Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৬ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ মার্চ, ২০১৯ ২২:৩৮

মেইড ইন জিঞ্জিরা বিপ্লব

ক্ষুদ্র ও হালকা শিল্পে আকাশছোঁয়া স্বপ্ন

সাঈদুর রহমান রিমন

মেইড ইন জিঞ্জিরা বিপ্লব

রাজধানী ঘেঁষে কেরানীগঞ্জের জিঞ্জিরা এলাকা। এখানে গড়ে উঠেছে ছোট-বড় দুই হাজার কারখানা। দুই হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ। ফ্লাস্ক থেকে শুরু করে গাড়ি কিংবা বিশ্বখ্যাত আইফোনের নকলও তৈরি হয় এখানে। অক্ষরজ্ঞানহীন বা স্বল্পশিক্ষিত তরুণ-যুবকেরাই মূলত ওই শিল্পের কারিগর। চীন দেখে যারা বিস্মিত হন, তারা কেরানীগঞ্জে গেলে দেখতে পাবেন প্রতিভাবান কর্মীদের তাক লাগানো যত আবিষ্কার। পৃথিবীর যে কোনো পণ্য বা যন্ত্রাংশ একবার দেখলেই ওরা হুবহু বানিয়ে দিতে পারেন। গুণে-মানেও বিদেশি পণ্যকে হার মানায় তা। একটু সহযোগিতা আর পৃষ্ঠপোষকতা পেলে এই জিঞ্জিরা হয়ে উঠতে পারে বাংলাদেশের চীন-জাপান, যা বদলে দিতে পারে দেশের অর্থনীতি।

জিঞ্জিরার হালকা প্রকৌশল শিল্পের মাধ্যমেই পূরণ হতে পারে দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির আকাশছোঁয়া স্বপ্ন। এখানে উৎপাদিত অনেক পণ্যই দেশের চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি এখন বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা দূরে থাক, উল্টো ‘নকলবাজ’ দুর্নামের সিলমোহর জোটে এই ‘ইঞ্জিনিয়ারদের’ কপালে। বাংলাদেশ ইঞ্জিনিয়ারিং শিল্প মালিক সমিতি (বাইশিমাস) সূত্রে জানা যায়, তিন হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগের হালকা প্রকৌশল শিল্পে বছরে টার্নওভার প্রায় ৪০ হাজার কোটি টাকা। এর সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে ছয় লক্ষাধিক কর্মীসহ পরোক্ষভাবে  জড়িয়ে আছে ৬০ লাখ লোকের ভাগ্য। জিঞ্জিরার আগানগর, বাঁশপট্টি, থানাঘাট, ফেরিঘাট এলাকার বাসাবাড়িতে গোপনে গড়ে উঠেছে ছোট ছোট কারখানা, যেখানে ফ্লাস্ক, ওয়াটার হিটার, শ্যাম্পু, সাবান, আফটার শেভ লোশন, ত্বকে ব্যবহারের নানা রকম ক্রিমসহ বিদেশি জনপ্রিয় ব্র্যান্ডের হুবহু পণ্য তৈরি হয়। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, কিছুদিন আগেও চীন, জাপান, কোরিয়াসহ বিভিন্ন দেশের যন্ত্রাংশের একচেটিয়া দখল ছিল বাংলাদেশের বাজার। অল্প দিনের মধ্যেই জিঞ্জিরায় তৈরি যন্ত্রাংশ সেই স্থান পূরণ করে চলেছে। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই সরকারি অনুমোদন না পাওয়ায় নিজেদের তৈরি মূল্যবান সব যন্ত্র-সরঞ্জামের গায়েও মেইড ইন চীন, জাপান, কোরিয়াসহ বিভিন্ন দেশের নামে সিলমোহর মেরে তা বাজারজাতে বাধ্য হন তারা। জিঞ্জিরা শিল্প নিয়ে কথা হয় বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সহায়তা কেন্দ্রের (বিটাক) পরিচালক ড. ইহসানুল করিমের সঙ্গে। তিনি বলেন, জাপান, চীন, তাইওয়ান, দক্ষিণ কোরিয়ার মতো শিল্পোন্নত সব দেশই শুরুতে হালকা প্রকৌশল খাতে সমৃদ্ধি অর্জন করেছে। এ শিল্পকে এগিয়ে নিতে প্রতিবেশী ভারত ও পাকিস্তানে টাইম বাউন্ড ভিশন ডকুমেন্ট পর্যন্ত প্রণয়ন করা হয়েছে। ড. ইহসানুল করিম বলেন, হালকা প্রকৌশল শিল্পকে এগিয়ে নিতে সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিলে মাত্র পাঁচ বছরের মধ্যেই ৫০ লাখ তরুণের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে। জিঞ্জিরা শিল্প মালিক সমিতির সভাপতি আকতার জেলানী খোকন বলেন, বাংলাদেশে সমন্বিত উদ্যোগ না নেওয়ায় ‘নকলবাজ’ দুর্নামের সিলমোহরেই আটকে আছে জিঞ্জিরা শিল্পের আকাশছোঁয়া সম্ভাবনা। কী না হয় জিঞ্জিরায়! : জিঞ্জিরায় তিনটি পৃথক এলাকায় তৈরি করা পণ্যের নামানুসারে তিনটি স্থান আছে, যেখানে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন কারখানা। তাওয়াপট্টিতে আছে ছোট-বড় প্রায় ৭০০ হালকা শিল্প-কারখানা। আর এখানে মূলত তৈরি হয় গ্রিল, তালা, ছাতার জালা, কবজা, পাওয়ার প্রেস, ক্লাম, শিট, প্লেঞ্জার, কয়েল, ওয়াশার, নাট-বল্টু, স্ক্রু, তারকাঁটা, তোপকাঁটা, বালতি, অ্যালুমিনিয়ামের হাঁড়ি-পাতিল, কড়াই ইত্যাদি। টিনপট্টিতে তৈরি হয় টিন, শিট, কয়েল। এখানে ১৫-২০টি কারখানা আছে। তবে এর বাইরেও কয়েকটি প্রতিষ্ঠান বিদেশ থেকে আমদানি করা সেকেন্ডারি শিট মজুদ এবং গোপনে ঢেউটিন তৈরির কাজ করে। এ প্রতিষ্ঠানগুলোতে করোগেশন মেশিনে দিন-রাত আমদানি করা জিপি শিট কেটে ঢেউটিন তৈরি করে বাজারে বিক্রি করা হচ্ছে। বিদেশি ব্র্যান্ডের মধ্যে পেনটিন প্রো-ভি, হেড অ্যান্ড শোল্ডারস, গার্নিয়ার, রিজয়েস, ডাভ, সানসিল্ক, অলক্লিয়ার শ্যাম্পু, ডাভ সাবান, জনসন বেবি লোশন, সাবান, ইম্পেরিয়াল লেদার, নিভিয়া ইত্যাদিও তৈরি হচ্ছে বলে জানা গেছে। জিঞ্জিরায় ফ্লাস্ক থেকে মোবাইল ফোন পর্যন্ত সবকিছুই তৈরি হচ্ছে নিয়মিত। জিঞ্জিরার ইঞ্জিনিয়ারদের মূল্যায়ন করলে বাংলাদেশও বিশ্বের অনন্য শিল্পোন্নত দেশে পরিণত ও পরিচালিত হতে পারে। শুধু তা-ই নয়, এখানকার ইঞ্জিনিয়াররা ফটাফট তৈরি করছেন নকল মোবাইল ফোন সেট। আর বসিয়ে দেওয়া হচ্ছে চীনের নামি-দামি কোম্পানির সিলমোহর। মোবাইল ফোনের ক্ষেত্রে আইফোন, ম্যাক্সিমাস কোম্পানির নামাঙ্কিত ফোনগুলোই বেশি তৈরি হচ্ছে এখানে। মোবাইল ফোনের ক্যাসিং, ব্যাটারি, চার্জারসহ নানা পার্টস তৈরি করেন তারা। জিঞ্জিরার ইঞ্জিনিয়ারদের উদ্ভাবনী ক্ষমতাকে ‘অলৌকিক’ বলেও মনে করেন অনেকে। এখানে একটা ফ্লাস্কের বডি বানাতে ১০ থেকে ১২ টাকা খরচ পড়ে। আর রিফিল বাইরে থেকে আনতে খরচ পড়ে ৭০ টাকার মতো। সব মিলিয়ে ৯০ টাকার ভিতরই একটা ফ্লাস্ক প্রস্তুত হয়ে যায়। সীমাহীন অবজ্ঞায় আকাশছোঁয়া সম্ভাবনা : ‘জিঞ্জিরা বিপ্লব’ বাংলাদেশকে ক্ষুদ্র যন্ত্রাংশ তৈরিতে সক্ষমতা এনে দিয়েছে। এর নায়কদের পুঁথিগত জ্ঞানের অভাব থাকলেও কারিগরি জ্ঞানের অভাব নেই। কোটি কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হচ্ছে এসব কারিগরের কৃতিত্বে। তাদের সাফল্য এতটাই যে, এখন চীন, ভারতের মতো শিল্পোন্নত দেশগুলোর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাংলাদেশি যন্ত্রপাতি বিদেশে রপ্তানি হচ্ছে। রাজধানীর বুড়িগঙ্গা নদীর তীরঘেঁষা জিঞ্জিরা-শুভাঢ্যা থেকে শুরু করে কেরানীগঞ্জের বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে গড়ে উঠেছে হাজারও কারখানা। সব সময় ইঞ্জিনের ‘ধস, ধস’ ‘গড়, গড়’ শব্দ, কারিগরের হাঁকাহাঁকি, শ্রমিকদের কোলাহল রাত-দিনের ব্যবধান ঘুচিয়ে দিয়েছে। ছয় লক্ষাধিক কারিগর ও শ্রমিকের উদয়াস্ত পরিশ্রমে সুই, ব্লেড, আলপিন থেকে শুরু করে নাট-বল্টু, রেল-বিমানের যন্ত্রাংশ, ফ্লাস্ক, মোবাইল ফোন সেট, সমুদ্রগামী জাহাজের যন্ত্রাংশ পর্যন্ত তৈরি হচ্ছে এখানে। এখানকার কারিগরদের দক্ষতা অবাক করে দেওয়ার মতো। বছরের পর বছর গবেষণার পর জাপান, কোরিয়া, চীন যেসব সামগ্রী আজ উৎপাদন ও বাজারজাত করছে, সেসব জিনিস হাতে পাওয়ার পরদিনই তৈরি করে ফেলছেন জিঞ্জিরার কারিগররা। শিল্প খাতের অভিজ্ঞজনরা জানিয়েছেন, জাপান, চীন, তাইওয়ান, দক্ষিণ কোরিয়ার মতো শিল্পোন্নত সব দেশই শুরুতে হালকা প্রকৌশল খাতে সমৃদ্ধি অর্জন করেছে। অথচ বাংলাদেশে সরকারিভাবে কোনো রকম সমন্বিত উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। আর এতে জিঞ্জিরা শিল্পের আকাশছোঁয়া সম্ভাবনাও মাটিচাপা পড়েছে। শিল্প মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, হালকা ও ক্ষুদ্র শিল্প বিকাশের লক্ষ্যে ১৯৮৬ সালে জিঞ্জিরা প্রকল্প গ্রহণ করে সরকার। ওই প্রকল্পের আওতায় রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের মাধ্যমে জামানতবিহীন পাঁচ কোটি টাকার ঋণ সহায়তা ঘোষণা করা হয়। বিসিকের আওতায় কারখানাপ্রতি সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা ঋণ দেওয়ার বিধান রাখা হয়। উদ্যোগটির ইতিবাচক সুফল পাওয়া গেলেও তা অজ্ঞাত কারণে চলমান রাখা হয়নি। বাধা ডিঙিয়ে তবু এগিয়ে : এত অবজ্ঞা, এত অবহেলা, তার পরও জিঞ্জিরার বিপ্লব থেমে নেই। এই নীরব বিপ্লবের নায়কদের পুঁথিগত বিদ্যার অভাব থাকলেও কারিগরি জ্ঞানের অভাব নেই। তারা তাদের সে জ্ঞান দিয়ে উৎপাদন করছেন নানা ধরনের ক্ষুদ্র যন্ত্রাংশ। কোটি কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হচ্ছে এসব কারিগরের কৃতিত্বে। তাদের সাফল্যে এখন চীন ও ভারতের মতো শিল্পোন্নত দেশগুলোর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাংলাদেশি যন্ত্রপাতি বিদেশে রপ্তানি হচ্ছে। জিঞ্জিরার সম্ভাবনাময় ক্ষুদ্র শিল্প-কারখানা আর অবাক দক্ষতার দেশীয় কারিগরদের ভাগ্যে আজও সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা জোটেনি। তবু এগিয়ে চলেছে জিঞ্জিরা। বেসরকারি পর্যায়েও ন্যূনতম সহায়তা করতে এগিয়ে আসেনি কেউ। বরং সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর ধারাবাহিক অবহেলার শিকার ‘জিঞ্জিরা শিল্প’কে নিশ্চিহ্ন করার পাঁয়তারা চলছে নানাভাবে। একশ্রেণির ব্যবসায়ী বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি করা পণ্যের একচ্ছত্র বাজার নিশ্চিত করতে প্রথমেই আঘাত হানছেন জিঞ্জিরায়। তারা টাকা ছিটিয়ে, প্রভাব খাটিয়ে প্রশাসন দিয়ে জিঞ্জিরার ক্ষুদ্র কারখানাগুলোয় বারবার অভিযান চালাচ্ছে। নকলবাজির অভিযোগ তুলে যখন-তখন এসব কারখানায় তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরকারি সহায়তা না থাকাসহ সীমাহীন বৈরী পরিবেশের মুখেও জিঞ্জিরার ক্ষুদ্র কারখানার কারিগররা হাত গুটিয়ে বসে থাকছেন না। চুপিসারে নিত্যনতুন জিনিসপত্র তৈরি করে রীতিমতো তাক লাগিয়ে দিচ্ছেন। সীমিত পুঁজির ক্ষুদ্র কারখানার মালিক আর অভাবনীয় মেধার দক্ষ কারিগররা জিঞ্জিরা শিল্পকে পরিণত করছেন দেশের সম্ভাবনাময় আলোকবর্তিকায়।


আপনার মন্তব্য