Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৯:২৬ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৯:৫০
সংক্রমণের এক সপ্তাহের মধ্যেই শনাক্ত হবে এইচআইভি!
অনলাইন ডেস্ক
সংক্রমণের এক সপ্তাহের মধ্যেই শনাক্ত হবে এইচআইভি!

এইচআইভি সংক্রমণের মাত্র এক সপ্তাহের মধ্যেই তা শনাক্ত করতে পারবে বলে জানিয়েছে স্পেনের শীর্ষ গবেষণা প্রতিষ্ঠান স্প্যানিশ ন্যাশনাল রিসার্চ কাউন্সিল। বৃহস্পতিবার এমনটি দাবি করে তারা জানায়, এই কাজটি করতে তারা একটি পরীক্ষা পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছে।

এত অল্প সময়ের মধ্যে এইচআইভি সংক্রমণ শনাক্ত করার সক্ষমতা অর্জনের ঘটনা এটাই প্রথম।

স্প্যানিশ ন্যাশনাল রিসার্চ কাউন্সিল একটি “বায়োসেন্সর” উদ্ভাবন করেছে যেটি পি২৪ অ্যান্টিজেন শনাক্ত করতে সক্ষম। পি২৪ হলো একটি প্রোটিন যা এইচআইভি ভাইরাসের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। এইচআইভি সংক্রমণের পর এই প্রোটিনটি মানুষের রক্তে পাওয়া যায়। এই প্রযুক্তি বিদ্যমান প্রযুক্তির চেয়ে অনেক সহজেই এইচআইভি শনাক্ত করতে সক্ষম। এবং এইচআইভি সংক্রমণের মাত্র এক সপ্তাহের মধ্যেই তা করতে সক্ষম এই প্রযুক্তি। আর এই প্রযুক্তি দিয়ে এইচআইভি শনাক্ত করতে সময় লাগবে মাত্র ৪ ঘন্টা ৪৫ মিনিট। তার মানে একই দিনে ক্লিনিক্যাল ফলাফলও পাওয়া যাবে। চলতি সপ্তাহে বিজ্ঞান বিষয়ক সাময়ীকি প্লস ওয়ানে এ পরীক্ষা পদ্ধতির ফলাফল সম্পর্কিত প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়।

এই সেন্সরটি একটি শস্যদানার আকারের সমান। এতে রয়েছে ক্ষুদ্র-যান্ত্রিক সিলিকন কাঠামো এবং স্বর্ণের ন্যানোপার্টিকেল।  
এর উপাদানগুলো বিদ্যমান প্রযুক্তি ব্যবহার করেই তৈরি করা হয়েছে। ফলে বিশাল পরিসরে ও নিম্নখরচে এর উৎপাদন সম্ভব হবে।  
এই বৈশিষ্ট্য এবং সরলতার কারণে প্রযুক্তিটি সহজেই উন্নয়নশীল দেশগুলোতে ব্যবহার করাও সম্ভব হবে।  

বিদ্যমান যে প্রযুক্তি আছে তা দিয়ে সর্বনিম্ন সংক্রমণের তিন সপ্তাহ পর এইচআইভি শনাক্ত করা সম্ভব হয়। আরএনএ প্রযুক্তিতে ১০ দিন পর শনাক্ত করা যায়। তবে তা খুবই ব্যয়বহুল। সংক্রমণের পরপরই এইচআইভি শনাক্ত করা গেলে তা সহজেই ছড়িয়ে পড়া ঠেকানো সম্ভব। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, ২০১৫ সালের শেষ নাগাদ বিশ্বে এইচআইভি আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা ছিল ৩ কোটি ৬৭ লাখ। আর এদের বেশির ভাগেরই বাস নিম্ন ও মধ্য-আয়ের দেশে। শুধু ২০১৫ সালেই নতুন করে ২১ লাখ মানুষ এইচআইভিতে আক্রান্ত হয়েছে।  এ পর্যন্ত বিশ্বে এইচআইভি সংক্রমণ বা এইডস রোগে মারা গেছেন ৩ কোটি ৫০ লাখ মানুষ। শুধু ২০১৫ সালেই মারা গেছেন ১১ লাখ।  সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস।

বিডি প্রতিদিন/মজুমদার

 

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow