Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৯ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৮ জুলাই, ২০১৬ ২৩:৪০
সংসদে প্রশ্নোত্তর
দেশে বড় ধরনের ভূমিকম্পের আশঙ্কা নেই : মায়া
নিজস্ব প্রতিবেদক

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেছেন,  বাংলাদেশে বড় ধরনের ভূমিকম্পের আশঙ্কা খুব কম। ভূমিকম্প নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।

তিনি বলেন, ভূমিকম্প মোকাবিলায় আমরা পুরোপুরি প্রস্তুত আছি। সংসদে প্রশ্নোত্তরে গতকাল নুরজাহান বেগমের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন। তিনি বলেন, বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন ৯ অথবা ১০ মাত্রার ভূমিকম্প হবে। যদি তা হয় তাহলে পৃথিবী সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে যাবে। তবে এটুকু বলতে চাই আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। তিনি বলেন, ভূমিকম্পের পূর্বাভাস দেওয়ার মতো প্রযুক্তি এখন পর্যন্ত পৃথিবীতে নেই।

চলতি বছর বজ পাতে মৃতের সংখা ১৯২ : সেলিনা বেগমের এক প্রশ্নের জবাবে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনামন্ত্রী বলেন, চলতি বছর এ পর্যন্ত বজ পাতে ১৯২ জন মারা গেছে। নিয়মানুযায়ী বজ পাতে মৃত প্রতি ব্যক্তির পরিবারকে ২০ হাজার থেকে ২৫ হাজার টাকা (জিআর ক্যাশ) দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হয়। এ ছাড়া বজ পাতে আহত ব্যক্তির চিকিৎসার জন্য নিম্নে পাঁচ হাজার থেকে ঊর্ধ্বে ১৫ হাজার টাকা জেলা প্রশাসন (জিআর ক্যাশ) হতে বিতরণ করা হয়।

দেশে কোনো খাদ্য ঘাটতি নেই । হাবিবুর রহমান মোল্লার (ঢাকা ৫) অপর এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর আঘাতে উপকূলীয় ১৫ জেলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে ৬ জন লোক নিহত হয়। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার জনসাধারণের মধ্যে ৫ হাজার ৬৮২ মেট্রিক টন চাল এবং এক কোটি ৮১ লাখ ৪২ হাজার ৫০০ টাকার থোক বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

 

দেশে খাদ্য মজুদ ৮ লাখ ৩০ হাজার মেট্রিক টন : হাবিবুর রহমান মোল্লার আরেক প্রশ্নের জবাবে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেন, চলতি বছরের ১০ জুলাই পর্যন্ত দেশে খাদ্য মজুদের পরিমাণ ৮ লাখ ৩০ হাজার মেট্রিক টন। এর মধ্যে চাল ৪ লাখ ৯১ হাজার ও গম ৩ লাখ ৩৯ হাজার মেট্রিক টন। সরকারি গুদামে এসব খাদ্যশস্য মজুদ থাকার কারণে যেকোনো বিরূপ পরিস্থিতি মোকাবিলা করা সম্ভব হবে এবং আপাতত দেশে কোনো খাদ্য ঘাটতি নেই বলেও জানান খাদ্যমন্ত্রী।

তিনি জানান, বাজারমূল্য স্থিতিশীল ও নিয়ন্ত্রণ রাখাসহ বাজারে খাদ্যশস্য সহজলভ্য করার জন্য সরকার ওএমএস খাতে চাল ও গম (আটা) বিতরণ করে থাকে। এ ছাড়া ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে প্রায় ৫০ লাখ নিম্নআয়ের মানুষকে খাদ্য সহায়তা দেওয়ার লক্ষ্যে সুলভমূল্য কার্ড বিতরণ করা হয়েছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow