Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শনিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৬ নভেম্বর, ২০১৮ ২৩:৩৭
বাজার ভরে গেছে শীতের সবজিতে, নতুন আলুর দাম ১০০ টাকা
নিজস্ব প্রতিবেদক

শীতের সবজিতে ভরে উঠছে বাজার। নতুন আলু, শিম, ফুলকপি, বাঁধাকপি, মুলা, টমেটো, গাজর এখন সব দোকানেই মিলছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, এখন সারা বছরই প্রায় সব ধরনের সবজি পাওয়া গেলেও ক্রেতাদের কাছে শীতকালীন সবজির গুরুত্ব ও চাহিদা আলাদা। আর বাজারে শীতের সবজির সরবরাহ থাকায় ক্রেতারাও চাহিদা মতো কিনতে পারছেন। দামও হাতের নাগালে। তবে কমেনি নতুন আলুর দাম। এখনো প্রতি কেজি নতুন আলু বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা করে।

গতকাল রাজধানীর সেগুনবাগিচা কাঁচাবাজার ঘুরে দেখা যায়, শীতকালীন সবজিতে বাজার ভরে গেছে। প্রায় সব ধরনের সবজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা দাম  কমেছে। ফুলকপি ২৫ টাকা, বাঁধাকপি ৩০ টাকা, লাউ আকার অনুযায়ী বিভিন্ন দামে বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহ থেকে ১০ টাকা কমে প্রতি কেজি শিম বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকায়। ওলকপির কেজিতেও কমেছে ১০ টাকা করে। গত সপ্তাহে ওলকপি বিক্রি হয়েছে ৬০ টাকা করে, গতকাল ছিল ৫০ টাকা। টমেটো বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকা প্রতি কেজি। জাতভেদে প্রতি কেজি বেগুনের দাম ২০ থেকে ৫০ টাকা। এ ছাড়া পটল ৩০ টাকা, করলা ৫০ টাকা, কচুরমুখী ৩০ টাকা, কাঁচাকলা বিক্রি হচ্ছে হালি প্রতি ২০ টাকায়। সবজির দাম কিছুটা কমায় খুশি ক্রেতারা। গৃহিণী মমতাজ বেগম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, গত কয়েকদিনের তুলনায় দাম কমেছে। এবার বাজারে দেরিতে সবজি আসায় দামও কমছে দেরিতে। তবে কিছুদিন পরে আরও কমবে। আর বিক্রেতারা জানিয়েছেন, শুরুর দিকে দাম কিছুটা বাড়তি হলেও এখন সবজির সরবরাহ বেশি হওয়ায় দামও কমতে শুরু করেছে। শীত যত বাড়বে সরবরাহ আরও বাড়বে, তখন দামও তত কমবে। স্বাভাবিক রয়েছে চাল, ডাল, ভোজ্যতেল, চিনি এবং আটার মতো ভোগ্যপণ্যের দাম। নাজিরশাইল (উৎস) ৬৫ টাকা, নাজিরশাইল ৬০ টাকা, মিনিকেট ৫৫, স্বর্ণা ৪২, বি-২৮, বি-২৯ এবং বি-৪৫ বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা করে। ৫ টাকা কমে কাটারিভোগ বিক্রি হচ্ছে ৯৫ টাকা করে। চিনিগুঁড়া ৯০ টাকা (খোলা) ১০০ টাকা (প্যাকেট)। মদিনা রাইস এজেন্সির স্বত্বাধীকারী মো. আলম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, বাজারে নতুন চাল এলেই খুচরা বাজারেও দাম কমবে। কারণ এই সময়ে অন্যান্যবার মোটা চালের দাম সাধারণত একটু কম থাকে। এবার কমেনি। অন্যদিকে স্থিতিশীল রয়েছে মুরগির দাম। ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকা কেজি, দেশি ২৪০ থেকে ৩০০ টাকা। এ ছাড়া ডাল (দেশি) ৯০ টাকা, ভারতীয়টা ৬০ টাকা, পিয়াজ ৫০ টাকা, রসুন ৮০ টাকা, আদা ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow