Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : ১৭ মার্চ, ২০১৭ ০২:০১ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১৭ মার্চ, ২০১৭ ০৯:২৮
নিজের মেয়েকে ধর্ষণের জন্য ১৫০৩ বছরের কারাদণ্ড!
অনলাইন ডেস্ক
নিজের মেয়েকে ধর্ষণের জন্য ১৫০৩ বছরের কারাদণ্ড!
প্রতীকী ছবি

৪১ বছরের এক মার্কিন নাগরিক আইনের ইতিহাসে দীর্ঘতম সাজাগুলির মধ্যে একটি পেয়েছেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি কয়েক বছর ধরে নিজের মেয়েকে ধর্ষণ করেছেন

এমন জঘন্য অপরাধের জন্য তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া প্রয়োজন বলেই মনে করেছেন বিচারক এডওয়ার্ড সারকিসিয়ান জুনিয়ার। এজন্য ১৫০৩ বছরের কারাদণ্ডের কথা ঘোষণা করেন বিচারক। শুধু তাই নয়, তিনি সাজা ঘোষণার সময় বলেন যে, এই অপরাধী সমাজের পক্ষে মারাত্মক বিপজ্জনক।

জানা গেছে, ক্যালিফোর্নিয়ার ফ্রেসনো-নিবাসী ওই ব্যক্তির কিশোরী মেয়েটি প্রথমে এক পারিবারিক বন্ধুর দ্বারা ধর্ষিত হয়। ঘটনার পরে সে বাবাকে সব কথা জানানোর পরে তার বাবা অপরাধীকে শাস্তি দেওয়ার ব্যবস্থা না করে, নিজেই ধর্ষণ করে মেয়েকে। এমনকি বিচার চলাকালীন ওই ব্যক্তির মধ্যে নিজের কৃতকর্মের জন্য কোনও লজ্জা বা অপরাধবোধ দেখা যায়নি।

প্রসিকিউটর নিকোল গ্যালস্ট্যান সংবাদমাধ্যমকে জানান, মেয়েটিকে ‘এক ধরনের সম্পত্তি’ হিসেবেই গণ্য করত ওই ঘৃণ্য ব্যক্তি। ২০০৯ থেকে ২০১৩ সাল, টানা চার বছর ধরে সপ্তাহে দু’তিনবার করে ধর্ষিত হতো ওই কিশোরী। এখন তার বয়স ২৩

 

ধর্ষণের শিকার সেই কিশোরী জানিয়েছেন যে, সেই সময় প্রতিবাদ করার মতো বা অভিযোগ দায়ের করার মতো মনের জোর তার ছিল না। সব সময়েই অত্যাচারের ভয়ে গুটিয়ে থাকতেন তিনি।  

ওই ব্যক্তির সাজা দৃষ্টান্তমূলক হলেও এই ধরনের ঘটনা এই প্রথম নয়। শুধু তাই নয়, ইউরোপের বহু ধনী দেশে বাবা বা পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের হাতে কীভাবে অত্যাচারিত হন নারীরা তা সব সময় খবরের শিরোনামে না এলেও সেদেশের সাহিত্য এবং চলচ্চিত্রে বার বার উঠে এসেছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এই ঘটনার সঙ্গে আশ্চর্য মিল ২০০৫ সালে প্রকাশিত ‘দ্য গার্ল উইথ দ্য ড্রাগন ট্যাটু’ উপন্যাসের। সেখানেও ‘হ্যারিয়েট’ চরিত্রটিকে দীর্ঘদিন ধরে ধর্ষিত হতে হতো তার বাবা এবং ভাইয়ের হাতে। যাতে এমন চরিত্র বইয়ের পাতাতেই আবদ্ধ থাকে, সেই জন্যই যে কোনও ধর্ষণের সাজাই কঠিনতম হওয়া উচিত।  
 

সূত্রঃ এবেলা।


বিডি-প্রতিদিন/ ১৭ মার্চ, ২০১৭/ আব্দুল্লাহ সিফাত-৪

আপনার মন্তব্য

up-arrow