাক-ই-আজম ওরফে আপেল ও ইফতেশাম আহমেদ শামীকে ধরে নেওয়ার আট মাস পর এবং আশিকুল আকবর ওরফে আবেশকে ধরে নেওয়ার তিন মাস পর জঙ্গি আস্তানায় গ্রেফতার দেখানো হয়। তারা যাতে সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারে সে বিষয়ে সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছে তাদের পরিবার। বুধবার ভোরে ঢাকার যাত্রাবাড়ীর দনিয়ায় এক জঙ্গি আস্তানা থেকে জেএমবির সারোয়ার-তামিম গ্রুপের আইটি শাখার প্রধানসহ যে চারজনকে গ্রেফতার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের একজন আশফাক-ই-আজম ওরফে আপেল (২৫)। তাকে আট মাস আগে রংপুর নগরীর দক্ষিণ কামাল কাছনা এলাকায় নিজ বাড়ি থেকে ধরে নেওয়া হয়েছিল বলে দাবি করেছেন তার বাবা স্কুলশিক্ষক সামছুল হক।   তিনি জানান, ঢাকার বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটির সাবেক শিক্ষার্থী সফটওয়্যার প্রকৌশলী আশফাককে গত বছরের ৬ জুন রাতে সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয়ে বাড়ি থেকে ধরে নেওয়া হয়। ছেলের সন্ধান চেয়ে তিনি পরদিন কোতোয়ালি থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আজিজুল ইসলাম ডায়েরি করার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। গত বছরের ৯ ডিসেম্বর চট্টগ্রামের কর্নেলহাটে জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যে পাঁচজনকে গ্রেফতার করে তাদের একজন শেখ ইফতেশাম আহমেদ শামীকেও (২৩) আট মাস আগে রাজশাহী নগরীর একটি ছাত্রাবাস থেকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয় বলে দাবি করেছেন তারা বাবা। ইফতেশাম রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ইংরেজি তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। তিনি রংপুর নগরীর ধাপ ইঞ্জিনিয়ারপাড়া এলাকার পেট্রল পাম্প ব্যবসায়ী শেখ ইফতেখার আহমেদ এনামের ছেলে। শেখ ইফতেখার আহমেদ এনাম জানান, গত বছরের ২৯ এপ্রিল ভোরে সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয় দিয়ে ইফতেশামকে রাজশাহী নগরীর নিলাভা ছাত্রাবাস থেকে তুলে নিয়ে যায়। পরদিন সকালে খবর পেয়ে রাজশাহী যান তিনি। কোথাও ছেলের সন্ধান না পেয়ে ওই দিনই রাজশাহী নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানায় জিডি করেন। বোয়ালিয়া মডেল থানার ওসি শাহাদত্ হোসেন জিডির বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ইফতেশামের সন্ধান অব্যাহত রাখার মধ্যেই আট মাস পর চট্টগ্রামে জঙ্গি আস্তানায় ইফতেশামসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করে র‍্যাব। এ ছাড়া গত বছরের ২২ জুলাই ভোরে গাজীপুরের টঙ্গীর আউচপাড়া মোক্তারবাড়ি রোডের চারতলা একটি ভবনে জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালিয়ে বিপুল অস্ত্র ও গোলাবারুদসহ চার জঙ্গিকে গ্রেফতার করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এদের একজন আশিকুল আকবর ওরফে আবেশ (২১) রংপুর নগরীর কেরানীপাড়া এলাকার মুক্তিযোদ্ধা খলিলুর রহমানের ছেলে তিনি। আশিকুল স্থানীয় বেসরকারি প্রাইম মেডিকেল কলেজের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র।

আশিকুলের বাবা জানান, গত বছরের ২২ মে আশিকুল তার মামা জেবু মিয়ার টঙ্গীর বাড়িতে যান। ওই দিন রাত ৩টার দিকে সাদা পোশাকে কয়েকজন অস্ত্রধারী তাকে ধরে নিয়ে যায়। তার সন্ধান না পাওয়ায় পরদিন খলিলুর রহমান জয়দেবপুর থানায় জিডি করেন। এরপরও তার সন্ধান না পাওয়ায় ১০ জুন তিনি অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের নামে ওই থানায় অপহরণ মামলা করেন। তিনি অভিযোগ করেন, ছেলেকে ফিরে পেতে তিনি মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর কাছে গিয়েছিলেন। কোনো ফল হয়নি।

 

এই পাতার আরো খবর
up-arrow