Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : সোমবার, ২০ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২০ জুন, ২০১৬ ০০:০৮
৩ মাসেও অধরা তনুর খুনিরা
মহিউদ্দিন মোল্লা, কুমিল্লা
৩ মাসেও অধরা তনুর খুনিরা

তিন মাস হয়ে গেলেও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ছাত্রী সোহাগী জাহান তনুর খুনিরা অধরা রয়েছে। এতে কুমিল্লার সচেতন মানুষ দারুণ ক্ষুব্ধ।

এদিকে সিআইডির সূত্র দাবি করছে, বিশেষ এলাকা না হলে সন্দেহভাজনদের গ্রেফতার কিংবা ডিএনএ টেস্ট করা যেত। এ হত্যাকাণ্ডের দ্বিতীয় ময়নাতদন্তকারী বোর্ডের প্রধান ডা. কামদা প্রসাদ সাহা গত ১২ জুন কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে বলেন, মৃত্যুর ১০ দিন পর মরদেহ ময়নাতদন্ত করায় তার শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন আছে কিনা- তা শনাক্ত করতে পারেনি বোর্ড। কারণ ততদিনে তার শরীর পচে গেছে। দ্বিতীয় ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে তনুর মৃত্যুর কারণ উল্লেখ করা হয়নি। মৃত্যুর সঠিক কারণ উদঘাটন করতে পুলিশকে অধিকতর তদন্তসহ পারিপার্শ্বিকতা তদন্ত করতে পরামর্শ দিয়েছে মেডিকেল বোর্ড। এছাড়া ধর্ষণের কথা বলা না হলেও মৃত্যুর আগে যৌন সংসর্গের কথা বলা হয়েছে।   অপরদিকে তনুর মা আনোয়ারা বেগম দ্বিতীয় ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন মিথ্যা বলে দাবি করে বলেন, ‘এ রিপোর্ট মিথ্যা। রিপোর্ট যদি মিথ্যা না হয় তাহলে তদন্তকারীরা কিভাবে বলল যে আমার মেয়ের যৌন সম্পর্ক ছিল। আমি বার বার বলেছি আমার মেয়ের শরীরে আঘাতের চিহ্ন ছিল। আমার মেয়ের নাকে আঘাত, মাথায় আঘাত, শরীরে বুটের পায়ের দাগ, বুটের পারায় পায়ের রানের মাংস থেতলে ছিল। কিন্তু ডাক্তাররা কোনো মৃত্যুর কারণ খুঁজে পায়নি। প্রথম ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক ডা. শারমিন সুলতানা ভুল রিপোর্ট দিয়েছিলেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow