Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বুধবার, ২০ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৯ জুলাই, ২০১৬ ২৩:৩২
আনোয়ারা উপকূলে অর্ধশত কোটি টাকার ইয়াবা আটক
নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

কোস্টগার্ড পূর্ব জোনের স্টেশন সাঙ্গু পৃথক দুটি অভিযান চালিয়ে আনোয়ারা উপজেলার গহিরা উপকূল থেকে ১০ লাখ ইয়াবা উদ্ধার ও দুজনকে নগদ ১৩ লাখ ৮৬৭ টাকাসহ আটক করেছে। আটক করা ইয়াবার বাজার মূল্য আনুমানিক অর্ধশত কোটি টাকা বলে জানান কোস্টগার্ড পূর্ব জোনের কমান্ডার ক্যাপ্টেন শহীদুল ইসলাম। চলতি বছরে এটাই ইয়াবার আটককৃত বড় চালান। এ অভিযানে বিজিবি ও স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনও সহায়তা করেছে বলে জানা গেছে।

কোস্টগার্ড সূত্রে জানা গেছে, তাদের অভিযান শুরু হয় সোমবার সন্ধ্যায় ৭টায়। এ সময় আনোয়ারা থানার দোভাষী বাজারসংলগ্ন বেড়িবাঁধ হতে একটি ব্যাগ ভর্তি ৫০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ২টি মোবাইল সেট এবং নগদ ১৩ হাজার ৮৬৭  টাকাসহ দুজন পাচারকারীকে আটক করা হয়। আটকরা হলো- দয়াল কৃষ্ণ (৪০), পিতা- গোপাল কৃষ্ণ, সীতাকুণ্ড ও মোহাম্মদ হোসেন (৫৫), পিতা- মৃত মোহাম্মদ আলী, টেকনাফ, কক্সবাজার।

এদিকে মঙ্গলবার কোস্টগার্ডের পূর্ব জোনের সদর দফতরে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে জোনাল কমান্ডার ক্যাপ্টেন শহীদুল ইসলাম বলেন,  সোমবার দুপুর ১২টায় সিজি স্টেশন সেন্টমার্টিন হতে কোস্টগার্ড পূর্ব জোনে গোপন সংবাদ আসে মিয়ানমার থেকে একটি বোট বিপুল পরিমাণ ইয়াবার চালান নিয়ে চট্টগ্রাম যাওয়ার উদ্দেশে শাহপরীর দ্বীপের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। বেলা দেড়টায় বিজিবি-২ নম্বর ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল আবুজার আল জাহিদ কোস্টগার্ডকে জানান, সন্দেহজনক বোটটিকে বিজিবির টহল দল ধাওয়া করলে বোটটি গভীর সমুদ্রের দিকে পালিয়ে যায়। এরপর কোস্টগার্ডের সাবস্টেশন/আউটপোস্টে অ্যালার্ট জারি করা হয় এবং ওই বোটটিকে আটকের উদ্দেশে টহল জোরদার করার নির্দেশনা প্রদান করা হয়। এ ছাড়া চট্টগ্রামের একটি বিশেষ টহল দল বহির্নোঙর, সাঙ্গু গ্যাসফিল্ড ও তত্সংলগ্ন এলাকায় তল্লাশি অভিযান পরিচালনা করতে থাকে। সাঁড়াশি অভিযানের ফলে পাচারকারীরা সোমবার রাতে আনোয়ারার গহিরা উপকূলের দিকে পালিয়ে আসে। উপকূলের কাছাকাছি গিয়ে পাচারকারীরা বোটটিকে ডুবিয়ে দিতে তার তলদেশ ছিদ্র করে পারকি সৈকতের কাছে সাগরে ঝাঁপ দিয়ে পালিয়ে যায়। সোমবার রাত সাড়ে ১১টায় বোটটিতে তল্লাশি চালিয়ে ৫টি বস্তায় ভর্তি ৯ লাখ ৫০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করে।

কোস্টগার্ড পূর্ব জোনের লেফটেন্যান্ট কমান্ডার জুলহাস ফয়সাল জানান, দুটি অপারেশনে ১০ লাখ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করা হয়। যার আনুমানিক মূল্য ৫০ কোটি ৫ লাখ টাকা। প্রথম অভিযানে আটক দুই পাচারকারীকে ৫০ হাজার ইয়াবাসহ ইতিমধ্যে আনোয়ারা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে এবং জব্দকৃত দ্বিতীয় অভিযানে জব্দ ৯ লাখ ৫০ হাজার ইয়াবা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরে হস্তান্তর প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow