Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৫:১৫
প্যাকেট খুলতেই চোখে পড়ল তাজা হৃৎপিণ্ড!
অনলাইন ডেস্ক
প্যাকেট খুলতেই চোখে পড়ল তাজা হৃৎপিণ্ড!
ছবি: সংগৃহীত

গত ২৫ অগস্টের ঘটনা। অন্য দিনের মতোই জরুরি ফোন পেয়ে ওহায়োর নরওয়াক পার্কিং লট থেকে অ্যাম্বুল্যান্স নিয়ে বেরিয়েছিল দলটি। এক ঘণ্টা পর ফিরে আসতেই চোখে পড়ে প্যাকেটটা। পার্কিং লটের কাছে প্যাকেটটি পড়ে থাকতে দেখেই সন্দেহ হয়েছিল চিকিৎসকদের। কিন্তু খুলতেই যা বেরোল, তা দেখে তাদেরই হৃৎপিণ্ড লাফিয়ে ওঠার জোগাড়। উঁকি মারছে রক্তমাখা এক আস্ত হৃৎপিণ্ড!

দলটি জানায়, হৃৎপিণ্ডটি দেখেই বোঝা যাচ্ছিল তা বেশ তাজা। তাই সময় নষ্ট না করে পুলিশকে ডেকে আনেন তারা। কিছুক্ষণের মধ্যেই হৃৎপিণ্ডটি দেখতে স্থানীয়দের ভিড় উপচে পড়ে। আর সেই সঙ্গেই ওঠে প্রশ্ন- হৃৎপিণ্ডটা কার? কোথা থেকে এলো?

বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। নির্জন পার্কিং লটে ওই প্যাকেটটা কে রেখে গিয়েছে, তারও খোঁজ শুরু হয়েছে। আমেরিকার ন্যাশনাল হার্ট, লাং অ্যান্ড ব্লাড ইনস্টিটিউট জানাচ্ছে, রোজকার তালিকায় অন্তত এমন ৩ হাজার রোগীর নাম থাকে যারা হৃৎপিণ্ড প্রতিস্থাপনের অপেক্ষায় রয়েছেন। কিন্তু সেই তুলনায় জোগান কম।

ফলে বিভিন্ন হাসপাতাল ও সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করে পুলিশ জানার চেষ্টা করছে, কেউ জরুরি অবস্থায় কোনো হৃৎপিণ্ড জোগাড় করেছিলেন কি না, যা গন্তব্যে নিয়ে যাওয়ার সময় হয়ত ভুলবশত পড়ে গেছে।

পুলিশ এসে হৃৎপিণ্ডটি পরীক্ষার জন্য নিয়ে যাওয়ার আগেই তা একদফা পরীক্ষা করেছিল ওই চিকিৎসক দলটি। তাদের অনুমান, ওই হৃৎপিণ্ডটি মানুষের হওয়ার ৯৫% সম্ভাবনা রয়েছে। তবে বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, মানুষের হৃৎপিণ্ডের সঙ্গে গঠনে মিল রয়েছে শুয়োর, শিম্পাঞ্জি বা কুকুরের হৃৎপিণ্ডের। যার ফলে চিকিৎসা ক্ষেত্রে প্রয়োজন পড়লে ওই প্রাণীদের হৃৎপিণ্ড থেকে ভালভ নিয়ে মানুষের হৃৎপিণ্ডে বসানো হয়। তাই পশু চিকিৎসকদেরও মতামত জরুরি বলে মনে করছে পুলিশ।

বিডি-প্রতিদিন/মজুমদার

 

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow