Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৫:১১ অনলাইন ভার্সন
খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও মুক্তির দাবি ঢাবির শতাধিক শিক্ষকের
নিজস্ব প্রতিবেদক
খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও মুক্তির দাবি ঢাবির শতাধিক শিক্ষকের

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে বিশেষায়িত হাসপাতালে দ্রুত সুচিকিৎসার ব্যবস্থা এবং তাঁর নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএনপিপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দল। 

বুধবার বেলা ১২টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে এই মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। সাদা দলের আহ্বায়ক ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম আহ্বায়ক ড. লুৎফর রহমানের পরিচালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক ড. সদরুল আমিন, ড. মো. অাকতার হোসেন খান, ড. সিরাজুল ইসলাম, ড. সুকোমল বড়ুয়া, ড. মো. ছিদ্দিকুর রহমান খান, ড. মহিউদ্দিন।

এছাড়াও মানববন্ধনে অংশ নেন সাদা দলের যুগ্ম আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মোর্শেদ হাসান খান, ড. মো. আবদুর রশিদ, ড. মো. আশরাফুল ইসলাম চৌধুরী, ড. মো. মুজাহিদুল ইসলাম, মো. আতাউর রহমান বিশ্বাস, ড. মো. মাসুদ আলম, আলমগীর হোসেন সম্রাট, ইস্রাফিল প্রামাণিক রতন, আল আমিন, ড. মো. শামছুল আলম, ড. মহিউদ্দীন, ড. এবিএম শহীদুল ইসলাম, নূরূল আমিন, এহসানুল মাহবুব যোবায়ের, মো. মিজানুর রহমানসহ শতাধিক শিক্ষক।

সভাপতির বক্তব্যে ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলাম বলেন, দেশ আজ গভীর সঙ্কটে নিপতিত। বাক স্বাধীনতা নেই। হামলা মামলা ও দুঃশাসনের রাজনীতি চলছে। গণতন্ত্র নেই। তারই উদাহরণ দেশের সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া মিথ্যা মামলায় কারাগারে বন্দি। আমরা তার নিঃশর্ত মুক্তি বিশেষায়িত হাসপতালে চিকিৎসা দেয়ার দাবি জানাই। আর একমাস পর দেশের বর্তমান অবস্থা থাকবে বলে মনে হয় না। তাই সংসদ ভেঙে দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ করে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের ব্যবস্থা করুন।

ড. সদরুল আমিন বলেন, সম্পূর্ণ মিথ্যা মামলায় খালেদা জিয়াকে সাজা দিয়ে কারাবন্দী করা হয়েছে। আমি তার অবিলম্বে মুক্তি ও তার পছন্দমাফিক হাসপাতালে সুচিকিৎসা দেয়ার দাবি জানাই।

ড. আক্তার হোসেন খান বলেন, আমরা কোনো রাজনৈতিক দলের অঙ্গ সংগঠন নই। যেখানে অন্যায় দেখি সেখানেই আমরা প্রতিবাদ প্রতিরোধের চেষ্টা করি। আজ খালেদা জিয়া একজন বয়স্ক নারী, যিনি সাবেক প্রধানমন্ত্রী। মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে তাকে কারাবন্দী করা হয়েছে। এটা জুলুম। আমরা মানবিক কারণে খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবি করছি। তাকে তার পছন্দের হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করুন। সেইসাথে দেশে নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিতকরণের দাবি জানাই। হামলা মামলা বন্ধ করে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের ব্যবস্থা করুন।

ড. সিরাজুল ইসলাম বলেন, সরকার আবারো যেনতেনভাবে নির্বাচন করার জন্যই খালেদা জিয়াকে বন্দি করেছে মিথ্যা মামলায়। তিনি অসুস্থ। আজকে পুলিশ মৃত ব্যক্তিকেও মিথ্যা মামলায় আসামি করছে। কিন্তু দেশবাসী এই গণতন্ত্র চায় না। অবিলম্বে এসব বন্ধ করে দেশনেত্রীকে মুক্তি দিন, দেশে শান্তিময় পরিবেশ তৈরি করুন। অবিলম্বে খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবি করছি।

ড. সুকোমল বড়ুয়া বলেন, আজকে খালেদা জিয়ার মুক্তি ও চিকিৎসার জন্য মানববন্ধন করতে হয়। কারণ তিনি সাবেক প্রধানমন্ত্রী। কারাগারে খুবই অসুস্থ। আমি প্রতিহিংসার রাজনীতি বন্ধ করে তার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছি। নির্বাচনের আগেই তার মুক্তি চাই, যাতে তিনি ভোটে অংশগ্রহণ করতে পারেন।

ড. মোহাম্মদ ছিদ্দিকুর রহমান খান বলেন, একটি মিথ্যা মামলায় বেগম খালেদা জিয়াকে সাজা দিয়ে কারাবন্দী করা হয়েছে। আজ আট মাস ধরে তিনি কারাবন্দী। ভীষণ অসুস্থ। এরইমধ্যে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলা পরিচালনার জন্য অসাংবিধানিকভাবে কারাগারে আদালত বসানো হয়েছে। তবে তিনি কিন্তু মনোবল হারাননি। আমরা অবিলম্বে তার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছি এবং বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়ার অনুরোধ করছি।

বিডি-প্রতিদিন/১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮/মাহবুব

আপনার মন্তব্য

up-arrow