Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৬ জানুয়ারি, ২০১৯ ২২:৫৮
২৪ ঘণ্টার মধ্যে বাইক উদ্ধার
‘পুলিশ চেষ্টা করলে সব পারে’
নিজস্ব প্রতিবেদক
‘পুলিশ চেষ্টা করলে সব পারে’

খোয়া যাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই নারী বাইকার শাহনাজ আক্তারের মোটরসাইকেল (স্কুটি) উদ্ধার ও প্রতারণার অভিযোগে জোবায়দুল ইসলাম জনিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার বিকালে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউ থেকে এই নারীর জীবিকার মাধ্যম স্কুটিটি প্রতারণা করে হাতিয়ে নিয়েছিলেন জোবায়দুল ইসলাম জনি (২৭) নামে এক যুবক। রাতেই তা উদ্ধার করে আনে পুলিশ। খোয়া যাওয়া স্কুটি ফিরে পেয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শাহনাজ আক্তার পুতুল বলেছেন, আমি অনেক খুশি। এ জন্য সাংবাদিক ও পুলিশকে ধন্যবাদ জানাই। পুলিশ যে এত কম সময়ে বাইকটা উদ্ধার করবে, সেটা আমার ভাবনার বাইরে ছিল। আজ আবারও মনে হচ্ছে, পুলিশ চেষ্টা করলে সব পারে। গতকাল দুপুরে ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের কার্যালয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

শাহনাজ আরও বলেন, ঋণ করে স্কুটিটি কিনেছিলাম। এটি চালিয়েই চলত সংসার। মঙ্গলবার সেই সম্বলটিও চুরি হওয়ায় বেশ ভেঙে পড়েছিলাম। ভেবেছিলাম জীবনযুদ্ধে হয়তো হেরে যেতে হবে। স্বজনরা বলেছিল, ওটার আশা করো না। পুলিশ ওই বাইক উদ্ধারের আগেই চোর বিক্রি করে খেয়ে ফেলবে। উল্লেখ্য, ভাড়া ভিত্তিক অনলাইন মোটরবাইক রাইড উবারে স্কুটি চালাতেন শাহনাজ।

উদ্ধার হওয়া বাইকটি হস্তান্তরের পাশাপাশি তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) বিপ্লব কুমার সরকার আর্থিক সহায়তা হিসাবে ১০ হাজার টাকা শাহনাজের হাতে তুলে দেন। এ সময় ডিসি বলেন, প্রতারণার মাধ্যমে শাহনাজকে ফাঁদে ফেলে স্কুটিটি চুরি করা হয়। শাহনাজের বাসা মিরপুর-১১ নম্বর সেকশনে। উবারে স্কুটি চালাতে গিয়ে জনির সঙ্গে তার পরিচয় হয়। জনি তার স্কুটিতে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে ঘোরাফেরা করেন। একপর্যায়ে শাহনাজকে স্থায়ী চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে ফাঁদে ফেলেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী মঙ্গলবার শাহনাজের স্কুটিতে এয়ারপোর্ট ও তালতলাসহ বিভিন্ন জায়গায় ফোরাফেরা করে জনি। বিকাল ৩টার দিকে মানিকমিয়া এভিনিউয়ের ফুটপাথে দুজনে চা পান করেন। এক ফাঁকে কীভাবে স্কুটি চালাতে হয় তা জানতে চায় জনি। শাহনাজ তাকে কীভাবে চালাতে হয় তা জনিকে বলেন। এরপর জনি স্কুটি চালাতে চাইলে শাহনাজ সরল বিশ্বাসে তাকে চাবি দেন। এরপর জনি স্কুটিটি নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে তিনি শেরেবাংলা নগর থানায় অভিযোগ করেন। ওই দিন রাতেই নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার রঘুনাথপুর থেকে জনিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। জনির বাড়ি বরিশালের মুলাদী থানার চরলক্ষ্মীপুরে। জনিকে দুই দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। সংগ্রামী নারী শাহনাজ সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন। রাজধানীর মিরপুরেই তার জন্ম। বাবা নেই, মা আর বোনেরা আছেন। স্বামী থাকলেও তিনি আলাদা থাকেন। তার সঙ্গে তার দুই মেয়েও থাকে। বড় মেয়ে নবম ও ছোট মেয়ে প্রথম শ্রেণিতে পড়ে।

up-arrow