Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ২ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৫২
কুমিল্লায় নৌকা-ধানের শীষ মাঠে
বাবা আফজলকে নিয়ে মনোনয়ন জমা দিলেন সীমা
মহিউদ্দিন মোল্লা, কুমিল্লা

আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা দলের প্রবীণ নেতা ও তার বাবা অধ্যক্ষ আফজল খানকে সঙ্গে নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। গতকাল দুপুর ১২টার দিকে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে তিনি মনোনয়নপত্র জমা দেন।

এ সময় কুমিল্লা সদর আসনের এমপি আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের সমর্থক কোনো নেতা-কর্মীকে তার সঙ্গে দেখা যায়নি। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় সীমার সঙ্গে দলীয় নেতাদের মধ্যে ছিলেন কুমিল্লা জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক ওমর ফারুক, সাজ্জাদ হোসেন, শাহীনুল ইসলাম শাহীন, নুর-উর রহমান মাহমুদ তানিম প্রমুখ। পরে সাংবাদিকদের     এক প্রশ্নের জবাবে সীমা বলেন, ‘আমাদের দলে কোনো বিভেদ নেই। আমরা সবাই নৌকার প্রশ্নে এক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নৌকা প্রতীক দিয়ে আমাকে নগরবাসীর কাছে পাঠিয়েছেন। আশা করি সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে আমাকে বিজয়ী করবেন। ’ তিনি বলেন, ‘কুমিল্লা নগরীতে অনেক সমস্যা রয়েছে। নির্বাচিত হলে আমার প্রথম চ্যালেঞ্জ হচ্ছে নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসন। ’ আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার গ্রুপের মনোনয়নবঞ্চিত দক্ষিণ জেলা যুবলীগের সাবেক সহসভাপতি আরফানুল হক রিফাত বলেন, ‘সবাই তো আর মনোনয়ন পায় না। দল করলে মান-অভিমান থাকেই। তবে নৌকার প্রশ্নে আমরা এক। ’ ভিক্টোরিয়া কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি নূর-উর রহমান মাহমুদ তানিমকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘অনেকে এখন বক্তব্য দেন তারা সীমার জন্য বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দেবেন। এগুলো হালকা কথা। একসময় তারাই সীমার বাবা আফজল খানের বিপক্ষে নির্বাচন করেছেন। ’ বাহার গ্রুপের আরেক নেতা ভিক্টোরিয়া কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক জিএস আবদুল্লাহ আল মাহমুদ সহিদ বলেন, ‘আমাদের প্রার্থী ছিল। আমরা মনোনয়ন পাইনি। তবে দলের বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই। বাহার ভাই এমপি হওয়ায় তিনি সরাসরি কাজ করতে পারছেন না। ব্যস্ত থাকায় তারা সীমার মনোনয়নপত্র জমাদানের সময় উপস্থিত থাকতে পারেননি। ’ রিফাতের বক্তব্যের বিষয়ে নূর-উর রহমান মাহমুদ তানিম বলেন, ‘আমি যখন নির্বাচন করেছি, তখন মার্কা নৌকা ছিল না। আমরা দলের জন্য পরিশ্রম করেছি। তাই কেন্দ্র আমাদের মূল্যায়ন করে। এটা তারা সহ্য করতে পারছেন না। ’

১৯২ জনের মনোনয়নপত্র জমা : জমাদানের শেষ দিন গতকাল ৫ মেয়র প্রার্থীসহ ১৯২ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। ৬ মেয়র, কাউন্সিলর পদে সাধারণ ওয়ার্ডে ১৯৩ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ৪৫ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছিলেন। মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের আঞ্জুম সুলতানা সীমা, বিএনপির মনিরুল হক সাক্কু, জাসদের শিরিন আক্তার, স্বতন্ত্র মেজর (অব.) মামুনুর রশিদ ও পিডিপির শোয়েবুর রহমান। কাউন্সিলর পদে সাধারণ ওয়ার্ডে ১৪৫ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ৪২ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা রকিব উদ্দিন মণ্ডল জানান, ‘সব মনোনয়নপত্র জমাদানকারীকে আচরণবিধি সম্পর্কে সতর্ক করা হচ্ছে। কেউ আচরণবিধি লঙ্ঘন করলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’ ৩০ মার্চ কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোট গ্রহণ করা হবে। গতকাল ছিল মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ দিন। যাচাই-বাছাই ৫ ও ৬ মার্চ। প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১৪ মার্চ। প্রতীক বরাদ্দ হবে ১৫ মার্চ।

up-arrow