Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শনিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৬ নভেম্বর, ২০১৮ ২৩:৩৬
পল্টনে পুলিশের গাড়িতে আগুন
নিপুণ রায়সহ ৭ জন রিমান্ডে
নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নিপুণ রায় চৌধুরীসহ ৭ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিন করে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। গতকাল দুপুরে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক কামরুল ইসলাম আসামিদের ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে হাজির করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম সত্যব্রত শিকদার এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

৫ দিন করে রিমান্ডপ্রাপ্ত অন্যরা হলেন— ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসম্পাদক আরিফা সুলতানা রুমা, খিলক্ষেত থানা বিএনপির সভাপতি ইউসুফ  মৃধা, কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলা যুবদল নেতা আবুল হাশিম সবুজ, বরগুনার তালতলী উপজেলার বিএনপি নেতা আমির হোসেন এবং বিএনপি কর্মী মহসিন ও মামুনুর রশিদ খোকন। পুলিশ বলছে, পল্টন থানার একটি মামলায় তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর রায়ের পুত্রবধূ এবং সাবেক প্রতিমন্ত্রী নিতাই রায় চৌধুরীর মেয়ে নিপুণ। বুধবারের সংঘর্ষের ঘটনায় গণমাধ্যমে আসা ছবিতে নিপুণকে লাঠি হাতে মিছিলে দেখা যায়। বৃহস্পতিবার নাইটিঙ্গেল মোড় থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। নিপুণের বাবা আইনজীবী নিতাই রায় চৌধুরী বলেন, আমার মক্কেলরা কোনোভাবেই ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের সঙ্গে জড়িত নয়। সরকার নিজেরা এসব করে তাদের ঘাড়ে দায় চাপিয়ে দিয়েছে। বিএনপি নেতা-কর্মীদের পক্ষে নিতাই রায় চৌধুরী, সানাউল্লাহ মিয়াসহ প্রায় ৩০ জন আইনজীবী আদালতে উপস্থিত ছিলেন। নির্বাচন সামনে রেখে মনোনয়ন ফরম বিক্রির কার্যক্রমের মধ্যে বুধবার দুপুরে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশের সঙ্গে দলটির নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষ হয়। এ সময় গাড়ি ভাঙচুর, দুটি গাড়ি পোড়ানো ও পুলিশের ওপর আক্রমণ করা হয়। হেলমেট পরা কয়েকজনকে ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগে অংশ নিতে দেখা যায়। পুলিশ বলছে, তারা সবাই বিএনপির কর্মী। সংঘর্ষের ওই ঘটনায় পল্টন থানা পুলিশের পক্ষ থেকে তিনটি মামলা হয়। এ তিন মামলায় বৃহস্পতিবার বিএনপির ৬৫ জন নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করে রিমান্ড চেয়ে আদালতে হাজির করা হয়। পরে বিচারক ৩৮ জনকে রিমান্ডে এবং ২৭ জনকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দেন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

এই পাতার আরো খবর
up-arrow