Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০
যেভাবে কার্যকর মীর কাসেমের ফাঁসি
অনলাইন ডেস্ক

যেভাবে কার্যকর মীর কাসেমের ফাঁসি

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে মীর কাসেম আলীর রিভিউ রায় খারিজ হওয়ার পর ফাঁসি দড়ি এড়াতে জামায়াত নেতার সামনে একটাই পথ ছিল রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাওয়া। তাও সেটা রাষ্ট্রপতি যদিও ক্ষমা করতেন।

তবে,রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদন না করাই মীর কাসেম অালীর ফাঁসি কার্যকরে আইনি কোনো বাধা ছিল না। এরপর শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১০টায় ফাঁসিতে ঝুঁলিয়ে রায় কার্যকর করা হয়।

এর আগে, শনিবার দুপুরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে কারাগারে পৌঁছায় মীর কাসেমের ফাঁসি কার্যকর করতে সরকারের নির্বাহী আদেশ। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সে আদেশও তাকে পড়ে শোনানো হয়। এরপর থেকেই শুরু হয় ফাঁসি কার্যকরের চূড়ান্ত প্রস্তুতি।

এরপর বিশেষ কারা বার্তাবাহকের মাধ্যমে গাজীপুরের জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও সিভিল সার্জন এবং কারা মহাপরিদর্শকের কাছে অবহিতকরণ চিঠি পাঠায় কারা কর্তৃপক্ষ। একই চিঠি পাঠানো হয় মীর কাসেমের গ্রামের বাড়িতেও। পাশাপাশি বিকালে চারটা ৪৫ মিনিট থেকে ছয়টা ০৮ মিনিট পর্যন্ত ৩৮ জন স্বজন কেন্দ্রীয় কারাগারে গিয়ে মীর কাসেম আলীর সঙ্গে শেষ বারের মতো সাক্ষাৎ করেন।

পরিবারের স্বজনরা চলে যাওয়ার পর রাতে কনডেম সেলে গিয়ে মীর কাসেমকে গোসল করিয়ে রাতের খাবার দেওয়া হয়। এরপর কারাগারের মাওলানার মাধ্যমে তওবা পড়িয়ে নেন কারা কর্তৃপক্ষ। এ সময় তার কাছ থেকে তার শেষ কোনো কথা থাকলে তাও শুনে নেন কারা কর্মকর্তারা।

এরপর ধর্মীয় রীতি অনুসারে কাসেমকে তওবা পড়ান কাশিমপুর কারা জামে মসজিদের ইমাম মুফতি হেলাল উদ্দিন। এর আগেই তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা সম্পন্ন করেন কারা চিকিৎসক ডা. মিজান ও ডা. কায়সার। তওবা পড়ার মিনিট চারেক পর কনডেম সেলে জল্লাদরা আসেন।

শনিবার রাত ৯টা ৪৫ মিনিটের দিকে তারা মীর কাসেমকে নিয়ে যান ফাঁসির মঞ্চে। আগে থেকেই মঞ্চের পাশে রাখা ছিল মরদেহ বহনের জন্য অ্যাম্বুলেন্স। ফাঁসির মঞ্চে নেওয়ার পর তার মাথায় পরানো হয় ‘যমটুপি’। দুই হাত পেছন দিকে বাধা হয়। দুই পাও বাধা হয়। পরানো হয় ফাঁসির দড়ি।

কারা কর্তৃপক্ষের হাতে ছিল একটি রুমাল। রুমালটি হাত থেকে নিচে ফেলে দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই জল্লাদ ফাঁসির মঞ্চের লিভারে টান দেন। লিভারটি টান দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ফাঁসির মঞ্চের নিচে চলে যান মীর কাসেম আলী। এ সময় মাটি থেকে ৪-৫ ফুট শূন্যে তাকে ২০ মিনিট ঝুলিয়ে রাখা হয়। এতে মুহূর্তের মধ্যেই তার ঘাড়ের হাড় ভেঙে মৃত্যু নিশ্চিত হয়ে যায়।

মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পর মরদেহ তোলা হয়। এরপর কারা চিকিৎসক ডা. বিপ্লব কুমার ও ডা. আহসান হাবিব, গাজীপুর জেলার সিভিল সার্জন ডা. আলী হায়দার খানের তত্ত্বাবধানে ময়না তদন্ত সম্পন্ন করেন। এ সময় তার ঘাড়ের রগ কাটা হয়।

মীর কাসেম আলীর ফাঁসির লিভারে টান দিয়ে ঐতিহাসিক এ দায়িত্ব পালন করেন প্রধান জল্লাদ শাহজাহান। অন্য তিনজন দীন ইসলাম, রিপন ও শাহীন জল্লাদ ছিলেন তার সহযোগী।

ফাঁসি কার্যকর করার সময় ফাঁসির মঞ্চ ও কারাগারের ভেতরে ছিলেন কারা মহাপরিদর্শক (আইজি প্রিজন) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন, অতিরিক্ত কারা মহাপরিদর্শক (অতিরিক্ত আইজি প্রিজন) কর্নেল ইকবাল হাসান, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক এস এম আলম, পুলিশ সুপার হারুনুর রশিদ, সিভিল সার্জন ডা. আলী হায়দার খান, কাশিমপুর কারাগার-২ এর সিনিয়র জেল সুপার প্রশান্ত কুমার বণিক, জেলার নাশির আহমেদ। মঞ্চের চারপাশে ছিলেন ২০ জন কারারক্ষী।


বিডি-প্রতিদিন/০৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬/মাহবুব

 

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow