Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ২০ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, রবিবার, ২০ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৩১
উদ্বোধনের অপেক্ষায় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট
জয়শ্রী ভাদুড়ী
উদ্বোধনের অপেক্ষায়  বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট

প্রথমবারের মতো মহাকাশে বাংলাদেশকে পৌঁছে দিতে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১-এর নকশা চূড়ান্ত করা হয়েছে। এ বছর বিজয় দিবসে স্যাটেলাইটটি উেক্ষপণ করতে এরই মধ্যে ৭৪ শতাংশ কাজ সম্পন্ন করেছে ফ্রান্সের নির্মাতা প্রতিষ্ঠান থ্যালেস অ্যালিনিয়া স্পেস।

উপগ্রহটি নিয়ন্ত্রণে ইউরোপ ও আমেরিকা থেকে গ্রাউন্ড কন্ট্রোল স্টেশনের যন্ত্রপাতিও আমদানি করেছে বিটিআরসি। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন সূত্রে জানা গেছে, ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট সিস্টেম’ টার্ন কি চুক্তির আওতায় এ স্যাটেলাইটটির নির্মাণকাজ এগিয়ে চলেছে। এরই মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে কারিগরি ডিজাইন রিভিউর কাজ। আর এ ডিজাইন অনুসরণ করে প্রায় ৭৪ শতাংশ কাজ সম্পন্ন করেছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি। শুধু তাই নয়, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উেক্ষপণের পর সেটি

নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনার জন্য গাজীপুরের জয়দেবপুর ও রাঙামাটির বেতবুনিয়ায়  স্যাটেলাইটের প্রাইমারি ও সেকেন্ডারি গ্রাউন্ড স্টেশনের সিভিল কাজের রিভিউ সম্পন্ন করে স্থাপত্য নকশা চূড়ান্ত করা হয়েছে। নকশা অনুযায়ী আর্থফিলিং, বাউন্ডারি ওয়ালের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। এ ছাড়া মূল ভবনের

ছাদ ঢালাই, ডরমিটরি তৈরি ও ইউটিলিটি বিল্ডিংয়ের নির্মাণকাজ চলছে। গ্রাউন্ড স্টেশনকে কার্যকর করতে ইউরোপ ও আমেরিকা থেকে যন্ত্রপাতি আমদানি শুরু হয়েছে। নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজন ও চাহিদা অনুযায়ী প্রথম ও দ্বিতীয় লটে অ্যান্টেনার যাবতীয় যন্ত্রাংশ দেশে এসে পৌঁছেছে। এখন সেগুলো স্থাপনের কাজ চলছে। কোনো বিপত্তি ছাড়া এভাবে কাজ চললে এবারের বিজয় দিবসে ১১৯.১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশ অরবিটাল স্লটে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১-এর উেক্ষপণ সম্ভব হবে বলে জানিয়েছে বিটিআরসি। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ প্রকল্পসংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের প্রকল্প ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ হাজার কোটি টাকা, এর মধ্যে সরকার দেবে ১ হাজার ৩১৫ দশমিক ৫১ কোটি টাকা। এ ছাড়া বিডার্স ফাইন্যান্সিং ধরা হয়েছে ১ হাজার ৬৫২ কোটি টাকা। ২০১৪ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর এ উপগ্রহ উেক্ষপণের মাধ্যমে সম্প্রচার ও টেলিযোগাযোগ সেবা পরিচালনার জন্য ৩ হাজার কোটি টাকার একটি বড় প্রকল্প অনুমোদন দেয় একনেক। স্যাটেলাইটটি উেক্ষপণের সময় নির্ধারণ করা হয় এ বছরের ১৬ ডিসেম্বর। কৃত্রিম এ উপগ্রহ উেক্ষপণ প্রকল্পের জন্য একই বছর ৩১ ডিসেম্বর ২১৮ কোটি ৯৬ লাখ টাকায় রাশিয়ার কাছ থেকে ‘অরবিটাল স্লট’ ইজারা নেওয়ার প্রস্তাবের অনুমোদন দেয় সরকার। ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট’ উেক্ষপণের পর বিদেশি স্যাটেলাইটের ভাড়া বাবদ বছরে ১৪ মিলিয়ন ডলার সাশ্রয় হবে। এটি উেক্ষপিত হলে বিদেশি স্যাটেলাইট ভাড়া ছাড়াই প্রত্যন্ত অঞ্চলে পৌঁছে দেওয়া যাবে সম্প্রচার সেবা। এ ছাড়া টেলিমেডিসিন, ই-লার্নিং, ই-গবেষণা, প্রতিরক্ষা ও দুর্যোগপূর্ণ অবস্থায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে এ স্যাটেলাইট।

এ প্রকল্প সম্পর্কে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের সচিব মো. সরওয়ার আলম বলেন, ‘আমরা যে রোডম্যাপ টার্গেট করেছিলাম সে অনুযায়ী কাজ করছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। এরই মধ্যে ৭৪ শতাংশের বেশি কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এভাবে কাজ করে যেতে পারলে এ বছরের বিজয় দিবসেই বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১-এর সফল উেক্ষপণ সম্ভব হবে। ’

এই পাতার আরো খবর
up-arrow