Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২০:৫১ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২১:৩২
ট্রেনে দাড়ি কামিয়ে ভাগ্য বদলে গেল মার্কিন নাগরিকের!
অনলাইন ডেস্ক
ট্রেনে দাড়ি কামিয়ে ভাগ্য বদলে গেল মার্কিন নাগরিকের!
অ্যান্টনি টোরেস

মার্কিন নাগরিক অ্যান্টনি টোরেস। সম্প্রতি তার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়ে গিয়েছিল ইন্টারনেটে। তিনি চলন্ত ট্রেনে বসে কোন আয়না ছাড়াই দাড়ি কামাচ্ছিলেন। তার ভিডিওটি ভাইরাল হতেই তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় হাসির খোরাক হয়ে যান।

কিন্তু এই হাসির খোরাক হয়েই তার ভাগ্য ফিরে গেল। পেলেন ৩৭ লাখ টাকার উপর অনুদান ও অনেক চাকরির প্রস্তাব। অনেকেই ভেবেছিলেন তিনি এতই ব্যস্ত যে, অ্যান্টনি বাড়িতে দাড়ি কাটার সময় পাননি। কিন্তু বিষয়টি আসলে তা নয়।

আমেরিকার এই ব্যক্তি আসলে গৃহহীন। তার চাকরিও নেই। গৃহহীনদের শেল্টারে তার রাত কাটে। এক ভাইয়ের কাছে যেতে চেয়ে ফোন করেছিলেন। সেই ভাই অন্য এক ভাইয়ের বাড়িতে যাওয়ার জন্য অ্যান্টনিকে একটি ট্রেনের টিকিট পাঠান। 

নিউ জার্সির ট্রেনে চেপে তার হঠাৎ মনে হয়, তাকে খুব নোংরা লাগছে। ভাইয়ের স্ত্রী ও বাচ্চারা কী ভাববে? তার জন্যই তিনি ট্রেনের মধ্যেই রেজার ও শেভিং ক্রিম বের করে দাড়ি কামাতে আরম্ভ করেন। পাশের এক যাত্রী অ্যান্টনির এই কাণ্ড ক্যামেরাবন্দি করেন। 

সেই ভিডিও ভাইরাল হতেই অনেকেই নেতিবাচক কমেন্ট করতে থাকেন। অনেকে জানোয়ার বলেও গালি দেন অ্যান্টনিকে। তার এক ভাইজি এই ভিডিওটি তাকে দেখায়। তারপর অ্যান্টনি ঠিক করে যে তিনি আর ট্রেনেই চড়বেন না।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টের সাংবাদিক তাকে খুঁজে বের করে একটি সাক্ষাৎকার নেন। সেখানে তিনি জানান তার কোনও বাড়ি নেই। কোন কাজও নেই। কারণ তিনি অসুস্থ আর বেশ কয়েক বছর আগে আহত হয়েছিলেন। ফলে ভারি কাজ করতে পারেন না।

এর পরেই চাকা ঘুরতে থাকে। অনেকেই অ্যান্টনির পক্ষ নিতে থাকেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। জর্ডন উহল নামে এক ব্যক্তি গোফান্ডমির পেজে গিয়ে অ্যান্টনির জন্য অনুদান জোগাড় করতে থাকেন। দু’দিনের মধ্যে সেখানেই ৩৮ হাজার ডলার বা ৩৭ লাখ টাকার উপরে পেয়ে যান। শুধু তাই নয় তিনি অনেক চাকরির প্রস্তাবও পেয়েছেন।


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত তাফসীর

আপনার মন্তব্য

up-arrow