Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ৪ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৩ মার্চ, ২০১৭ ২২:৫৩
সুনামগঞ্জে রতন এমপির বাড়িতে হামলা গ্রেফতার ৫
সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি

সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের সুনামগঞ্জ শহরের বাড়িতে হামলার অভিযোগে জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আসাদুজ্জামান সেন্টুসহ যুবলীগের ১৪ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে  মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৮টার দিকে শহরের মল্লিকপুরে এমপি রতনের বাড়িতে ইটপাটকেল ছুড়ে ভাঙচুর চালানো হয়।

হামলার সময় এমপি রতন ছিলেন না। রাতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সঞ্জয় সরকার। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ জেলা যুবলীগের পক্ষ থেকে অস্বীকার করা হয়েছে। বাড়ির কেয়ারটেকার সৈয়দ সুজন বাদী হয়ে দায়ের করা মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও ১৩-১৪ জনকে আসামি করা হয়েছে। মামলার অন্য আসামিরা হলেন সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা যুবলীগ সভাপতি এহসান আহমদ উজ্জ্বল, সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম উকিল, যুবলীগ নেতা ইস্পাহানী প্রমুখ। হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে সুনামগঞ্জ পৌর যুবলীগের আহ্বায়ক ও পৌর কাউন্সিলর আবাবিল নূরসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। হামলা, মামলা ও গ্রেফতার ঘটনার পর শহরজুড়ে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। মোয়াজ্জেম হোসেন রতন এমপি বলেন, ‘আমি শেখ হাসিনার নির্দেশে হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধের অনিয়ম ও কাজের ধীরগতি নিয়ে কথা বলায় দুর্নীতিবাজ ঠিকাদারের লোকজনের পক্ষ নিয়ে সদর থানা যুবলীগ সভাপতি উজ্জ্বলের নেতৃত্বে আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে বাসায় হামলা চালানো হয়। ’ সদর থানা যুবলীগের সভাপতি এহসান আহমদ উজ্জ্বল বলেন, ‘এমপি রতনের বাসায় হামলার ঘটনা সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না। আমাকে হয়রানির জন্য এসব মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে। এর আগেও আমার বিরুদ্ধে এ ধরনের মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছিল। ’ সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আসাদুজ্জামান সেন্টু বলেন, ‘তার নির্বাচনী এলাকায় খেয়ালখুশিমতো যুবলীগের কমিটি করতে ব্যর্থ হয়ে এ হামলার ঘটনায় আমাকে ও যুবলীগ নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে জড়িয়েছেন এমপি রতন। ’ জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক খায়রুল হুদা চপল বলেন, ‘মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের বাসায় হামলার ঘটনার সঙ্গে যুবলীগের কোনো নেতা-কর্মী জড়িত নন। আমার মনে হয় হামলার ঘটনাটি সাজানো। ’ সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ বলেন, ‘মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের বাসার প্রধান ফটকের লাইট ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা। বাসার ভিতরে ঢিল ছোড়া হয়েছে। এ ঘটনায় সদর থানায় মামলা হয়েছে। জড়িদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’

এই পাতার আরো খবর
up-arrow