Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ২১ জানুয়ারি, ২০১৮

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১০ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৯ অক্টোবর, ২০১৭ ২৩:১৮
বগুড়ায় কিশোরী ধর্ষণ ও মাথা ন্যাড়া মামলায় চার্জশিট আজ
নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া

বগুড়ায় কলেজে ভর্তি করে দেওয়ার প্রলোভনে কিশোরী ধর্ষণ ও এরপর বিচারের নামে মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার ঘটনায় দায়ের হওয়া দুটি মামলার তদন্ত শেষ হয়েছে। তদন্তে পুলিশ ঘটনার সত্যতা পেয়েছে। আজ আদালতে দুটি মামলারই চার্জশিট দেওয়া হবে। খবর সংশ্লিষ্ট সূত্রের।

জানা যায়, চলতি বছরের ১৭ জুলাই বগুড়া শহরের চকসূত্রাপুরের বাসিন্দা শহর শ্রমিক লীগের বহিষ্কৃত নেতা তুফান সরকার কলেজে ভর্তি করিয়ে দেওয়ার প্রলোভনে কিশোরীকে নিজ বাসায় ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ ঘটনা জানাজানি হলে ২৭ জুলাই বিচারের নাম করে তুফান সরকারের স্ত্রী আশা সরকার ও তার স্ত্রীর বড় বোন বগুড়ার পৌর কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকি কিশোরী ও মাকে বাড়িতে ডেকে নিয়ে নির্যাতন চালায়। একপর্যায়ে তারা কিশোরী ও তার মাকে মারপিট শেষে মাথা ন্যাড়া করে দেয়। এতে তারা অসুস্থ হয়ে পড়লে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার শেষে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেলে ভর্তি করেন। খবর পেয়ে পুলিশ ওই রাতেই তুফান সরকার ও তার পাঁচ সহযোগী এবং পরে আশা, কাউন্সিলর রুমকিসহ ১১ জনকে গ্রেফতার করে। ধর্ষিত কিশোরীর মা বগুড়া সদর থানায় তুফান সরকারকে প্রধান আসামি করে দুটি মামলা করেন। মা ও মেয়ের মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার অপরাধে নাপিতকে গ্রেফতার করা হলেও তিনি বর্তমানে জামিনে রয়েছেন। আর কারাবিধি ভঙ্গের কারণে প্রধান আসামি তুফান সরকারকে সম্প্রতি বগুড়া কারাগার থেকে গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে স্থানান্তর করা হয়েছে। অপর ৯ আসামি বগুড়া কারাগারে রয়েছে। মামলার ভিকটিম মা ও মেয়ে বর্তমানে নিরাপত্তার কারণে রাজশাহী ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রয়েছেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বগুড়া সদর থানার ইন্সপেক্টর (অপারেশন) আবুল কালাম আজাদ জানান, মামলার তদন্ত শেষ হয়েছে। আশা করা হচ্ছে আজ সকালে আদালতে দুটি মামলারই চার্জশিট দেওয়া হবে। মামলার ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। ধর্ষণ ও নির্যাতন দুটি মামলাতেই প্রধান আসামি তুফান সরকার। আর তুফান সরকারের স্ত্রী আশা সরকার ও আশার বোন কাউন্সিলর মারজিয়া হাসান রুমকিসহ তাদের সহযোগীরা আসামি হচ্ছেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow