Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৫৫
বাকৃবি উত্তপ্ত উপাচার্যকে ঘেরাও
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) ভিসি কার্যালয়ে হট্টগোলের ঘটনায় সাময়িক বহিষ্কার ও শোকজ আদেশ প্রত্যাহারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল, সড়ক অবরোধ করেছেন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। গতকাল তারা বিভিন্ন শাখার মূল ফটকে তালা লাগিয়ে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছেন। উপাচার্যকে ঘেরাও করে দিনভর অবরুদ্ধ করে রাখেন। বেলা সাড়ে ১১টা থেকে উপাচার্য নিজ বাসভবনে অবরুদ্ধ হয়ে থাকেন। সারাদিনই তাকে এ অবস্থায় থাকতে হয়। নিয়মিত ক্লাস-পরীক্ষা হলেও প্রশাসনিক কোনো কাজ হয়নি।  সোমবার পূর্ব অনুমতি ছাড়াই বিভিন্ন দাবি নিয়ে উপাচার্যের কার্যালয়ে ঢুকে কর্মকর্তারা উপাচার্য ও উপ-উপাচার্যের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন। এ ঘটনায় প্রশাসন বুধবার দুজনকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার এবং আরও ছয়জনকে শোকজ করে।  প্রতিবাদে কর্মচারীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ভবনে তালা ঝুলিয়ে দিয়ে বিক্ষোভ করেন। সকালে প্রশাসন ভবনের সামনে জড়ো হয়ে কর্মচারী-কর্মকর্তারা বিক্ষোভ মিছিল বের করে প্রশাসন ভবন, কোষাধ্যক্ষের কার্যালয়, পরিকল্পনা ও উন্নয়ন শাখা, প্রকৌশল ভবনের প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেন।

তারা প্রশাসন ভবনের বিদ্যুৎ সংযোগও বিচ্ছিন্ন করে দেন। একই দাবিতে বুধবার দুপুর থেকে ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টা, প্রক্টর, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, হল প্রভোস্ট ও শিক্ষকদের বহনকারী ছোট ছোট যানবাহনও তারা বন্ধ করে দেন। এরপর গতকাল  বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান সড়ক বন্ধ করে দিয়ে উপাচার্যের বাস ভবনের সামনে অবস্থান নেন।

আন্দোলনরত নেতারা বলেন, জাতীয় বেতন স্কেল বাস্তবায়ন ও পদোন্নয়নের দাবিতে গত বছরের জুন মাস থেকে আন্দোলন করে আসছে অফিসার পরিষদ। কিন্তু দাবি আদায় না হওয়ায় তারা বিভিন্ন কার্যালয়ে তালা লাগায়। অফিসার পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন বলেন, ২জনকে সাময়িক বহিষ্কার ও ৬ জনের শোকজ নিয়মবহির্ভূত। এ আদেশ দ্রুত প্রত্যাহার করা না হলে আগামী রবিবার থেকে কঠোর আন্দোলনে যাওয়া হবে।

ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আলী আকবর বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচলিত আইনে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। যার ফলে আমাকে সকাল থেকে বাসভবনে অবরুদ্ধ করে রাখে। এখন বিভিন্ন মাধ্যমে আলোচনা করে বিষয়টির সুরাহা করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow