Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শুক্রবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৩৫
অষ্টম কলাম
সাক্ষরতার হার ৭২ দশমিক ৯ শতাংশ
নিজস্ব প্রতিবেদক
bd-pratidin

প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার বলেছেন, বর্তমান সরকারের নিরলস চেষ্টায় দেশে সাক্ষরতার হার ৭২ দশমিক ৯ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। গত বছর এই হার ছিল ৭২ দশমিক ৩ শতাংশ। গতকাল সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই তথ্য তুলে ধরেন। ৮ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উদযাপন উপলক্ষে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। গণশিক্ষামন্ত্রী বলেন, আগে প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক তৃতীয় শ্রেণিতে ছিলেন, এখন দ্বিতীয় শ্রেণি হয়ে গেছেন। প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন বৈষম্যের যৌক্তিক সমাধান হবে। আর কয়েক মাসের মধ্যে নির্বাচন। আমি মনে করি যারা আন্দোলন করছেন তারাও বুঝবেন যে, আওয়ামী লীগ সরকারই শিক্ষার জন্য, সরকারি কর্মচারীদের বেতন ও সম্মান বৃদ্ধি করেছেন। সরকারের ধারাবাহিকতা থাকলেই তাদের আশাটা পূর্ণ হতে পারে। তাই কোনো হঠকারী সিদ্ধান্ত না নিয়ে তাদের অপেক্ষা করা দরকার। তিনি বলেন, উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার কার্যক্রম এক সময় বন্ধ ছিল। বর্তমান সরকার ২০১৪ সালে নিরক্ষরদের সাক্ষরজ্ঞান করতে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা অধিদফতরকে ৪৫২ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়। যতক্ষণ পর্যন্ত একজন নিরক্ষর মানুষ থাকবে ততক্ষণ পর্যন্ত সরকার এটা চালিয়ে যাবে। জাতীয় শিক্ষানীতি অনুযায়ী সরকারের কাছ থেকে সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত পঞ্চম শ্রেণিতে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা চলবে। কারণ প্রাথমিক শিক্ষার স্তর অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত উন্নীত করার কথা থাকলেও এখনো পুরোপুরি বাস্তবায়ন হয়নি। প্রসেস চলছে। আমরা ৭০০ স্কুলে ষষ্ঠ, সপ্তম এবং অষ্টম শ্রেণি খুলেছি। এটার প্রসেস নিয়ে অনেক টানাপড়েন আছে, ক্যাবিনেট পর্যন্ত গেছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা হচ্ছে, শেষ হলে নিশ্চয়ই সেটার বাস্তবায়ন আমরা করব। মন্ত্রী বলেন, ‘সাক্ষরতা অর্জন করি, দক্ষ হয়ে জীবন গড়ি’ স্লোগানে এবার বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস পালন করা হবে। ৮ সেপ্টেম্বর সকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে শিল্পকলা একাডেমি পর্যন্ত র‌্যালি এবং এই একাডেমিতে আলোচনা সভা হবে। এছাড়া জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সাক্ষরতা দিবসের বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হবে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow