Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৬ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ মার্চ, ২০১৯ ২২:৪০

নীল বিষে ছন্দহারা নারী

মির্জা মেহেদী তমাল

নীল বিষে ছন্দহারা নারী

বাবা-মায়ের আদরের মেয়ে সম্পা। কোনো কিছুর কমতি নেই। ঢাকায় তাদের বাড়ি, গাড়ি। দামি প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া। জীবনে তার ছন্দ ছিল। চোখে ছিল স্বপ্ন। প্রতিষ্ঠিত হবেন একদিন। চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট হয়ে ভালো কোনো প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব নেবেন। ভালোই চলছিল তার জীবন। ‘ও’ লেভেলে পড়ার সময় কেমন যেন বদলে যেতে থাকে। এক সময় দেখা যায় হারিয়ে গেছে তার জীবনের স্বাভাবিক ছন্দ। ক্লাসের নিয়মিত ছাত্রী এখন অনিয়মিত, পড়ায় মন নেই। ঠিক নেই নাওয়া-খাওয়া কিংবা ঘুমেরও। আচমকা এক ঝড়ে সব এলোমেলো হয়ে যায়। তার এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন হয়ে ওঠে দুঃস্বপ্নে। এই বয়সে দুবার বাড়ি ছেড়েও পালিয়েছে। একবার তো প্রায় মরতেই বসেছিল। ফ্যানের সঙ্গে ওড়না জড়িয়ে ফাঁস নেওয়ার চেষ্টা করেছিল। সম্পার মা বলেন, তার এ বয়সে না পাওয়ার কোনো কষ্টই নেই। তবু তার ছোট্ট জীবনটা এলোমেলো করে দিয়েছে সর্বনাশা মাদক। তিনি বলেন, শুরুর দিকে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের একটি মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছিল। যেদিন শুনেছি সম্পা গাঁজা-ইয়াবা খায়, সেদিন মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে। সম্মানের ভয়ে এক বছর কাউকে জানাইনি। পারিবারিকভাবে নিজেরা চেষ্টা করেছি, ফেরাতে পারিনি। পরে গুলশানের এক নিরাময় কেন্দ্রে দুই মাস রাখলাম। লাখ লাখ টাকা গেল, কিছুই হলো না। শখের বসে বন্ধুর হাত থেকে জলন্ত সিগারেটে টান দিয়ে খোক খোক করে কাশতে কাশতে চোখ মুখ লাল করে ফেলেছিল সম্পা। সেই সম্পা সিগারেট থেকে গাঁজা, অতপর ইয়াবায়। সবার অজান্তেই তিলে তিলে নিজেকে শেষ করে দিচ্ছিল। শুধু সম্পাই নয়, মাদকাসক্ত তরুণীদের মাদকে আক্রান্ত হওয়ার হাজারো করুন গল্প রয়েছে। হতাশা থেকে মুক্তি পেতে, কৌতূহলে, নিজেকে স্লিম করার প্রলোভনে তারা মাদক গ্রহণ করেছেন। তারপর মাদক গ্রাস করেছে তাদের সুন্দর জীবন। একপর্যায়ে মাদকের টাকার জন্য নিজের শরীর বিক্রি করেছে অনেকে। চুরি, ছিনতাইসহ করছে নানা অপকর্ম। পরিবারের অশান্তির মূল কারণ হয়েছে। এভাবেই পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও বিপজ্জনক হারে এ মাদক জগতে প্রবেশ করছে। দিন দিন এর পরিমাণ বেড়েই চলছে। বর্তমানে নারীরা মরণ নেশা ইয়াবার প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ছে বেশি। মাদকের সহজলভ্যতা ও ব্যাপক প্রসারতার কারণে আসক্ত নারীর সংখ্যা বাড়ছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। মাদক বিশেষজ্ঞরা বলেন, নারীরা কৌতূহলের বশে প্রথমে মাদক গ্রহণ করা থেকে তারা এক সময় আসক্ত হয়ে পড়ে। এছাড়া পারিবারিক অশান্তি যে কোনো ধরনের হতাশা, বাবা-মায়ের বিচ্ছেদ, প্রেমঘটিত ব্যাপার, ধর্মীয় মূল্যবোধের অভাব, মাদকাসক্ত বন্ধুদের সঙ্গ এসব কারণেই নারীরা এই মরণ নেশায় আসক্ত হচ্ছে। মাদকদ্রব্যের ব্যাপক বিস্তারের কারণে মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে দেশের যুবসমাজ, বিশ্ববিদ্যালয় এবং কলেজপড়ুয়া শিক্ষার্থীরা। বিশেষ করে স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া মেয়েরাই বেশি মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে। একটি ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের ছাত্রী অর্পা। বাসা মগবাজারে। অর্থের অভাব না থাকলেও ভালোবাসার অভাব ছিল তার। অর্পার বয়স তখন দুই বছর। বাবাকে ছেড়ে মা ঘর বাঁধে অন্যের সঙ্গে। তাকে বড় হতে হয় সৎ মায়ের কাছে। অনাদর-অবহেলার মধ্যে ভরসা ছিলেন দাদি। তবে শাসন-বারণ তেমন না থাকায় চলাফেরা ছিল বেপরোয়া। সময়ে-অসময়ে ছেলে বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিতেন। আড্ডায় সিগারেট থাকতই। নানা দুশ্চিন্তায় ঘুমাতে পারতেন না। তাই স্লিপিং পিল সেবন করতেন অর্পা। আড্ডাতে গিয়েই এক তরুণকে বয়ফ্রেন্ড হিসেবে বেছে নেন তিনি। তার বয়ফ্রেন্ড সেবন করতেন ইয়াবা। পারিবারিক যন্ত্রণা ভুলে থাকতে বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে তিনিও হাত বাড়ান মরণনেশার দিকে। এভাবে কিছু দিন। তারপর নানা মিথ্যা বলে দাদির কাছ থেকে টাকা নিয়ে ক্রয় করতেন ইয়াবা। লেখাপাড়া বাদ দিয়েই মাদকে ডুবে যান অর্পা। দাদি টাকা না দিলে চুরি করতে বাধ্য হন। বাসার দামি জিনিস বিক্রি করে ইয়াবার টাকা সংগ্রহ করেন। ইয়াবা বিক্রি করলে ফ্রি ইয়াবা সেবন করতে দেয় মাদক ব্যবসায়ীরা। সেবনের জন্য ইয়াবা বিক্রি করা শুরু করেন অর্পা। বিষয়টি জানার পর দাদি ও ফুফু তাকে নিয়ে যান চিকিৎসকের কাছে। টাঙ্গাইলের মেয়ে রুবি। অল্প বয়সেই বিয়ে দেওয়া হয় তাকে। পরপর দুটি সংসার ভাঙার পর দিশাহারা মেয়েটি অর্থ উপার্জনের জন্য বেছে নেন মাদক পরিবহনের কাজ। টাঙ্গাইল থেকে ট্রেনে দিনাজপুর, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, লালমনিরহাট এলাকায় মাদক পরিবহন করতেন তিনি। পরিবহন করতে গিয়ে আসক্ত হন। তখন মাদকের নেশায় যৌনকর্মী হতেও বাধ্য হন। মাত্র কয়েক বছরেই গুরুতর অসুস্থ হয়ে যান এই নারী। শেষ পর্যন্ত স্বজনরা জোর করেই তাকে ভর্তি করিয়ে দেন রাজধানীর একটি মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে। আশুলিয়ার নবম শ্রেণির ছাত্রী রোকেয়া। বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে মিশে নিজের অজান্তেই আক্রান্ত হয় মাদকে। কয়েক মাস পরেই বেপরোয়া আচরণ করতে থাকে। ঘরের টাকা, দামি জিনিস বিক্রি করে দেয়। এমনকি প্রতিবেশী, আত্মীয়দের দামি মোবাইলসেটও চুরি করতে বাধ্য হয়। এ কিশোরীর মতো অনেক মেয়ে এভাবেই অন্ধকারে হারিয়ে যাচ্ছে। মাদকে আক্রান্ত হচ্ছে তারা। অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে এমন অসংখ্য সব সত্য, যা শিউরে ওঠার মতো। ভাবতে গিয়ে আঁতকে উঠতে হয় এ জাতির ভবিষ্যৎ নিয়ে। এ এক নীরব ঘাতকের মতো ভিতরে ভিতরে শেষ করে দিচ্ছে। সব দেখেশুনে বলতে হয়, এ জাতির সামনে আজ সবচেয়ে বড় অভিশাপের নাম মাদক। মনোচিকিৎসক, সমাজবিজ্ঞানী ও অপরাধ বিশ্লেষকরা বলছেন, সর্বনাশা ইয়াবা, হেরোইন, ফেনসিডিল, প্যাথেড্রিন, সিসা, মদ, বিয়ার, কোকেন, গাঁজাসহ অনেক কিছু এখন পৌঁছে যাচ্ছে সম্ভাবনাময় তরুণ-তরুণীদের হাতে। সঙ্গদোষেই মাদকাসক্তির ঘটনা ঘটছে বেশি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সহকারী অধ্যাপক তৌহিদুল হক বলেন, পরিবারে সন্তানদের সঠিকভাবে গড়ে তোলার দায় মা-বাবার হলেও এখন অনেক পরিবারে মা-বাবা নিজেরাই সন্তানদের বিভ্রান্ত করছেন। তারা নিজেরাই নানা অবক্ষয়ে জড়িয়ে পড়েন। দুর্নীতি-অসামাজিকতায় নিজেরাই গা ভাসিয়ে দিয়ে সন্তানকে সঠিক পথে রাখার নৈতিকতা হারিয়ে ফেলেন কিংবা নিজেরাই সন্তানকে বিপথগামী করে তোলেন।


আপনার মন্তব্য