Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : বুধবার, ৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৫৬
প্রানেরমেলা প্রতিদিন
দিন যত যাচ্ছে, জমে উঠছে মেলা
মোস্তফা মতিহার
দিন যত যাচ্ছে, জমে উঠছে মেলা

দিন যত যাচ্ছে মেলা তত জমে উঠছে। দর্শনার্থীদের পাশাপাশি ক্রেতাদের সংখ্যাও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

গত বছরের প্রথম সপ্তাহের তুলনায় এ বছরের প্রথম সপ্তাহে বিক্রি কমে যাওয়ায় প্রকাশকদের মাঝে হতাশা ফুটে ওঠে। কিন্তু গতকাল থেকে বিক্রি বেড়েছে। তাই প্রকাশকদের মুখেও হাসি ফুটে উঠেছে।

গত বছরের প্রথম সপ্তাহে ৭ শতাধিক বই প্রকাশিত হয়েছিল। এ বছর তা ৫৭২-এ নেমে এসেছে। আর এই ৫৭২টির মধ্যে গল্পের বই ৮৯টি, উপন্যাস ৮৬টি, প্রবন্ধ ৩৭টি, কাব্যগ্রন্থ ১৪৯টি, গবেষণাধর্মী ৮টি, ছড়ার বই ১৫টি, শিশুতোষ ১৮টি, জীবনী ৮টি, রচনাবলি ৪টি, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক ২২টি, নাটক ৩টি, বিজ্ঞানবিষয়ক  ১০টি, ভ্রমণবিষয়ক     ১২টি, ইতিহাসের বই ৮টি, রাজনীতির বই ৪টি, স্বাস্থ্যবিষয়ক ৫টি, কম্পিউটারবিষয়ক ২টি, রম্য বই ২টি, ধর্মীয় ২টি, সায়েন্সফিকশন ১২টি ও অন্যান্য ৭৬টি। মেলাকে নান্দনিক ও পরিপাটির বিষয়ে বাংলা একাডেমি নানা কথার ফুলঝুরি ছড়ালেও সাত দিন পার হওয়ার পরও তারা কথা রাখতে পারেনি বলে জানিয়েছেন প্রকাশকরা। মেলার মাঠে পর্যাপ্ত আলো নেই, মাঠের সর্বত্র ইট বসানোর কাজ সুচারুরূপে হয়নি, বিভিন্ন স্টলে বিক্রি হচ্ছে পাইরেটেড বই ও নোট বই, মেলা চত্বর অপরিষ্কার, মোড়ক উন্মোচন মঞ্চটি মানসম্মত হয়নি, আগতদের জন্য পর্যাপ্ত বসার ব্যবস্থা নেই। অব্যবস্থাপনার এরকম ১১টি বিষয় নিয়ে ইতিমধ্যে বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতি বাংলা একাডেমিকে চিঠি দিলেও এখন পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা নেয়নি বলে অভিযোগ করেছেন প্রকাশকরা।

শান্তনু চৌধুরীর দুটি উপন্যাস : অমর একুশে গ্রন্থমেলায় এসেছে সাংবাদিক ও সাহিত্যিক শান্তনু চৌধুরীর উপন্যাস ‘অন্য সময়ের প্রেম’ ও ‘পর সমাচার এই যে’। এর মধ্যে ‘অন্য সময়ের প্রেম’ উপন্যাসটিতে লেখক ছাত্র রাজনীতি, খুন-খারাবি, হল দখলের বিষয়গুলো তুলে ধরেছেন। অন্যদিকে ‘পর সমাচার এই যে’ উপন্যাসটিতে একটি মেয়ের চাওয়া-পাওয়া, হতাশা আর রোমান্টিক জীবনের আকুতি তুলে ধরা হয়েছে। ‘অন্য সময়ের প্রেম’ উপন্যাসটি প্রকাশ করেছে পার্ল পাবলিশার্স ও ‘পর সমাচার এই যে ’ প্রকাশ করেছে দেশ পাবলিকেশন্স।

প্রাইম ব্যাংকের অমর একুশে কার্ড : একুশে গ্রন্থমেলা উপলক্ষে ২১% ছাড়ে অমর একুশে কার্ড ছেড়েছে প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড। ১ হাজার টাকা ও ২ হাজার টাকা মূল্যের এই প্রি-পেইড কার্ডটি পাওয়া যাবে ব্যাংকের সব শাখায়। ২১% ছাড়ে ১ হাজার টাকার কার্ডটি পাওয়া যাবে ৭৯০ টাকায় আর ২ হাজার টাকার কার্ডটি পাওয়া যাবে ১৫৮০ টাকায়। মেলা চলাকালীন এই অফার চলবে। এ ছাড়া প্রাইম ব্যাংকের সব ক্রেডিট কার্ড হোল্ডাররা বই কেনাকাটায় ১০% ক্যাশব্যাক সুবিধা পাবেন। গতকাল বিকালে অমর একুশে গ্রন্থমেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে যৌথভাবে বিশেষ সুবিধার এই প্রি-পেইড কার্ডটির উদ্বোধন করেন কথাসাহিত্যিক ও দৈনিক কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন ও ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আহমেদ কামাল খান চৌধুরী। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি মাজহারুল ইসলাম, নির্বাহী পরিচালক কামরুল হাসান শায়ক, সহ-সভাপতি মেছবাহউদ্দীন আহমদ, আগামী প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ওসমান গনি প্রমুখ। প্রাইম ব্যাংকের অমর একুশে কার্ডের মাধ্যমে অবসর প্রকাশনা সংস্থা, অনন্যা প্রকাশ, অনুপম প্রকাশনী, আগামী প্রকাশনী, আহমদ পাবলিশিং হাউস, অন্য প্রকাশ, অ্যাডর্ন পাবলিকেশন্স, কাকলী প্রকাশনী, জার্নিম্যান বুকস, পাঠক সমাবেশ, পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স, মাওলা ব্রাদার্স, সময় প্রকাশন ও সাহিত্য প্রকাশ এই ১৪টি প্রকাশনা থেকে বই কিনতে পারবেন কার্ড হোল্ডাররা। ব্যাংকটির সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা জানায়, ২১% ছাড়ে প্রাইম ব্যাংকের এই প্রি-পেইড কার্ডটি পেতে কোনো ধরনের অ্যাকাউন্ট লাগবে না।

নতুন বই : বাংলা একাডেমির তথ্যকেন্দ্র থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী গতকাল অমর একুশে গ্রন্থমেলার সপ্তম দিনে ১২১টি নতুন বই প্রকাশ হয়েছে। এর মধ্যে গল্প ১৮, উপন্যাস ১৭, প্রবন্ধ ১২, কবিতা ৩১, গবেষণা ১, শিশুসাহিত্য ৩, মুক্তিযুদ্ধ ৪, ভ্রমণ ২, ইতিহাস ২, রাজনীতি ২, চিকিৎসা/স্বাস্থ্য ১, রম্য/ধাঁধা ১, ধর্মীয় ১, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী ৩ এবং অন্যান্য বিষয়ের ওপর বই এসেছে ২৩টি। এ ছাড়া মেলার মোড়ক উন্মোচন মঞ্চে গতকাল ৯টি নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

মূল মঞ্চ : বিকাল ৪টায় গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় ‘বাংলার ডিজিটাল যাত্রা’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন মোস্তাফা জব্বার। আলোচনায় অংশ নেন নজরুল ইসলাম খান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জামিলুর রেজা চৌধুরী।

সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন তিমির নন্দী, বুলবুল মহলানবীশ, মাহমুদ সেলিম এবং সন্দীপন দাস।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow