Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৩ নভেম্বর, ২০১৮ ১০:০১ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১৩ নভেম্বর, ২০১৮ ১৬:০৪
শিশুর শ্বাসনালিতে আটকে গেল চার্জারের পিন! অতঃপর...
অনলাইন ডেস্ক
শিশুর শ্বাসনালিতে আটকে গেল চার্জারের পিন! অতঃপর...
সংগৃহীত ছবি

ভাইয়ের সঙ্গে খেলতে খেলতে মোবাইলের চার্জারের পিনটি গিলে ফেলেছিল ১৩ মাসের শিশু রণজিৎ মাল। সেই পিন গিয়ে শ্বাসনালিতে আটকে যায়। এরপর প্রাণসংশয় দেখা দেয় শিশুটির। পরে জটিল অস্ত্রোপচার করে শিশুকে বাঁচালেন ভারতের বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকরা। 

সোমবার সকালে সফল অস্ত্রোপচার করে সাফল্যের নজির গড়ল বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ইএনটি (নাক-কান-গলা) বিভাগ। ব্রঙ্কোস্কপি করে বের করা হয়েছে চার্জারের পিন।

এই জটিল অস্ত্রোপচারের জন্য তিন সদস্যর টিম গঠন করেছিল ইএনটি বিভাগ। চিকিৎসক ঋতম রায়, গণেশচন্দ্র গায়েন ও মৈনাক সামন্ত সোমবার সকালে অস্ত্রোপচার করেন। অ্যানাস্থেসিস্ট হিসেবে ছিলেন সামান্থা ঘোষ মৌলিক। 

চিকিৎসক ঋতমবাবু জানান, ভোরে শিশুটিকে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়। শিশুটি তখন তীব্র শ্বাসকষ্টে ভুগছে। দ্রুত এক্স-রে করে কর্ডের অবস্থান দেখে নেওয়ার পর অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেয় চিকিৎসকদের তিন সদস্যের টিম। এরপর অস্ত্রোপচার করে চার্জারের পিনটি রণজিতের শ্বাসনালি থেকে বের করা হয়েছে। আপাতত সুস্থ রয়েছে রণজিৎ। পর্যবেক্ষণের জন্য তাঁকে বর্ধমান হাসপাতালের শিশু বিভাগের ভরতি রাখা হয়েছে।

এর আগে গত ১৭ সেপ্টেম্বর একইভাবে অস্ত্রোপচার করে এক শিশুর গলা থেকে আতা ফলের বীজ বের করেছিলেন এই হাসপাতালের ইএনটি বিভাগের চিকিৎসকরা। ১১ মাসের এক শিশুকন্যা কোনওভাবে আতা ফলের বীজ গিলে ফেলায় সেটি শ্বাসনালিতে আটকে গিয়েছিল। ব্রঙ্কোস্কপি করে হাসপাতালের ইএনটি বিভাগের চিকিৎসকরাই শিশুটির প্রাণ ফিরিয়ে দেন।

সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

বিডি প্রতিদিন/১৩ নভেম্বর ২০১৮/হিমেল

আপনার মন্তব্য

up-arrow