Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শুক্রবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:০৯
দুই দলেই একাধিক মনোনয়নপ্রত্যাশী
আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চান মিশু, বিএনপির মঈন
সঞ্জিত সাহা, নরসিংদী
দুই দলেই একাধিক মনোনয়নপ্রত্যাশী
bd-pratidin

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে সরগরম হয়ে উঠেছে নরসিংদী-২ (পলাশ) আসনের রাজনৈতিক অঙ্গন। মাঠে নেমেছেন মনোনয়নপ্রত্যাশীরা। উপজেলার বাজার-ঘাটসহ গুরুত্ব্বপূর্ণ স্থানে ঝুলছে রংবেরঙের ব্যানার-ফেস্টুন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মেগা প্রকল্পসহ দেশের উন্নয়নের কথা জানাতে মানুষের ঘরে ঘরে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী দৈনিক সংবাদ সম্পাদক আলতামাশ কবির মিশু। ডিজিটাল ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলতে আবারও নৌকা মার্কা তথা শেখ হাসিনাকে বিজয়ী করতে সাধারণ মানুষের কাছে ভোট প্রার্থনা করছেন তিনি। এ আসনে তার পিতা প্রয়াত আহমেদুল কবিরও সংসদ সদস্য ছিলেন। বিশিষ্ট সমাজসেবী আলতামাশ কবির মিশু ভোটারদের মাঝে সরকারের উন্নয়ন জানান দেওয়াসহ সুখে দুঃখে সর্বসাধারণের পাশে দাঁড়াচ্ছেন।

এ আসনে বর্তমান এমপি কামরুল আশ্রাফ খান পোটন ও তার বড় ভাই সাবেক এমপি আনোয়ারুল আশ্রাফ খান দীলিপও আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী। অন্যদিকে, লাঙ্গল প্রতীকে ভোট চেয়ে নির্বাচনী মাঠে নেমেছেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আজম খান ও কেন্দ্রীয় যুগ্ম-যুববিষয়ক সম্পাদক আবু সাঈদ স্বপন। এ আসনে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ ইনু) আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক  জেলা সভাপতি জায়েদুল কবিরও নির্বাচন করতে চান। তবে বিএনপিতে একক প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক মন্ত্রী ড. আবদুল মঈন খান।

একসময় এ আসনটি বিএনপির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত ছিল। ১৯৯১ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত ড. আবদুল মঈন খান জয়ী হয়েছেন। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে ডা. আনোয়ারুল আশ্রাফ খান দীলিপ বিজয়ী হন। এরপর ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে শরিক দল জাসদের নিকট মনোনয়ন হারানোয় স্বতন্ত্র নির্বাচন করে এমপি হন তার ছোট ভাই কামরুল আশ্রাফ খান পোটন। এমপি হয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল ডাঙ্গা এলাকার চিহ্নিত ভূমিদস্যু দেলোয়ার হোসেন ওরফে দেলুকে ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি করে বিতর্ক কুড়িয়েছেন। তার বিরুদ্ধে শীতলক্ষ্যা নদী থেকে অবৈধ বালু উত্তোলন, ভূমি দখল, শিল্পপ্রতিষ্ঠান থেকে চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসের অভিযোগ রয়েছে। হত্যা, চাঁদাবাজিসহ ৩৯টি মামলা রয়েছে তার বিরুদ্ধে। সিরাজ মিয়া নামে এক এলাকাবাসী বলেন, জমিদার বংশের সন্তান আলতামাশ কবির মিশু। জনপ্রতিনিধি না হয়েও তিনি ১৫ বছর যাবৎ এলাকায় জনসেবা করে যাচ্ছেন। উপজেলার দরিদ্র লোকজনকে চিকিৎসাসেবা দিতে তার বাড়িতে ভ্রাম্যমাণ হাসপাতাল খোলা হয়েছে। প্রতি সপ্তাহের শনিবার দুজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক বিনামূল্যে রোগীদের চিকিৎসাসেবা ও ওষুধপথ্য বিতরণ করেন। প্রতি মাসে ১০৭ জন মেধাবী দরিদ্র শিক্ষার্থীর খাতা-কলমসহ শিক্ষা ব্যয় বহন করছেন তিনি। স্থানীয় জাসদ ও বিএনপির একাধিক নেতা-কর্মীর অভিযোগ, সম্প্রীতির রাজনীতি নষ্ট করেছে এমপি পরিবার। অওয়ামী লীগ নেতাদের তোপে পাঁচদোনায় পরিপূর্ণ জনসভা করতে পারেননি তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। অভিযোগ রয়েছে, তার জনসভায় চেয়ার-টেবিল ও মঞ্চের সাজসজ্জার সরঞ্জাম ভাড়া না দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের ভয়ভীতি দেখানো হয়। ফলে জনসভায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন তথ্যমন্ত্রী।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow