Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২১ আগস্ট, ২০১৮ ১৪:০২ অনলাইন ভার্সন
সিডিউল বিপর্যয়, ট্রেন ছাড়তে কয়েক ঘণ্টা বিলম্ব
অনলাইন প্রতিবেদক
সিডিউল বিপর্যয়, ট্রেন ছাড়তে কয়েক ঘণ্টা বিলম্ব

ঈদে বাড়ি ফিরতে ট্রেন ভ্রমণ নিরাপদ হলেও সিডিউল বিপর্যয়ের কারণে ভোগান্তিতে রয়েছেন যাত্রীরা। রাজশাহী-ঢাকা, খুলনা-ঢাকা ও দিনাজপুর-ঢাকা রুটে ট্রেন চলাচলে সিডিউল বিপর্যয় চলছে। প্রতিটি ট্রেনই ছয় থেকে নয় ঘণ্টা পর্যন্ত বিলম্বে আসা-যাওয়া করছে। এতে করে উত্তরাঞ্চল ও দক্ষিণাঞ্চল থেকে ঢাকাগামী ট্রেনযাত্রীদের পোহাতে হচ্ছে দুর্ভোগ। রেললাইনের পাশ ঘেষেই গরুর হাট, অতিরিক্ত যাত্রী ও ট্রেন ক্রসিংজনিত কারণেই সিডিউল বিপর্যয় হচ্ছে বলে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ বলছে।

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন সূত্রে জানা গেছে, ট্রেনে সিডিউল বিপর্যয়ের ফলে সোমবার সকাল থেকে বেশিরভাগ ট্রেন ছাড়তে কয়েক ঘণ্টা করে বিলম্ব হচ্ছে। যার ফলে রাজধানীর কমলাপুর ও বিমানবন্দর রেলস্টেশনে যাত্রীদের তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। বেশিরভাগ ট্রেনই দেরিতে ছেড়েছে। এতে যাত্রী দুর্ভোগ চরমে ওঠে। ট্রেনের টিকিট না পেয়ে অনেক যাত্রী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ছাদে, ইঞ্জিনের সামনে, দরজার হাতলে ঝুলে বাড়ির পথে রওনা দেন।

আজ সোমবারের ট্রেনের সূচি অনুযায়ী, সকাল ৬টায় কমলাপুর থেকে দিনের প্রথম আন্তঃনগর ট্রেন ধূমকেতু এক্সপ্রেস রাজশাহীর উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেটি ছেড়ে যায় এক ঘণ্টা দেরিতে, সকাল ৭টার পর। খুলনাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেস সকাল ৬টা ২০ মিনিটে ছাড়ার কথা থাকলেও সেটি সকাল ৮টা ৫০ মিনিটে স্টেশন ছাড়ে।

চিলাহাটির নীলসাগর এক্সপ্রেস সকাল ৮টায় কমলাপুর ছাড়ার কথা, তবে ট্রেনটি স্টেশনেই আসে বেলা ১০টা ৫ মিনিটে, ছেড়ে যায় ১০টা ৫৫ মিনিটে। বেলা ৯টার রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেন বেলা এগারোটা পর্যন্ত প্ল্যাটফর্মে আসেনি। দিনাজপুরের এক্সপ্রেস সকাল ১০টায় কমলাপুর ছাড়ার কথা থাকলেও সেটি পৌনে ১১টায় কমলাপুরে এসে বেলা ১১টায় স্টেশন ছেড়ে যায়।

লালমনিরহাট ঈদ স্পেশাল ট্রেন ছাড়ার কথা বেলা ৯টা ১৫মিনিটে। তবে বেলা ১১টা পর্যন্ত সেটি স্টেশনেই আসেনি। রেলওয়ে বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে ট্রেনটি ছাড়ার সম্ভাব্য সময় দিয়েছে। ঢাকা-চিলাহাটি রুটের নীলসাগর ট্রেনের কমলাপুর ছেড়ে যাওয়ার কথা সকাল ৮টায়। দুই ঘণ্টা ৫ মিনিট দেরি করে বেলা ১০টা ৫ মিনিটে ট্রেনটি কমলাপুরের প্ল্যাটফর্মে আসে। দীর্ঘসময় অপেক্ষায় থাকা যাত্রীরা ট্রেনে ওঠার জন্য হুড়োহুড়ি শুরু করেন।


বিডি প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত তাফসীর

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow