Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : রবিবার, ১২ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১২ জুন, ২০১৬ ০১:৪৪
‘ট্রাফিক আইন ভাঙলে ব্যবস্থা’
নিজস্ব প্রতিবেদক

ট্রাফিক আইন ভাঙলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এমনকি এ ক্ষেত্রে যদি পুলিশ সদস্যও হন তবু তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গতকাল ডিএমপি সদর দফতরে মাসিক ক্রাইম কনফারেন্সে এ কথা বলেন ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া। ছয় ঘণ্টাব্যাপী ক্রাইম কনফারেন্সে ডিএমপির সব থানার ওসি, আট বিভাগের ডিসিসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ধর্মযাজক, পুরোহিত ও প্রগতিশীল ব্যক্তিদের ওপর নানা ধরনের হামলা হচ্ছে। এ ছাড়া পুলিশ সদস্যদের ওপর অজ্ঞাতনামা সন্ত্রাসীরা নানা ধরনের হামলা করছে। এ কারণে পুলিশ সদস্যদের আবাসস্থলের নিরাপত্তা জোরদারসহ সংশ্লিষ্ট থানার মোবাইল ও ফুট পেট্রোল জোরদার করতে পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন তিনি।

পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশে ডিএমপি প্রধান বলেন, ‘আমি ডিএমপিকে সেরা ইউনিট হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। এ জন্য প্রয়োজন আপনাদের আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালনসহ জনগণের সঙ্গে সুসম্পর্ক স্থাপন করা। আর এ ক্ষেত্রে বিট পুলিশিংয়ের মাধ্যমে জনগণের সঙ্গে সুসম্পর্কের বিকল্প নেই। আমরা প্রমাণ করতে চাই মামলা তদন্তে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ও জনবান্ধব পুলিশিংয়ে ডিএমপি সেরা। ’

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ঈদ সামনে রেখে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। চাঁদাবাজ ও সন্ত্রাসীদের ধরতে অভিযান চলছে। অধিক টাকা লেনদেনের ক্ষেত্রে মানি স্কট দেওয়া হবে। চেকপোস্ট ও প্রয়োজনে ব্লক রেড দেওয়া হবে। মার্কেটকেন্দ্রিক পোশাকধারী ও সাদা পোশাকে নিরাপত্তা থাকবে। ট্রাফিক ব্যবস্থা ঠিক রাখতে রাস্তায় হকার বসতে দেওয়া হবে না। হিজড়াদের উৎপাত রুখতে তাদের সঙ্গে শিগগিরই বৈঠক করা হবে। অজ্ঞান ও মলম পার্টির বিরুদ্ধে সচেতনতা সৃষ্টি করতে ক্যাম্পেইন করা হবে। ’

অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম জঙ্গি কার্যক্রম ও এর বিস্তৃতি সম্পর্কে উপস্থিত সবাইকে অবহিত করেন। পাশাপাশি তিনি জঙ্গিদের প্রতি সতর্ক দৃষ্টি রাখার জন্য পরামর্শ দেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow