Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৩২
উল্টোপথে সার্জেন্টের গাড়ি, ধাক্কায় গুরুতর আহত যুবক
নিজস্ব প্রতিবেদক

সড়কে চালকদের আইন মানতে যারা বাধ্য করেন, সেই ট্রাফিক সার্জেন্টই এবার উল্টোপথে বাইক চালিয়ে সজোরে আঘাত করলেন এক সাইকেল আরোহীকে। রাজধানীসহ সারা দেশের সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে চলমান মাসব্যাপী ট্রাফিক কর্মসূচিতেই ঘটল পুলিশের আইন ভঙ্গের এই ঘটনা। সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে যখন পুলিশ অল আউট অ্যাকশনে, ঠিক তখনই পুলিশের এক সদস্যের এমন কাণ্ডে বিব্রত ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) প্রশাসন। যদিও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা সে বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন। গতকাল রাজধানীর গুলশানের ৮ নম্বর সড়কে পীযূষ নামে এক ট্রাফিক সার্জেন্টের মোটরসাইকেলের ধাক্কায় আবদুর রহমান (১৮) নামে এক বাইসাইকেল আরোহী আহত হয়েছেন। এ সময় সার্জেন্ট পীযূষ উল্টোপথে মোটরসাইকেল চালিয়ে যাচ্ছিলেন বলে জানা যায়। পরে আহত ওই তরুণকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বিষয়টি জানিয়ে গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর সিদ্দিক বলেন, সার্জেন্ট পীযূষ ওই এলাকা দিয়ে মোটরসাইকেল চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এ সময় তিনি বাইসাইকেল আরোহীকে ধাক্কা দেন। এতে ওই আরোহী গুরুতর আহত হন। সার্জেন্ট পীযূষ উল্টোপথে মোটরসাইকেল চালাচ্ছিলেন কি না তা সিসিটিভির ফুটেজে খতিয়ে দেখা হবে। ঢাকা মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (ডিসি-ট্রাফিক উত্তর) প্রবীর কুমার জানান, ওই ঘটনার পরই সার্জেন্ট পীযূষকে সেখান থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

ওই এলাকার সিসিটিভির ফুটেজ পর্যবেক্ষণ করে দেখা হচ্ছে। ওই ফুটেজ অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

রাস্তায় যানজট নিরসনের জন্য ট্রাফিক সার্জেন্ট উল্টোপথে যেতেই পারেন বলেও জানান তিনি। ৪ সেপ্টেম্বর আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, যত দিন সড়কে শৃঙ্খলা ফিরে না আসবে, তত দিন পুলিশ কাজ করে যাবে। বেশির ভাগ মানুষের মধ্যে আইন না মানার প্রবণতা বেশি। তারা অনিয়মকে নিয়ম মনে করে। সবাইকে আইন মানতে উদ্বুদ্ধ করতে সেপ্টেম্বর মাসে রোভার স্কাউট, গার্লস গাইড ও অন্যান্য স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্যরা পুলিশের সঙ্গে জনসচেতনতামূলক কর্মকাণ্ডে অংশ নেবে। ৮ সেপ্টেম্বর আরেকটি অনুষ্ঠানে তিনি অসহায়ত্ব প্রকাশ করে বলেন, প্রভাবশালীদের কারণে রাস্তায় বিশৃঙ্খলাকারীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হয় না। আইন কেউ মানতে চায় না। আইন প্রয়োগ করতে গেলে অনেক চাপ সহ্য করতে হয়। অনেক সময় পেছন থেকে টেনে ধরতে চায়। পথচারীও আইন মানে না। আইন প্রয়োগকারী সংস্থাও আইন মানে না। গত বছর ১৬ আগস্ট ‘শব্দদূষণ ও হাইড্রলিক হর্ন বন্ধে করণীয়’ শীর্ষক এক সংবাদ সম্মেলনে ট্রাফিক আইন ভঙ্গ করে উল্টোপথে গাড়ি নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন তিনি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow