Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:২৬
ভোটের আগে কূটনীতিতে বিএনপি
এবার ইইউ ও ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে কথা বলতে যাচ্ছে প্রতিনিধি দল, আছে ভারত যাওয়ার চিন্তাও, জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বৈঠকের ফলোআপ করা হবে
মাহমুদ আজহার
ভোটের আগে কূটনীতিতে বিএনপি

ভোটে যাওয়ার আগে কূটনৈতিক দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছে বিএনপি। অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের নিশ্চয়তা প্রদানের পাশাপাশি দলের প্রধান বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তিও চায় দলটি। এ জন্য ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগকে চাপ প্রয়োগে আন্তর্জাতিক বিশ্বের দ্বারস্থ হচ্ছেন দলীয় নেতারা। বিশেষ করে প্রভাবশালী রাষ্ট্রগুলোর কাছে নিজেদের বক্তব্য তুলে ধরতে চায় বিএনপি। এ ব্যাপারে ঢাকায় কূটনীতিবিদদের সঙ্গে নিয়মিত কথা বলার পাশাপাশি নির্বাচন পর্যন্ত বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার সদর দফতরেও যোগাযোগ রাখবেন দলীয় নেতারা। দলীয় নির্ভরযোগ্য সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। জানা যায়, বিএনপির উচ্চপর্যায়ের আরেকটি প্রতিনিধি দল যাবে ইউরোপীয় ইউনিয়নে। বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে ইইউর শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে তারা বৈঠক করবেন। সেখান থেকে তারা যাবেন লন্ডনে। ব্রিটিশ সরকারের উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিএনপি নেতাদের বৈঠকের কথা রয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে ভারতেও যেতে পারে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেবেন। সবার অংশগ্রহণে নির্বাচনকে সুষ্ঠু করতে বাংলাদেশ সরকারকে চাপ দিতে ইইউ নেতাদের অনুরোধ জানাবে প্রতিনিধি দল।   একই সঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কারাগারে যাওয়ার প্রসঙ্গ নিয়ে কথা বলবেন তারা।

সম্প্রতি জাতিসংঘে যান দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সেখানে তিনি জাতিসংঘের রাজনীতি বিষয়ক সহকারী মহাসচিব মিরোস্লাভ জেনকার সঙ্গে বৈঠক করেন। এরপর ওয়াশিংটনে যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টের কর্মকর্তাদের সঙ্গেও আলোচনা করেন তিনি। আগামী নির্বাচন ও খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টিই ছিল তার আলোচনার বিষয়বস্তু।

জানা যায়, অক্টোবরের শুরুতেই নির্বাচনমুখী আন্দোলনে যাবে বিএনপি। দলের প্রধান বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি, নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠন, সংসদ ভেঙে দেওয়াসহ নানা দাবিতে রাজপথ গরম করবে দলটি। একই সঙ্গে থাকবে নির্বাচন  প্রস্তুতিও। এ কারণে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে আগেভাগেই নিজেদের বক্তব্য তুলে ধরার চেষ্টা করছে দলটি। জাতীয় নির্বাচনে জাতিসংঘের হস্তক্ষেপও চায় বিএনপি। নির্বাচনকে ঘিরে সুষ্ঠু পরিবেশ তৈরি করতে জাতিসংঘের সহায়তা চাওয়া হয়েছে দলের পক্ষ থেকে। একই বিষয়ে স্টেট ডিপার্টমেন্টের কর্মকর্তাদের সঙ্গেও কথা বলেছে বিএনপি। বিএনপির এক নেতা জানান, খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে এখন আর মিলাদ মাহফিলের মতো কর্মসূচি আসবে না। হরতাল-অবরোধ, ঘেরাওয়ের মতো গণতান্ত্রিক কঠোর কর্মসূচিতে যাবে বিএনপি। এ কারণেই অক্টোবর মাসেই জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে চায় দলটি। গত সোমবার রাতে গুলশানে গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের এক নেতার বৈঠক হয়। এ সময় জাতীয় ঐক্যের সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে তাদের মধ্যে কথা হয়।  এ ব্যাপারে দুই নেতা একমতও হন বলে জানা গেছে।  জানা যায়, ভারত সরকারের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধির সঙ্গেও যোগাযোগের চেষ্টা করছে বিএনপি। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু করতে প্রতিবেশী রাষ্ট্র হিসেবে ভারতেরও সহযোগিতা চায় দলটি। জাতিসংঘে আলোচনা করে গত রবিবার দেশে ফিরেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। লন্ডনে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গেও বৈঠক করেন বিএনপি মহাসচিব।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow