Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২৩:২০

মাদকে ছারখার পরিবার

মির্জা মেহেদী তমাল

মাদকে ছারখার পরিবার

বাবা ছিলেন সরকারি কর্মকর্তা। বড় ছেলেকে চিকিৎসক বানানোর স্বপ্ন ছিল তাঁর। তাই রাজধানীর জজকোর্ট এলাকার ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজে ভর্তি করিয়ে দেন ছেলেকে। মেধাবী ছেলেটিও বাবার স্বপ পূরণের পথেই হাঁটছিল। হঠাৎ সেই ‘মাদকঝড়ে’ সম্ভাবনার সব পথ হারিয়ে ফেলে সে। এমবিবিএসের চূড়ান্ত পরীক্ষা দেওয়া হয়নি ছেলেটির। হয়নি ডাক্তার হওয়া। এরপর তার গৃহবন্দী জীবন। সোনার চামচ মুখে নিয়ে জন্ম হয়েছিল তার। না চাইতেই মা-বাবা সবই দিয়েছেন তাকে। এখন ১০০-২০০ টাকার জন্য এর-ওর কাছে হাত পাততে হয় ছেলেটিকে। রাজধানীর মোহাম্মদপুরে আছে বাবার পাঁচতলা বাড়ি। মা, ছোট ভাই পেয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব। ছোট ভাই লেখাপড়া করছে সেখানেই। ‘অস্বাভাবিক’ জীবন থেকে ফেরাতে বড় ছেলেকে বিয়ে দিয়েছেন মা-বাবা। স্ত্রী চাকরি করতেন একটি বেসরকারি ব্যাংকে। ঘর আলো করে আসে নাতিও। তবে শান্তি ফেরেনি সাবেক সরকারি কর্মকর্তার বাড়িতে। স্ত্রী-সন্তান আমেরিকায় থাকলেও বড় ছেলেটার চিন্তায় বিদেশে পাড়ি জমানোর ‘সাহস’ পান না তিনি। তাঁর ৩৬ বছরের ছেলেটি এখন মাত্র ১০০-২০০ টাকার জন্য ঘরের লাখ টাকার আসবাবপত্র ভাঙে। স্ত্রী-সন্তানের ওপর চড়াও হয় হিংস্রপশুর মতো। সন্তান ও সংসার সামলাতে স্ত্রী চাকরি ছেড়েছেন। বাবার চেষ্টায় কোনোমতে টিকে আছে সেই সংসার। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সর্বনাশা মাদক ইয়াবার জালে বিপন্ন হয়েছে সাবেক সরকারি কর্মকর্তার এই ছেলেটির জীবন। মাদকাসক্ত হওয়ার ঘটনা বর্ণনা করতে গিয়ে নিচু গলায় বলেন, ‘ভাই পত্রিকায় নামটা দিয়েন না। আমার জীবনটারে তো নষ্ট করে ফেলছি। তবে আমার মা-বাবা, ছোট ভাই, তাদের সম্মান আছে।’ তাঁর কণ্ঠে হতাশা, ‘আমি ভালো হতে চাই; কিন্তু পারি না।’ তার ভাষ্যমতে, রাজধানীর গুলশানে এক বন্ধুর জন্মদিনের পার্টিতে কৌতূহলবশে মদ ও ইয়াবা সেবন করেন। সেই থেকে আর ছাড়তে পারেননি। বাবার পকেট থেকে টাকা চুরি করে, মায়ের ব্যাগ হাতিয়ে, মহল্লার বড় ভাই, বন্ধুর কাছে ধার করে ছুটে যান ইয়াবার আসরে। মোহাম্মদপুরের বাসায় গেলে ছেলের অবস্থা বর্ণনা করে কান্নায় ভেঙে পড়েন সাবেক সরকারি কর্মকর্তা। বলেন, ‘কেন এমন হলো জানি না। কত স্বপ্ন ছিল ছেলেটাকে নিয়ে! ওর জন্য শান্তিতে হয়তো মরতেও পারব না।’

ফেনসিডিলে আসক্ত আরেক মেধাবী যুবকের জীবনের কাহিনী আরও করুণ। তার বাবা বেঁচে নেই। মা-বাবার একমাত্র ছেলে তিনি। রাজধানীর তেজগাঁওয়ের কুনিপাড়ায় পাঁচতলা বাড়িতে বসবাস। সেই বাড়িতে আছেন মা, ছোট বোন আর স্ত্রী। বাংলামোটর ও বারিধারায় আরও দুটি বাড়ি আছে তাদের। বেশকিছু জমিও রেখে গেছেন বাবা। এসব কিছুর খোঁজখবর নেই ছেলেটির। মালয়েশিয়া থেকে বিবিএ শেষ করে দেশে ফিরে তিনি এখন ফেনসিডিলের নেশায় বুঁদ। নাম-ঠিকানা না প্রকাশের শর্তে এই যুবক বর্ণনা করেছেন তার ঘটনা।

রাজধানীর বাংলা স্কুল থেকে স্টার মার্কসসহ এসএসসি প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন, এরপর উচ্চশিক্ষার জন্য পাড়ি জমান মালয়েশিয়ায়। সেখানে উচ্চ মাধ্যমিকে গ্রেড ওয়ানে উত্তীর্ণ হওয়ার পর ইসলামিক ইউনিভার্সিটিতে বিবিএতে ভর্তি হন। এ গ্রেডে পাস করার পর এমবিএতে পড়া হয়নি তার। এরই মধ্যে বাবা মারা যান। মায়ের অনুরোধে দেশে ফিরে বাবার জমির ব্যবসা ও সম্পত্তির দেখভালে মনোযোগ দেন তিনি। এক চাচাতো ভাই ও কয়েকজন বন্ধুর পাল্লায় পড়ে ফেনসিডিলের বোতলে প্রথম চুমুক দেন। আর ফিরতে পারেননি। তিনি বলেন, ‘হাতে বাবার অনেক টাকা। নিজেকে ধরে রাখতে পারিনি। ভুল করছি, তা-ও বুঝিনি। যখন বুঝলাম সবর্নাশ হয়ে যাচ্ছে, তখন আর ফিরতে পারছি না।’ ৩৪ বছরের এই যুবক কেঁদে বলেন, ‘আমি আমার বাবার অথর্ব সন্তান। আমাদের জমিজমা কোথায় আছে, তা-ও আমি ঠিকমতো জানি না। সারা দিন মা আমার জন্য কাঁদেন। অনেক সম্পত্তি এখন অন্যের দখলে। এত টাকা ছিল, আর এখন সংসার চালানোই দায়।’ এই ছেলেটিকেও ফেরানোর চেষ্টা করে চলেছেন তার অসহায় মা। ২০১৪ সালে বিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু স্ত্রীর কাছে মাদকাসক্তি ধরা পড়ার পর বিপর্যস্ত তার দাম্পত্য জীবন। আইন বিষয়ে লেখাপড়া শেষ করা স্ত্রী স্বাভাবিক সম্পর্কের জন্য নেশা ছাড়ার শর্ত দিয়েছেন তাকে। সন্তানের মুখ দেখতে হলেও মানতে হবে এই শর্ত। ছেলেটির মা কেঁদে বলেন, ‘স্বামীর মৃত্যুর পর ছেলেটার মুখের দিকে তাকিয়ে বেঁচে আছি। এখন মনে হচ্ছে, আমার সব শেষ। আমি ছোট মেয়েটাকে নিয়ে অথৈ সমুদ্রে ভাসছি। ছেলেটা তার বাবার কিছুই ধরে রাখতে পারবে না।’ শুধু এই দুই যুবকের ঘটনা নয়, আছে অসংখ্য উদাহরণ। দেশের লাখ লাখ পরিবারে চলছে মাদকের দহন। ছাত্রছাত্রী, ব্যবসায়ী, চাকরিজীবী, শিক্ষক, চিকিৎসক, শ্রমজীবীসহ সব শ্রেণির মানুষই মাদকের নীল বিষে আক্রান্ত। ভেঙে যাচ্ছে সম্পর্কের বন্ধন। মাদকের ছোবল শুধু কারও একটি জীবন বিষাক্ত করছে না, গ্রাস করছে একেকটি পরিবার। একটি সন্তান, একটি মানুষ মাদকাসক্ত হলে বিপন্ন হয়ে পড়ছে পুরো পরিবার। মাদকের নেশায় বেপরোয়া হয়ে ওঠে সন্তান। সুশৃঙ্খল, সুন্দর জীবনকে পেছনে ফেলে ক্রমেই হারিয়ে যায় অন্ধকারে। নেশার টাকার জন্য পরিবারে সৃষ্টি করে চরম অশান্তি। অনেক সময় মাদকাসক্ত সঙ্গীদের প্ররোচণায় অপরাধ জগতেও পা বাড়ায়। হারিয়ে যায় মা-বাবার চোখের ঘুম। অবস্থা এমন হয় যে একেকটি পরিবারে তৈরি হয় বিচ্ছেদের দেয়াল। মা-বাবার আদরের সন্তান হয়ে যায় সবার চোখের বালি। স্বজনরাও নিরাপদ থাকে না মাদকাসক্তদের কাছে। আদরের কোমল মুখে ভেসে ওঠে খুনির মূর্তি। ভাইকে খুন করতে হাত কাঁপে না ভাইয়ের। বোনও নিরাপদ নয় মাদকাসক্ত ভাইয়ের কাছে। স্বামীর হাত রঞ্জিত হয় স্ত্রীর রক্তে। এমনকি পৃথিবীর সবচেয়ে নিরাপদ আশ্রয় মা-বাবারও মৃত্যুদূত হয়ে ওঠে তাদেরই নারীছেঁড়া ধন। কারণ, সে মাদকাসক্ত। জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিউটিউটের সহকারী অধ্যাপক এবং সমাজ ও অপরাধ বিশ্লেষক তৌহিদুল হক বলেন, আমাদের দেশে এখন বিভ্রান্তিকর সামাজিক পরিস্থিতি বিদ্যমান। তরুণ প্রজন্ম দুই ধারার মধ্যে পড়ে দিশাহারা অবস্থায় আছে। একদিকে আমাদের দেশীয় সংস্কৃতি, ধর্মীয় অনুশাসন আরেক দিকে ইন্টারনেট বা অন্যান্য আকাশ সংস্কৃতির আওতায় উচ্চমাত্রায় উন্মুক্ত উন্মাদনা। একটার সঙ্গে আরেকটা একেবারেই বিপরীত। এমন টানাপড়েনের কবলে দিশেহারা প্রজন্ম ঝুঁকে পড়ছে সুখবাদের দিকে। পারিবারিক মূল্যবোধ, আদর্শ, শিক্ষা-দীক্ষা সব কিছুই তুচ্ছ হয়ে উঠছে। আবার আগের মতো উপযুক্ত পারিবারিক বন্ধন, মায়া-মমতা-ভালোবাসাও টুটে যাচ্ছে সহজেই। অভিভাবকরা নিজেরাও অতিমাত্রায় ভোগবাদী ও প্রতিযোগী হয়ে উঠছেন। ফলে মা-বাবাদের কাছে এখন সন্তানদের জন্য প্রয়োজনীয় সময় দেওয়া, দেখভাল করার গুরুত্ব কমে গেছে। এর ফাঁক গলেই সর্বনাশা মাদক ঢুকে পড়ছে নতুন প্রজন্মের অস্তিত্বে।


আপনার মন্তব্য