Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : বুধবার, ৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০২:৪০
বাসের জানালায় মাথা, মর্মান্তিক মৃত্যু এসএসসি পরীক্ষার্থীর
আইল্যান্ডে উঠে গেল বাস, নিহত ব্যাংক কর্মকর্তা
নিজস্ব প্রতিবেদক

মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষা দিচ্ছিল সাকিবুল ইসলাম। গতকাল ইংরেজি প্রথম পত্রের পরীক্ষা ছিল।

সকালে রাজধানীর দক্ষিণ বাড্ডার ১১৮ নম্বর বাসা থেকে মা ফরিদা ইয়াসমিনের সঙ্গে বের হয়। পরীক্ষা কেন্দ্র শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজে যাওয়ার জন্য    বিনিময় পরিবহনে ওঠে। পথে মহাখালীর আমতলীতে জানালা দিয়ে মাথা বের করতেই আচমকা একটি ল্যাম্পপোস্টে বাড়ি লাগে। নিমেষেই তাকে নিয়ে পরিবারের সব স্বপ্ন ভেঙে গেল। সাকিব চলে গেল না-ফেরার দেশে। সাকিবের চাচাতো ভাই ইসহাক রহমান বলেন, সাকিব বনানীর বিদ্যানিকেতনের ছাত্র ছিল। বাণিজ্য শাখা থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছিল। সে শান্ত প্রকৃতির এবং মেধাবী ছিল। নিয়মিত স্কুলে যেত। পড়াশোনা করত। এমন মর্মান্তিকভাবে এতটুকু ছেলে ঝরে পড়ায় তার বাবা-মা বার বার জ্ঞান হারাচ্ছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে বনানী থানার এসআই গোলাম রব্বানী বলেন, আমতলীতে চলন্ত বাসের জানালা দিয়ে মাথা বের করেছিল সাকিব। সকাল সোয়া ৯টার দিকে একটি ল্যাম্পপোস্টের সঙ্গে বাড়ি খেয়ে মাথায় গুরুতর আঘাত পায় সে। প্রথমে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়, পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়। বেলা পৌনে ১১টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক সাকিবকে মৃত ঘোষণা করেন।

বাসচাপায় প্রাণ গেল ব্যাংক কর্মকর্তার : রাজধানীর ওয়ারীতে বাসচাপায় গোলাম হোসেন (৫০) নামে বাংলাদেশ ব্যাংকের এক কর্মকর্তার মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় জালাল উদ্দিন, সুজন ও শাহিদা বেগম নামে আরও তিনজন আহত হয়েছেন। গতকাল সকাল পৌনে ৮টার দিকে ইত্তেফাক মোড়ে গাবতলী-সায়েদাবাদগামী ৮ নম্বর পরিবহনের একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে আইল্যান্ডে উঠে যায়। এতে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তা গোলাম হোসেন ঘটনাস্থলেই মারা যান। জানা গেছে, গোলাম হোসেনের স্ত্রীর নাম আফরোজা সুলতানা। ওই দম্পতির দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। এরমধ্যে বড় ছেলে সালমান হোসেন পরাগ রুয়েটে পড়ছে; ছোট ছেলে আরমান হোসেন তুরাগ এসএসসি পরীক্ষার্থী এবং একমাত্র মেয়ে আফরোজা সুলতানা আল্পনা পড়ছে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে।

নিহতের বড় ছেলে পরাগ জানান, তারা পূর্ব জুরাইনের মুরাদপুর হাইস্কুল রোডের ১১৫ নম্বর বাসায় থাকেন। তার বাবা বাংলাদেশ ব্যাংকের ডিপোজিট অ্যাকাউন্টস বিভাগের উপ-পরিচালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি প্রতিদিন বাসা থেকে বের হয়ে কোনো দিন নিজের গাড়িতে আবার কোনো দিন রিকশায় অফিসে যেতেন। গতকাল তিনি ইত্তেফাক মোড়ে কোনো কাজ শেষ করে অফিসে যাচ্ছিলেন। এ সময় বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে আইল্যান্ডে উঠে গেলে বাসচাপায় ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।

ওয়ারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জেহাদ হোসেন বলেন, এ ঘটনায় নিহতের বড় ছেলে সালমান হোসেন পরাগ বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। ঘটনার পর ৮ নম্বর পরিবহনের (ঢাকা মেট্রো জ-১১-১৯৯৬) বাসটি জব্দ করা হলেও এর চালক পলাতক রয়েছেন। তাকে ধরতে অভিযান চলছে। এদিকে মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংক অফিসার্স ওয়েলফেয়ার কাউন্সিলের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন এবং সাধারণ সম্পাদক ইস্তেকমাল হোসেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow