Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৬:২৬ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৬:৩৮
অবশেষে ছয় দিন পর মায়ের লাশ নিয়ে ফিরছেন টোকন
দীপক দেবনাথ, কলকাতা:
অবশেষে ছয় দিন পর মায়ের লাশ নিয়ে ফিরছেন টোকন

কলকাতাস্থ বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশনের ছাড়পত্র নিয়ে ছয় দিন পর আজ শনিবার মা কনিকা সরকারের (৪৩) লাশ নিয়ে দেশে ফিরে আসছেন বাংলাদেশি যুবক টোকন চন্দ্র সরকার। দক্ষিণ দিনাজপুরের হিলি সীমান্ত দিয়ে তিনি বাংলাদেশে প্রবেশ করবেন বলে জানা গেছে।

এরপর সেখান থেকে নিজের বাড়ি দিনাজপুরে নিয়ে গিয়ে কনিকা সরকারের শেষ কৃত্য সম্পন্ন করা হবে।

উল্লেখ্য, গত ২৬ ডিসেম্বর চিকিৎসা করাতে হিলি সীমান্ত দিয়ে মাকে নিয়ে ভারতে যান টোকন। এরপর তামিলনাড়ুর ভেলোরে যান মায়ের চিকিৎসা করাতে। সেখানকার চিকিৎসকরা খুব দ্রুত রোগীর হার্টের অস্ত্রোপচারের পরামর্শ দেন। কিন্তু অস্ত্রোপচার করানোর মতো প্রয়োজনীয় রুপি না থাকায় মাকে নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের বালুরঘাটে মাসির (খালার) বাড়িতে ফিরে আসেন টোকন। মা’কে মাসির বাড়ি রেখে রুপি জোগাড়ের জন্য দেশে ফিরে আসেন। কিন্তু এরই মধ্যে গত ১২ ফেব্রুয়ারি অসুস্থ হয়ে পড়েন কনিকা দেবী। তাকে ভর্তি করানো হয় মালদা মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালে। মায়ের অসুস্থতার খবর শুনে বাংলাদেশ থেকে ভারতে ফিরে যান টোকনও। পরে ১৩ ফেব্রুয়ারি মৃত্যু হয় মায়ের। এরপর স্থানীয় ঠিকানায় ডেথ সার্টিফিকেটও ইস্যু করা হয় হাসপাতাল থেকে। কিন্তু ডেথ সার্টিফিকেটে ভারতের স্থানীয় ঠিকানা উল্লেখ থাকায় হিলি কাস্টমসের তরফে কনিকা সরকারের লাশ বাংলাদেশে নিয়ে আসার ক্ষেত্রে ছাড়পত্র দিতে অস্বীকার করা হয়। এরপর স্থানীয় জেলা প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করেন টোকেন। বিষয়টি সংবাদমাধ্যমে সম্প্রচারিত হওয়ায় জেলা প্রশাসন তৎপর হয়ে ওঠে। এমনকি দক্ষিণ দিনাজপুরের জেলাশাসক সঞ্জয় বসু নিজেই কনিকা সরকারের লাশ বাংলাদেশে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে সক্রিয় ভূমিকা নেন। যোগাযোগ করা হয় মালদা জেলা হাসপাতাল ও বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশনের সঙ্গেও। এরপরই প্রয়োজনীয় নথি সংগ্রহ করে মায়ের লাশ নিয়ে দেশে ফিরে আসছেন টোকন।

এদিকে মায়ের লাশে যাতে পচন না ধরে তার জন্য গত কয়েকদিন ধরে বালুরঘাটের পতিরাম এলাকায় এক আত্মীয়ের বাড়িতে কাঠের বাক্সের মধ্যে কাঠের গুড়ো, বরফ দিয়ে রেখে দেওয়া হয়।

জেলাশাসক জানান, কনিকা সরকারের বৈধ পাসপোর্ট রয়েছে কিন্তু ঠিকানা সমস্যার কারণে মায়ের লাশ ফিরিয়ে নিতে পারছিলেন না ছেলে টোকন বাবু। এরপর আমাদের তরফে সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে, লাশ দেশে ফিরিয়ে নিয়ে যাওযার জন্য বাংলাদেশ হাইকমিশনের সঙ্গেও যোগাযোগ করা হয়েছে এবং সেখান থেকে প্রয়োজনীয় নথি সংগ্রহ করা হয়েছে’।

শনিবার হাইকমিশনের এক কর্মকর্তা জানান, কনিকা সরকারের লাশ যাতে বাংলাদেশে নিয়ে যেতে পারেন সে বিষয়ে আমাদের তরফে প্রয়োজনীয় ছাড়পত্রের নথি শুক্রবারই মৃতের পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে’।


বিডি-প্রতিদিন/এস আহমেদ

আপনার মন্তব্য

up-arrow