Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বুধবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০৩:০৫
খোঁজ নেই সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী মোশাররফের
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

খোঁজ নেই সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও ময়মনসিংহ (দক্ষিণ) জেলা বিএনপির সভাপতি একেএম মোশাররফ হোসেনের। গত এক সপ্তাহ ধরেই তার ছোট ভাই তাকে জনবিচ্ছিন্ন করে রেখেছেন বলে অভিযোগ দলীয় নেতা-কর্মীদের। মুঠোফোনেও পাওয়া যাচ্ছে না তাকে। এদিকে ঢাকায় আজ ময়মনসিংহ অঞ্চলের বিএনপি মনোনয়ন বোর্ডের সভা রয়েছে। সেই সভায় তার উপস্থিত থাকা নিয়েও সংশয় রয়েছে। দলীয় নেতা-কর্মীদের।

মোশাররফ অনুসারীদের অভিযোগ, তারই ছোট ভাই (সৎ ভাই) মুক্তাগাছা উপজেলা বিএনপির সভাপতি জাকির হোসেন বাবলু তাকে গৃহবন্দী করে রেখেছেন। কারও সঙ্গেই যোগাযোগ করতে দেওয়া হচ্ছে না। মুক্তাগাছায় বিএনপি   মনোনয়ন ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতির পদ নিয়ে দীর্ঘ সময় ধরে চলা দ্বন্দ্বের কারণেই এখন তাকে লোকচক্ষুর অন্তরালে রাখা হয়েছে। জানা যায়, গত ১৩ নভেম্বর থেকে মোশাররফ হোসেনকে ময়মনসিংহ, মুক্তাগাছা ও ঢাকার কোথাও দেখা মিলছে না। তার ব্যবহৃত মুঠোফোনের তিনটি নম্বরে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও পাওয়া যায়নি। জানতে চাইলে দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু ওয়াহাব আকন্দ বলেন, ‘আমিও যোগাযোগ করার চেষ্টা করে পাইনি সভাপতিকে। নির্বাচনের আগ মুহূর্তে তাকে না পাওয়ায় আমরা সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছি।’ মুক্তাগাছা উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাকারিয়া হারুন বলেন, ‘গত ছয় মাস ধরে শুধু মুঠোফোনেই যোগাযোগ হতো। তবে গত এক সপ্তাহ সেটিও পারছি না।’ তিনি বলেন, কৌশলে মোশাররফ হোসেনের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ এবং জমা দেওয়া হয়েছে। এখন মনোনয়ন বোর্ডে তিনি যেন উপস্থিত না হতে পারেন সেই পাঁয়তারা করছে প্রতিপক্ষরা। তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে জাকির হোসেন বাবলু বলেন, আমার বড় ভাই মোশাররফ হোসেন তার ছেলে রানার সঙ্গে ঢাকায় থাকেন। গৃহবন্দী করে রাখার প্রশ্নই ওঠে না। এদিকে মোশাররফ হোসেনের ছেলে জুবায়ের হোসেন রানার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমরা পারিবারিকভাবেই চাচ্ছি চাচা নির্বাচন করুক।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow