Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২১:৫৪
'৬ বছরে পুলিশে ৫২ হাজার, বিজিবিতে সাড়ে ২৩ হাজার নিয়োগ'
নিজস্ব প্রতিবেদক
'৬ বছরে পুলিশে ৫২ হাজার, বিজিবিতে সাড়ে ২৩ হাজার নিয়োগ'

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, গত ৬ বছরে সরকার পুলিশ বিভাগে ৫২ হাজার ৩৩৩ জন এবং বিজিবিতে ২৩ হাজার ৫২৩ জনকে নিয়োগ দিয়েছে। এছাড়া বর্তমানে কনস্টেবল পদে আরো ১০ হাজার পুলিশ সদস্য নিয়োগ প্রক্রিয়াধীন আছে।

সংসদের দ্বাদশ অধিবেশনের দ্বিতীয় দিন সোমবার সরকার দলীয় সদস্য দিদারুল আলমের (চট্টগ্রাম-৪) লিখিত প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসব তথ্য জানান। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিকেল ৫টার পর সংসদের অধিবেশন শুরু হয়। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরো জানান, ২০১১ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত পুলিশ বিভাগে যারা নিয়োগ পেয়েছেন, তাদের মধ্যে এএসপি পদে ৭০২ জন, এসআই (নারী/পুরুষ) ৪ হাজার ১৯৩ জন, পুলিশ সার্জেন্ট পদে (পুরুষ/নারী) ৯২২ জন এবং কনস্টেবল (পুরুষ/নারী) হিসেবে ৪৬ হাজার ৫১৬ জন। এছাড়া গত ৬ সেপ্টেম্বর ১০ হাজার পুলিশ সদস্য নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। নির্ধারিত সময়ে নিয়োগ কার্যক্রম সম্পন্ন হবে।

একইসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সংসদকে জানান, ২০১০-২০১৫ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত বর্ডার গার্ড অব বাংলাদেশ (বিজিবি)-এ সামরিক পদে ২১ হাজার ৭২৪জন এবং অসামরিক পদে ১ হাজার ৭৯৯ জন নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

পুলিশ বিভাগে নিয়োগ দেওয়া পুলিশ সদস্যদের মধ্যে ২০১১ সালে ৮ হাজার ৮৯ জন, ২০১২ সালে ১২ হাজার ৮৩৪ জন, ২০১৩ সালে ৫ হাজার ২ জন, ২০১৪ সালে ৫ হাজার ৭৯৫ জন, ২০১৫ সালে ১০ হাজার জন এবং চলতি ২০১৬ সালের জুলাই পর্যন্ত ১০ হাজার ৬১৩ জনকে (বিভিন্ন পদে) নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

মাদক পাচারের বিজিবি বিএসএফ যৌথ টহল : এম আবদুল লতিফের (চট্টগ্রাম-১১) এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সীমান্ত এলাকা দিয়ে দেশে মাদক অনুপ্রবেশ রোধে সরকার আন্তরিক। মাদক চোরাচালান রোধ বিজিবির অন্যতম এজেন্ডা। সীমান্তের স্পর্শকাতর এলাকা চিহ্নিত করে চোরাচালান রোধকল্পে বিজিবি-বিএসএফ দিবা-রাত্রি যৌথ টহল দিচ্ছে। তিনি আরো জানান, বাংলাদেশের ৪ হাজার ৪২৭ কিলোমিটার সীমান্ত এলাকায় মাদকদ্রব্য অনুপ্রবেশ প্রতিরোধকল্পে বিজিবির ৬৩৮টি বিওপি কাজ করছে। বিওপির মধ্যবর্তী স্থানে ১২৪টি বর্ডার সেন্ট্রি পোস্ট স্থাপিত হয়েছে। সীমান্তের শূণ্য রেখা থেকে ৮ কিলোমিটারের মধ্যে  বিজিবির সার্বক্ষণিক টহল, ব্যাপক তল্লাশী ও নজরদারি বৃদ্ধির ফলে বিপুল পরিমাণ মাদক দ্রব্য আটক হচ্ছে। এছাড়া মাদক পাচারের দায়ে ১ হাজার ৯৬জনকে  আটক করা হয়েছে। ৩৪৫জনকে মোবাইল কোর্টে সাজা প্রদান করা হয়েছে।
 
৮২টি অবৈধ অস্ত্র ও ১ হাজার ১৬০ রাউন্ড তাজা গোলা উদ্ধার: মো. আবদুল্লাহ (লক্ষীপুর-৪) এর এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সংসদকে জানান, কোস্টগার্ড গত অর্থ বছরে ২৭২ জন জলদস্যু/ডাকাত/চাঁদাবাজ আটক করেছে। এসময় ৮২টি অবৈধ অস্ত্র ও ১ হাজার ১৬০ রাউন্ড তাজা গোলা উদ্ধার করেছে। এর আগে ২০১৪-১৫ অর্থ বছরেও কোস্টগার্ড ২৬৩জন জলদস্যু/ডাকাত/চাঁদাবাজ আটক করে। তখন ২৪টি অবৈধ অস্ত্র ও ১ হাজার ২৩০ রাউন্ড তাজা গোলা উদ্ধার করেছে।

বিডি-প্রতিদিন/এস আহমেদ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow