Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : বুধবার, ২০ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৯ জুলাই, ২০১৬ ২৩:৩২
গলায় বঁটি ধরে শিশুকে ১০ ঘণ্টা জিম্মি
নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

সদর উপজেলা ফতুল্লায় নয় বছরের এক শিশুকে ধারালো বঁটির ভয় দেখিয়ে জিম্মি করে রাখেন এক নারী। স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ সাড়ে ১০ ঘণ্টা চেষ্টার পর গতকাল সকাল সাড়ে ১১টায় শিশুটিকে সুস্থ অবস্থায় উদ্ধার ও ওই নারীকে আটক করে।

শিশুটির নাম বিপনতি (৯)। সে পাগলা শাহীবাজার আমতলা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২য় শ্রেণির ছাত্রী ও এলাকার রিপনের মেয়ে। আটক নারী সুরাইয়া (২৮) শরীয়তপুরের নড়িয়া মূলফতগঞ্জ গ্রামের হাবিবুর রহমানের মেয়ে এবং টাঙ্গাইলের চরপৌলী গ্রামের জয়নাল আবেদীন রাজার স্ত্রী। সুরাইয়া সিদ্ধিরগঞ্জ চিটাগং রোড এলাকায় মদিনা চক্ষু হাসপাতালে চাকরি করতেন। ফতুল্লা মডেল থানার এসআই গোলাম মোস্তফা জানান, সোমবার রাত ১০টায় পাগলা শাহীবাজার আমতলায় টহলের সময় নুরুল হকের চায়ের দোকানের সামনে সুরাইয়া জানায়, সে চাচা-চাচির খোঁজে এখানে এসেছেন। অনেক খোঁজাখুঁজি করে চাচার ঠিকানা পাইনি। রাত ৩টায় চা দোকানদার নুরুল হক সুরাইয়াকে নিয়ে যায় ও বিপনতির সঙ্গে থাকতে দেয়। এ সময় সুরাইয়া তার ব্যাগ থেকে তালা বের করে দরজায় লাগিয়ে বঁটি বের করে শিশুর গলায় ধরে রাখেন এবং নুরুল হক ও তার স্ত্রী নিলুফাকে বাড়ি ছেড়ে চলে যেতে বলেন। এতে নুরুল হক ও তার স্ত্রীর চিৎকারে লোকজন ছুটে এসে শিশুটিকে উদ্ধারের চেষ্টা করেন। পরে স্থানীয়রা থানায় খবর দেয়। পুলিশ গিয়েও জিম্মিদশা থেকে শিশুটিকে মুক্ত করতে পারেননি। পরে দরজা কেটে পুলিশ ঘরের ভিতরে প্রবেশ করলে সুরাইয়া শিশুটিকে ছেড়ে দিয়ে নিজের গলায় বঁটি ঠেকিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। এ সময় পুলিশ বঁটি কেড়ে নিয়ে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। ফতুল্লা মডেল থানার ওসি কামাল উদ্দিন জানান, ধারণা করা হচ্ছে সুরাইয়া মানসিক ভারসাম্যহীন। তার স্বজনদের খোঁজ নেওয়ার চেষ্টা চলছে।

up-arrow