Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : রবিবার, ১৭ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৬ জুলাই, ২০১৬ ২৩:৫৯
ঝুঁকিতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম
হাইড তথ্যে যোগাযোগ রক্ষা করছে জঙ্গিরা
নিজস্ব প্রতিবেদক

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে হাইড কমেন্টযুক্ত ছবি পোস্ট করে নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ ও তথ্য সরবরাহ করছে জঙ্গি ও অপরাধী চক্রের সদস্যরা; যা সাধারণভাবে যে কারও পক্ষে দেখা বা জানা সম্ভব হচ্ছে না। সাইবার বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট করা জঙ্গিদের বিশেষ কোনো ছবিতে কেউ আবেগবশত লাইক কিংবা শেয়ার করলে দুষ্কৃতকারীদের তথ্য নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছে যাচ্ছে। এ কৌশল ও ব্যবহারিক কারণে বর্তমান সময়ে সাইবার অপরাধে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি দেশের সংবাদকর্মীরাও সবচেয়ে ঝুঁকিতে রয়েছেন। তাই এ বিষয়ে সবাইকে সচেতন থাকা অনেক বেশি জরুরি। গতকাল কাকরাইলে ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশের (আইডিইবি) সেমিনারকক্ষে আয়োজিত এক কর্মশালায় এসব তথ্য জানিয়েছেন সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা। জাদুকর আইটির সহযোগিতায় ‘সাইবার অপরাধ সচেতনতা ও অনুসন্ধান’ শীর্ষক এ কর্মশালা সাইবার ক্রাইম অ্যাওয়ারনেস (সিসিএ) ফাউন্ডেশন ও আইডিইবি যৌথভাবে আয়োজন করে। এতে বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা অংশ নেন। সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা জানান, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোয় অপরিচিত আইডি থেকে বিভিন্ন ধরনের ছবি, বিশেষ করে ধর্মীয় আবেগতাড়িত ছবি পোস্ট করা হয়। যেখানে ছবির পাশাপাশি কিছু তথ্য দেওয়া হয়। যে কারও পক্ষে তা খালি চোখে দেখা বা জানা সম্ভব হয় না।

 পোস্টটি যিনি করেন তিনি যার কাছে তথ্য পাঠাতে চান, এটি তাদের দুই পক্ষের মধ্যে নির্দিষ্ট একটি সফটওয়্যারের মাধ্যমে সংযোগ সৃষ্টি করে। বিশেষজ্ঞরা জানান, ওই সফটওয়্যারের মাধ্যমেই ছবি ফিল্টারিংয়ের সাহায্যে তারা হাইড তথ্য আদান-প্রদান করে। কর্মশালায় আইডিইবির সাধারণ সম্পাদক শামসুর রহমান, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ, ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) সাবেক সভাপতি খায়রুজ্জামান কামাল, সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ মেহেদী হাসান ও আইনজীবী তানভীর হাসান জোহা উপস্থিত ছিলেন।

up-arrow