Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২০:৫৬ অনলাইন ভার্সন
নির্বাচনের আগেই রংপুরে যাবে গ্যাস: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী
নিজস্ব প্রতিবেদক:
নির্বাচনের আগেই রংপুরে যাবে গ্যাস: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী
সংগৃহীত ছবি

বিদ্যুৎ জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, চলতি বছরেই রংপুর অঞ্চলে গ্যাসের পাইপ লাইনের কাজ শুরু হবে। নির্বাচনের আগেই রংপুরে গ্যাস যাবে ইনশাল্লাহ। 

সংসদের শীতকালীন অধিবেশনে বুধবারের বৈঠকে রাষ্ট্রপতির ভাষণ সম্পর্কিত আনিত ধন্যবাদ প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

এসময় আলোচনায় আরও অংশ নেন, আওয়ামী লীগের যুগ্মসম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ফখরুল ইমাম, বিএম মোজাম্মেল হক, নুরুল ইসলাম সুজন, নাহিম রাজ্জাক, মোহা. গোলাম রাব্বানী, মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, নাজিম উদ্দিন আহমেদ, স্বপন ভট্টচার্য্য প্রমুখ।

এসময় প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ভোলায় নতুন গ্যাসকূপ পাওয়া গেছে। সেখানে ৭০০ বিলিয়ন কিউবিক ফিট গ্যাস পাওয়া যাবে। সেই গ্যাসের প্রেসার হবে ৫ হাজার ৬০০ পিএসআই। যা এযাবৎকালে দেশের গ্যাসের যে প্রেসার রয়েছে, তার সর্বোচ্চ প্রেসার।

নসরুল হামিদ আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের উপর আস্থা থাকায় ইউরোপ এবং জাপান থেকে বিদ্যুৎ খাতে বিনিয়োগে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বিনিয়োগকারীরা। এরইমধ্যে  ইউরোপ থেকে বিদুৎ জ্বালানিতে বিনিয়োগ পেয়েছি প্রায় ৩ বিলিয়ন ডলার। আমাদের স্বাধীনতার ৪৫ বছরে ইতিহাসে এই প্রথম ইউরোপের দেশগুলো বিনিয়োগ চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। জার্মানির সিমন্স কোম্পানি সাড়ে ৩০০ মেগাওয়াট বিদুৎ উৎপাদনের চুক্তি করেছে। চীনের সঙ্গে ৫ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলারে চুক্তি হয়েছে। এই বছরই চীনের অর্থ আসা শুরু করবে।

প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ২০৪০ সালের মধ্য উন্নত বিশ্বের দেশে পরিণত হতে বিদ্যুৎ জ্বালানী খাতে বিনিয়োগ লাগবে ৭১ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার। বর্তমানে ২১ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের কাজ চলছে। আগামি ২০৪০ সালে বিদ্যুতের চাহিদা দাঁড়াবে ৬০ হাজার মেগাওয়াট।

বিদ্যুৎ খাতে প্রতিমন্ত্রী উন্নয়নের কথা বললেও বিরোধী দল জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ফখরুল ইমাম বলেন, প্রতিমন্ত্রী অনেক আসার কথা  শুনিয়েছেন। কিন্তু এখনো নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ আমরা পাই না। এখনো লোডশেডিং হয় যদিও প্রতিমন্ত্রী স্বীকার করেন না।  এসময় তিনি তিনি সংসদে পত্রিকায় প্রকাশিত একটি স্থিরচিত্র দেখিয়ে বলেন, বাসে যে সকল যাত্রী ছিল সবার কাছেই প্রশ্ন ছিল। এপর্যন্ত ৭টি বিষয়ের সব প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে। মঙ্গলবার বিজ্ঞান বিভাগের পদার্থ বিজ্ঞানের প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে। প্রশ্নফাঁসে জন্য এদিন ৩৬ জন গ্রেফতার হয়েছে। প্রশ্নফাঁস পুরো বিষয়টি সরাকরে নাগালের বাইরে। 

এসময় তিনি অভিযোগ করে বলেন, শিক্ষার পদে পদে ঘুষ বাণিজ্য।  নানান নামে নানা কৌশলে টাকা আদায় বিভিন্ন অংকের টাকা লেনদেন হচ্ছে। 

বিডিপ্রতিদিন/ ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮/ ই জাহান

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow