Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৩২
আন্দোলনের ধরন পাল্টে কর্মীদের চাঙ্গায় হেফাজত
মুহাম্মদ সেলিম, চট্টগ্রাম

আন্দোলনের ধরন পাল্টিয়েছে বহুল আলোচিত সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। এখন তারা ১৩ দফার পাশাপাশি বিভিন্ন ইস্যুভিত্তিক দাবি আদায়ে মনোনিবেশ করছে।

এ কৌশল অবলম্বন করে মাঠপর্যায়ের নেতা-কর্মীদের চাঙ্গা রাখছে। এরই মধ্যে পাঠ্যবইয়ের পরিবর্তনসহ কিছু দাবি দিয়ে সফলও হয়েছে তারা। সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে গ্রিক দেবীর মূর্তি অপসারণের দাবিতে আন্দোলন করবে বলে গত সপ্তাহে ঘোষণা দিয়েছে হেফাজতে ইসলাম।

হেফাজতের মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, ‘হেফাজতে ইসলাম অরাজনৈতিক অবস্থানে থেকেই ইমান-আকিদার বিষয় ও জাতীয় স্বার্থে কথা বলে। তাই ১৩ দফার পাশাপাশি ইমান-আকিদা ও জাতীয় স্বার্থের বিরুদ্ধে সরকার কোনো পদক্ষেপ নিলে প্রতিবাদ করছে। ’ এক প্রশ্নের জবাবে হেফাজত মহাসচিব বলেন, ‘তার সংগঠনের নেতা ও কর্মী-সমর্থকরা এ দেশে উড়ে এসে জুড়ে বসেননি। বরং ইসলামবিদ্বেষী নাস্তিকতাবাদীরা বাংলাদেশে সাংস্কৃতিক আগ্রাসন চালাচ্ছেন। সরকারের দায়িত্ব প্রতিটি নাগরিকের মতামত ও দাবিকে গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করা। আমাদের দাবির অল্প কিছু ইতিবাচক অর্জন ছাড়া কোনো একটা দাবি সরকার শতভাগ মেনে নিয়েছে, এটা বলার সুযোগ নেই। ’ হেফাজতে ইসলামের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে পাঠ্যবইয়ে পরিবর্তন করেছে সরকার— এমন অভিযোগের বিষয়ে হেফাজত আমিরের প্রেস সচিব মাওলানা মুনির আহমদ পাল্টা যুক্তি দিয়ে বলেন, ‘পাঠ্যবইয়ে মুসলিম লেখকদের গদ্য ও পদ্য রয়েছে গড়ে ৬০-৭০ ভাগ। বাকিগুলো অমুসলিম লেখকদের। অথচ বাংলাদেশে তাদের জনসংখ্যা বড়জোর ১০ ভাগ। সে হিসেবে তাদের বেশিই মূল্যায়ন করা হয়েছে। ’ হেফাজতের কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, একসময় ১৩ দফা দাবি আদায়ের জন্য মাঠে অধিক সক্রিয় থাকলেও সময়ের পরিপ্রেক্ষিতে তারা কুশলী ভূমিকা নিয়েছেন। কৌশলের অংশ হিসেবে হেফাজত সংবিধানে আল্লাহর ওপর আস্থা ও বিশ্বাসের ধারা পুনঃস্থাপন, রাষ্ট্রের ধর্মনিরপেক্ষ নীতি বাদ দেওয়া, ইসলামী শিক্ষায় সরকারি হস্তক্ষেপ বন্ধ, ইসলামবিরোধী শিক্ষানীতি ও শিক্ষা আইন বাতিল, স্কুল পাঠ্যবইয়ে ইসলামী ভাবধারার আদর্শিক লেখাগুলো পুনরায় যুক্ত করা, সাবেক মন্ত্রী লতিফ সিদ্দিকীকে মন্ত্রিসভা থেকে অপসারণ ও গ্রেফতারের ডাকসহ বেশকিছু দাবি দেয়। এসব দাবির মধ্যে হেফাজতে ইসলামের কিছু দাবি পূরণও করেছে সরকার। তার মধ্যে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তকের প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের বইয়ে হেফাজতে ইসলামের পরামর্শে ২৯টি পরিবর্তন আনা হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এ ছাড়া সর্বশেষ ৬ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে গ্রিক দেবীর মূর্তি অপসারণের দাবি জানিয়েছে তারা। এ বিষয়ে আজ চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে কর্মসূচির ঘোষণা দেবে হেফাজত।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow