Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : ১১ মার্চ, ২০১৭ ২২:৫৪ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১২ মার্চ, ২০১৭ ১০:১৩
পেটের দায়ে গায়ের চামড়া বেচছেন মেয়েরা, তৈরি হচ্ছে ওষুধ
অনলাইন ডেস্ক
পেটের দায়ে গায়ের চামড়া বেচছেন মেয়েরা, তৈরি হচ্ছে ওষুধ
সংগৃহীত ছবি

সম্প্রতি বিভিন্ন বিজ্ঞাপনে দেখা যায় যে, স্তনের আকারে পরিবর্তন ও গোপনাঙ্গের বৃদ্ধির অপারেশন করিয়ে নেয়া হচ্ছে। সমাজের একটি অংশ ‘ব্রেস্ট ইমপ্ল্যান্ট’ বা ‘এনলার্জ’ করার এই পদ্ধতিতে সামিলও হয়।

কিন্তু, কৃত্রিম বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় চামড়া কোথা থেকে আসে?

গরীবদের কাছ থেকে এই চামড়া ক্রয় করা হয় বলে ইয়ুথ কি আওয়াজ ওয়েবসাইটের এক প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে।

চাঞ্চল্যকর এই রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়, গরিব নেপালি নারীদের প্রতারণা করে এই চামড়া বিক্রিতে বাধ্য করা হয়। কসমেটিকের বাজারে এই চামড়া বিক্রি করা হয় ১০ হাজার টাকা প্রতি ১৩০ স্কোয়ার সেন্টিমিটার বা প্রতি ২০ বর্গ ইঞ্চি। চাঞ্চল্যকর এই তথ্য প্রকাশ্যে আসার পরই নরেচড়ে বসেছে নেপাল সরকার।

দেশের নারী, শিশু ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রী কুমার খাদকা জানিয়েছেন, ‘এই খবর শুনে আমরা স্তম্ভিত। সরকার এর তদন্ত করবে এবং দোষীদের শাস্তি দেবে। ’

নেপালে নারী ও শিশু পাচার এবং দেহব্যবসার খবর প্রায়ই শিরোনামে থাকে। কিন্তু, এই প্রথম চামড়া পাচারের অভিযোগ উঠেছে। ওই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত খবরে জানানো হয়েছে, নেপাল থেকে যুবতী, মহিলাদের পাচার করা হয় ভারতের শহরগুলিতে।

সেখানে যৌনপল্লিতে তাদের বিক্রি করে দেওয়া হয়। এরপর কয়েক বছর পর ড্রাগ দিয়ে বেহুঁশ অস্ত্রোপচারের পর তাদের চামড়া বের করা হয়। যা পাঠানো হয় ভারতের বিভিন্ন ল্যাবে। সেখানে সেই চামড়ার প্রক্রিয়াকরণের পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পাশ্চাত্যের বিভিন্ন দেশে পাঠানো হয়। সেখানেই কসমেটিক সার্জারির কাজে ব্যবহৃত হয় ওই চামড়া।

খবরটি প্রকাশ্যে আসার পরই রাস্তায় নেমেছে বিভিন্ন এনজিও। অবিলম্বে এই ইস্যুতে সরকার ব্যবস্থা নিক বলে দাবি তাদের।

বিডি প্রতিদিন/১১ মার্চ ২০১৭/এনায়েত করিম

আপনার মন্তব্য

up-arrow