Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৩৫
খেলাপি ঋণ কমানো বড় চ্যালেঞ্জ
— — এমডি, এনসিসি ব্যাংক
আলী রিয়াজ
খেলাপি ঋণ কমানো বড় চ্যালেঞ্জ
গোলাম হাফিজ আহমেদ

ব্যাংকিং খাতের বড় চ্যালেঞ্জ খেলাপি ঋণ। মন্দ ঋণের ক্ষতি ভালো ঋণ দিয়ে পূরণ করতে হয়।

এই ঋণ ব্যবস্থাপনা সঠিকভাবে করতে পারলে ব্যাংকের ভালো না করার কোনো কারণ নেই। সব প্রকল্পে ঋণ দিলেই সঠিক সময়ে ফেরত পাওয়া যাবে না। ব্যবসায় লোকসান আছে। তা হিসাবে  নিয়েই ব্যবসা করতে হবে। তবে দেশের সার্বিক প্রবৃদ্ধি এখন ঊর্ধ্বমুখী। বড় বড় প্রকল্পে প্রচুর বিদেশি ঋণ এসেছে। এসব ঋণে সরকারি বৃহৎ প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে। এখন ব্যবসায়িক পরিবেশও অনুকূল। ফলে এ বছর ব্যাংক ব্যবসাও ভালো হবে। ব্যবসায়িক পরিবেশের দিকে লক্ষ্য রেখেই সহায়ক মুদ্রানীতি ঘোষিত হয়েছে। এতে দেশের ব্যাংকিং প্রবৃদ্ধিতেও গতি আসবে। দেশের অর্থনীতি, প্রবৃদ্ধি, ব্যাংকিং পরিস্থিতি নিয়ে একান্ত সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন এনসিসি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম হাফিজ আহমেদ। সম্প্রতি মতিঝিলে এনসিসি ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন এই বিশিষ্ট ব্যাংকার। এনসিসি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী গোলাম হাফিজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে অনার্স ও মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ১৯৮৩ সালে যুক্তরাজ্যভিত্তিক তৎকালীন চার্টার্ড ব্যাংকে ব্যাংকিং ক্যারিয়ার শুরু করেন। পরে ব্যাংকার্স রিক্রুটমেন্ট কমিটির মাধ্যমে সিনিয়র অফিসার হিসেবে পূবালী ব্যাংকে যোগ দেন। ৩৩ বছরের সুদীর্ঘ ব্যাংকিং জীবনে তিনি এনসিসি ব্যাংক ছাড়াও ব্যাংক ইন্দোসুয়েজ ও ঢাকা ব্যাংকসহ বিভিন্ন ব্যাংকে গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে আন্তর্জাতিক ব্যাংকিং ও শাখা ব্যাংকিংয়ে ব্যাপক অভিজ্ঞতা অর্জন করেন। এনসিসি ব্যাংকে উপব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে তিনি করপোরেট ব্যাংকিং, অপারেশন ও ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা বিভাগের দায়িত্বে ছিলেন। পরে অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

বাংলাদেশ প্রতিদিনকে সাক্ষাৎকারে গোলাম হাফিজ আহমেদ বলেন, কয়েক বছর ধরে সারা পৃথিবীতে তেল, স্টিল, শিল্প, মূলধনি যন্ত্রপাতির দর ছিল নিম্নমুখী। কিছুটা ধারাবাহিকভাবেই কমেছে। কিন্তু এখন তা আবার বাড়ছে। এই বৃদ্ধি, প্রবৃদ্ধি সহায়ক। মানে এখন ব্যাংকগুলোর বিনিয়োগ করার উপযুক্ত সময়। দেশে অনেক উন্নয়ন হচ্ছে। এর প্রভাব ব্যাংকিং খাতে পড়বে। ব্যাংকগুলোর হাতে প্রচুর তারল্য আছে। সুদের হারও নিম্নমুখী, ক্ষেত্রবিশেষে সিঙ্গেল ডিজিটে চলে এসেছে। যেহেতু বিশ্বব্যাপী শিল্প মূলধনি পণ্যের দর ঊর্ধ্বমুখী, তাই বিনিয়োগ ঝুঁকিও কমেছে। এখন ব্যাংকগুলোকে দেশের তৈরি পোশাক ও টেক্সটাইল খাতে আরও সাপোর্ট দিতে হবে। নতুন মার্কিন প্রশাসনের ভূমিকাও বাংলাদেশের ব্যবসার জন্য ইতিবাচক।

