Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : বুধবার, ১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৩৮
কুমিল্লায় দুই দলেই গ্রুপিং
চাচা অভিমান ভুলে নৌকার পক্ষে কাজ করবেন : সীমা
মহিউদ্দিন মোল্লা, কুমিল্লা
চাচা অভিমান ভুলে নৌকার পক্ষে কাজ করবেন : সীমা

কুমিল্লা আওয়ামী লীগ-বিএনপি দুই দলেই রয়েছে চরম গ্রুপিং। রয়েছে মান-অভিমানও।

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন (কুসিক) নির্বাচনেও পড়তে পারে এর প্রভাব। তবে দুই দলের প্রার্থী দাবি করেছেন, তাদের দলে কোনো বিভেদ নেই। নেই কোনো গ্রুপিং।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা বলেছেন, ‘চাচা (সদরের এমপি বাহার) অভিমান ভুলে নৌকার পক্ষে কাজ করবেন। কারণ তিনি নৌকারই লোক। ’ আঞ্জুম সুলতানা সীমা বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘সোমবার রাতে চাচার দোয়া নিতে গিয়েছি। তিনি দোয়া ছাড়া অন্য কিছু করতে অপারগতা প্রকাশ করেছেন। তবে আমি হতাশ নই। আমি আশাবাদী, চাচা অভিমান ভুলে নৌকার পক্ষেই কাজ করবেন।

কারণ তিনি নৌকারই লোক। ’ সীমা বলেন, ‘নেত্রী আমার প্রতি আস্থা রেখে, আমাকে বিশ্বাস করে যে প্রতীকটি দিয়েছেন তার প্রতি গুরুত্ব দিয়ে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের হারানো আসন উদ্ধার করে তাকে উপহার দেব। আমি কুমিল্লা পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান, সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান ও কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর ছিলাম। আমি সব সময় মানুষের জন্য কাজ করেছি। এবার মানুষের জন্য আরও বড় পরিসরে কাজ করার সুযোগ চাই। ’ সীমা তার প্রতিদ্বন্দ্বী সাক্কু সম্পর্কে বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমি কারও বিরুদ্ধে নই। সবার ভালো-মন্দ নগরবাসী মূল্যায়ন করবেন। ’ উল্লেখ্য, সীমার বাবা প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা অধ্যক্ষ আফজল খান আর সদরের এমপি আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের বিরোধ তিন দশকের। জানতে চাইলে এমপি বাহার বলেছেন, ‘যিনি নৌকার মনোনয়ন পেয়েছেন তিনি আমার ভাতিজি। নির্বাচনবিধি অনুযায়ী আমি প্রচারণা চালাতে পারব না। এ জন্য বলেছি, আমি তাকে দোয়া করেছি। তার প্রতি আমার সমর্থন থাকবে, সে যেন বিজয়ী হয়। ’

এই পাতার আরো খবর
up-arrow