Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৩৩
প্রানের মেলা প্রতিদিন
বইমেলায় ছিল ফাগুনের আগুন
মোস্তফা মতিহার
বইমেলায় ছিল ফাগুনের আগুন
ফাগুনের রঙে রঙিন হয়ে উঠেছিল গোটা দেশ — রোহেত রাজীব

শাহবাগ মোড়, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস, টিএসসি, চারুকলার বকুলতলা, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, রবীন্দ্রসরোবরসহ রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে হলুদ পাঞ্জাবি আর ফতুয়ায় তরুণদের হিমু সাজার পাশাপাশি তাদের প্রেয়সীরাও সারা অবয়বে ধারণ করেছিল হলুদ শাড়ি, লাল ব্লাউজ আর মাথায় লাল-হলুদ ফুলের টায়রা। চারুকলা ও রবীন্দ্রসরোবরের বসন্ত উৎসব ও শহীদ মিনারের সম্মিলিত জোটের একুশের অনুষ্ঠানমালার ভিন্ন ভিন্ন পথের বাসন্তী সাজের তারুণ্য সব শেষে মিলিত হয়েছিল সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গ্রন্থমেলায়।

ফাগুনের উপচে পড়া ঢেউয়ে বাসন্তী সাজে সেজেছিল অমর একুশে গ্রন্থমেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ। মিষ্টি সুরের সঙ্গে লাল-হলুদের বাসন্তী সাজ গ্রন্থমেলাকে করেছিল উচ্ছ্বসিত। প্রিয়তমের হাত ধরে প্রিয়তমার ঘুরে বেড়ানো, কপোত-কপোতীর ভালোলাগা আর ভালোবাসার জোয়ারে ভেসে যাওয়া যেন ছিল ফাগুনের দিনে ভালোবাসা দিবসের মহড়া। বাসন্তী রঙে প্রাণের গ্রন্থমেলা ভিন্ন এক রূপ ধারণ করেছিল গতকাল মেলার ১৩তম দিনে। মেলায় আগতরা শুধু মেলাকে ফাগুনের রঙেই রাঙাননি প্রকাশকদের হৃদয়েও দোলা দিয়েছিলেন বই কেনার মাধ্যমে। এদিন শুধু ফুল আর টায়রার সাজেই সীমাবদ্ধ থাকেননি মেলায় আগতরা।

১৩টি চত্বরের নামকরণ :বরেণ্য ব্যক্তিদের স্মরণ করে গতকাল মেলার ১৩টি চত্বরের নামকরণ করেছে আয়োজক প্রতিষ্ঠান বাংলা একাডেমি। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ড. জালাল আহমেদ।

কবি সৈয়দ শামসুল হক, কবি শহীদ কাদরী, কবি রফিক আজাদ, আবদুল গফুর হালী, শওকত ওসমান, সরদার জয়েনউদ্্দীন, মদনমোহন তর্কালঙ্কার, আমীর হোসেন চৌধুরী, দীনেশ চন্দ্র সেন, আহসান হাবীব, আবদুল্লাহ আল-মুতী শরফুদ্দীন ও নূরজাহান বেগম এই ১২ বিশিষ্টজনের নামে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে ১২টি চত্বরের নামকরণ করা হয়েছে। এ ছাড়াও বাংলা একাডেমি অংশে শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের নামে আরেকটি চত্বরের নামকরণ করা হয়েছে।

নতুন বই : বাংলা একাডেমির সমন্বয় ও জনসংযোগ উপবিভাগ থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, গতকাল মেলার ১৩তম দিনে নতুন ৭১টি নতুন বই এসেছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য বইগুলো হলো : চারুলিপি থেকে প্রকাশিত শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের ‘রুখে দাঁড়াবার সময়’, চন্দ্রাবতী একাডেমি থেকে সেলিনা হোসেনের ‘ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান’, বাতিঘর থেকে মোহাম্মদ রফিকের ‘মানব পদাবলি’, মিজান পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ‘রচনাসমগ্র’, কালিকলম প্রকাশনা থেকে আহমদ ছফার ‘বাংলাদেশের বুদ্ধিজীবী’, মুক্তধারা থেকে সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর ‘তাজউদ্দীন আহমদের রাজনৈতিক জীবন’, ইমপ্রেস অডিও ভিশন থেকে রাবেয়া রাহীমের কাব্যগ্রন্থ ‘দূরের মানুষ কাছের মানুষ’। এ ছাড়া গতকাল মোড়ক উন্মোচন মঞ্চে ১৪টি নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

মূল মঞ্চ : গতকাল বিকাল ৪টায় গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় মদনমোহন তর্কালঙ্কারের জন্মদ্বিশতবার্ষিকী শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধ্যাপক শফিউল আলম। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ড. সফিউদ্দিন আহমদ এবং ড. রতন সিদ্দিকী। সভাপতিত্ব করেন প্রাবন্ধিক-গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ।

সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে ছিল বেগম রাহিজা খানম ঝুনুর পরিচালনায় সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘বাংলাদেশ একাডেমি অব ফাইন আর্টস লি. (বাফা)’-এর পরিবেশনা। সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী সুবীর নন্দী, জীনাত রেহানা, দীনাত জাহান মুন্নী, অনন্যা আচার্য্য এবং সঞ্জয় কুমার দাস।

বসন্ত উৎসব উদযাপিত : নাচ, গান, আবৃত্তিসহ নানা আয়োজনে বসন্ত উৎসব উদযাপন করেছে জাতীয় বসন্ত উৎসব উদযাপন পরিষদ। সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে মতিয়ারের সারেঙ্গী বাদন ও অসীত কুমার দের শাস্ত্রীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের বকুলতলায় এ উৎসব শুরু হয়। সকালের পর্বের অনুষ্ঠান চলে একটানা সকাল ১০টা  পর্যন্ত। এ পর্ব সরাসরি সম্প্রচার করে দেশটিভি। এরপর বিকাল ৪টা থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলাসহ একযোগে পুরান ঢাকার বাহাদুর শাহ পার্ক, ধানমন্ডির রবীন্দ্রসরোবর এবং উত্তরা ৩ নম্বর সেক্টরের রবীন্দ্র সরণির উন্মুক্ত মঞ্চে অনুষ্ঠান চলে সন্ধ্যা ৬টা ৫০ মিনিট পর্যন্ত। চারুকলার বিকালের অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করে স্যাটেলাইট চ্যানেল এনটিভি।

up-arrow