বিশিষ্ট এই ব্যাংকার বলেন, ব্যাংকের কিছু ঋণ মন্দ হবে, কারণ অনেক ব্যবসা কাঙ্ক্ষিত লাভ করতে পারে না। যারা ব্যবসা করেন, সবাই মুনাফা করতে পারেন না। অনেক শিল্প উদ্যোগ ব্যর্থ হতে পারে। ফলে গৃহীত ঋণ খেলাপি হবে। অর্থাৎ ব্যাংকের সঙ্গে খেলাপি ঋণ ওতপ্রোতভাবে জড়িত। এখন রিকভারি সাফল্য ও বর্ধিত বিনিয়োগ দিয়ে সেই ব্যর্থতা কাটাতে হবে। এনসিসি ব্যাংকের এমডি বলেন, তহবিল ব্যয় কমানো এখন বড় চ্যালেঞ্জ। বর্তমানে তুলনামূলকভাবে কম সুদে ঋণ বিতরণ করতে হচ্ছে। আমানত সুদের হারও অনেক কম। তাই বিনিয়োগ না হওয়ার কোনো কারণ নেই। সম্প্রতি ঘোষিত বাংলাদেশ ব্যাংকের মুদ্রানীতি বিনিয়োগ সহায়ক হয়েছে বলে তিনি মনে করেন। তিনি বলেন, কিছু স্বার্থান্বেষী মহলের কারণে ভালো উদ্যোক্তারাও কম সুদে ঋণ নিতে পারছেন না। ফলে তারা ভালোভাবে ব্যবসা করতে পারছেন না। ব্যাংক খেলাপি ঋণে পরিণত টাকা ফেরত আনতে পারলেই আরও ভালো ব্যবসা করতে পারবে। সঠিক উদ্যোক্তাকে ঋণ দেওয়ার জন্য এক ধরনের দক্ষতা দরকার। আবার সঠিকভাবে ঋণের টাকা আদায়ের জন্য প্রয়োজন আরেক ধরনের দক্ষতা। ব্যাংকগুলোর উচিত, ঋণের টাকা আদায় খাতে আরও বিনিয়োগ বাড়ানো।

বিশিষ্ট এই ব্যাংকার বলেন, ব্যাংকের কাছে অতিরিক্ত তারল্য থাকার কারণ, সারা পৃথিবীতেই বিশেষ করে ইউরোপ ও জাপানে প্রবৃদ্ধি নেতিবাচক ছিল। ফলে আমাদের মতো দেশে এসব দেশ থেকে প্রচুর তহবিল এসেছে। প্রায় ৮ বিলিয়ন ডলার এসেছে বাংলাদেশে। অনেক ব্যাংক অফশোর ব্যাংকিং করে ভালো মুনাফাও করেছে। সীমিত আকারে আমরাও অফশোর ব্যাংকিং করেছি। এটা না এলে সুদের হার এত কমত না। আমরা এখন ৫ থেকে ৬ শতাংশে স্থায়ী আমানত নিচ্ছি। সেটা সম্ভব হতো না। এখন আবার প্রবৃদ্ধির সূচক ওপরের দিকে। বর্তমানে তারল্য আছে, বিনিয়োগও বাড়ছে। তিনি আরও বলেন, এখনকার ব্যাংকগুলোর আইটি ও মানবসম্পদ খাতে প্রচুর বিনিয়োগ করতে হবে। সক্ষমতা বাড়াতেই এসব খাতে বিনিয়োগ প্রয়োজন। এখানে আপস করলে সমস্যা হবে। তিনি বলেন, খেলাপি ঋণের সংস্কৃতি থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে। কিন্তু ব্যাংক চাইলেই খেলাপি ঋণ সংস্কৃতি থেকে বের হতে পারবে না, এজন্য সরকার ও অন্য সব পক্ষকে একমত হতে হবে। তবে খেলাপি ঋণ সমস্যা রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকেই বেশি। সে তুলনায় বেসরকারি ব্যাংকের এই সমস্যা অনেক কম। সরকারের সাপোর্ট থাকায় আমার মনে হয় এই সংস্কৃতির আশু পরিবর্তন হবে। সাম্প্রতিক শেয়ারবাজারের পরিবর্তনকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন গোলাম হাফিজ আহমেদ। তিনি বলেন, শেয়ারবাজারে ব্যবসা নয়, বিনিয়োগ করতে হবে। শেয়ারের দাম বাড়বে, তবে আকাশচুম্বী হবে না। বাজার সংশোধনকেও স্বাভাবিকভাবে নিতে হবে। হতাশ হলে চলবে না। বিনিয়োগের সুফল নিতে হলে দীর্ঘ অপেক্ষায় থাকতে হবে।

এনসিসি ব্যাংকের এমডি বলেন, পূর্ববর্তী বছরের তুলনায় ২০১৬ সালে এনসিসি ব্যাংক অনেক ভালো পরিচালন মুনাফা করেছে। আমাদের স্টেকহোল্ডাররা খুশি। বাজার মূলধন বেড়েছে। আমানত এবং ঋণের প্রবৃদ্ধিও আশাব্যঞ্জক। এ ধারা আমরা অব্যাহত রাখব। পাশাপাশি গ্রাহকদের প্রতি আমরা আরও যত্নশীল হব এবং উন্নত সেবা দিয়ে যাব। গ্রাহকদের সমর্থনের কারণেই এনসিসি ব্যাংক আজ এত দূর আসতে পেরেছে। সারা দেশে নতুন নতুন শাখা খোলা হচ্ছে। সময়ের পরিক্রমায় আজ এনসিসি ব্যাংকের শাখার সংখ্যা ১০৬টি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow