Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : রবিবার, ২৬ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৫ জুন, ২০১৬ ২৩:২৫
স্বাস্থ্য প্রতিদিন
কোমরে লাম্বার স্পন্ডাইলোসিসথেসিস
কোমরে লাম্বার স্পন্ডাইলোসিসথেসিস

মেরুদণ্ডের কাশেরুকাগুলো একটি স্বাভাবিক অবস্থানে থাকে যখন এ অবস্থান থেকে একটি বা দুটি কাশেরুকা সরে যায় তখন এ অবস্থাকে স্পন্ডাইলোসিসথেসিস বলা হয়। এটি সাধারণত আমাদের লাম্বার স্পাইন বা কোমরে বেশি হয়।

এল-৫ এবং এল ৫-এস, লেভেলে বেশি দেখা যায়। এটি মহিলা ও পুরুষ উভয়েরই হতে পারে, তবে পুরুষের তুলনায় মহিলারা এ সমস্যায় বেশি ভুগে থাকেন। লাম্বার স্পাইনের ক্ষয়জনিত কারণে এই কাশেরুকার স্থানচ্যুতি ঘটে।

আঘাতজনিত কারণ, যেমন-উপর থেকে পড়লে, পিছলা খেয়ে পড়লে, ভারী কিছু উঠাতে গেলে ইত্যাদি। এছাড়া কারও কারও ক্ষেত্রে জন্মগত মেরুদণ্ডের ত্রুটি থেকে হতে পারে।

উপসর্গ : কোমর ব্যথা ব্যথা, কোমর থেকে পায়ের দিকে যায়,

পায়ে ঝিন ঝিন বা অবশ অবশ মনে হয়।   রোগী বেশিক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে পারেন না বা বেশিক্ষণ হাঁটাহাঁটি করতে পারেন না।

বিশ্রামে বা বিছানায় শুয়ে থাকলে তেমন ব্যথা থাকে না কিন্তু দাঁড়িয়ে থাকলে বা হাঁটাচলা করলে ব্যথা বৃদ্ধি পায়। পা দুর্বল হয়ে আসে, অনেক ক্ষেত্রে পায়ের মাংসপেশি শুকিয়ে আসে।

চিকিৎসা : এ রোগটিকে তিন ভাগে ভাগ করা হয় গ্রেড-I, গ্রেড-II এবং গ্রেড-III প্রথম দুটি গ্রেডের ক্ষেত্রে ওষুধের পাশাপাশি বিশ্রাম ও সঠিক ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা নিয়ে সম্পূর্ণ সুস্থ হওয়া সম্ভব কিন্তু গ্রেড-III এর ক্ষেত্রে সার্জিক্যাল চিকিৎসার প্রয়োজন পড়ে।

ডা. এম. ইয়াছিন আলী

চেয়ারম্যান ও চিফ কনসালটেন্ট, ঢাকা সিটি ফিজিওথেরাপি হাসপাতাল, ধানমণ্ডি, ঢাকা।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow