Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:২০
সীমান্তে সন্ত্রাসীদের ব্যাপক চাঁদাবাজি
আটকে আছেন গরু ব্যবসায়ীরা
নিজস্ব প্রতিবেদক

সন্ত্রাসীদের চাঁদাবাজির কারণে চাঁপাইনবাবগঞ্জ, মুর্শিদাবাদসহ বিভিন্ন সীমান্তে গরু ব্যবসায়ীরা আটকে আছে বলে অভিযোগ করেছেন সীমান্তের গরু ব্যবসায়ীরা। এতে কোরবানির ঈদে পশুর সংকট দেখা দিতে পারে বলেও জানান তারা।

গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে গরু ব্যবসায়ী আবদুস সামাদ এ অভিযোগ করেন। এতে গরু ব্যবসায়ীদের মধ্যে মাজিদুল ইসলাম, জহির রায়হান, ওমর ফারুক, জালাল বিশ্বাস, নুরুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। আবদুস সামাদ বলেন, ভারতের মুর্শিদাবাদ ও বাংলাদেশের চাঁপাইনবাগঞ্জ সীমান্তের জিরো পয়েন্টে ১৩ লাখ গরু দেশে প্রবেশের অপেক্ষায় আছে। কিন্তু স্থানীয় ক্ষমতাশালী একাধিক গ্রুপ ও প্রশাসনের চাঁদাবাজির কারণে এসব গরু আনা যাচ্ছে না। তিনি বলেন, সীমান্তে চাঁদাবাজদের পৃথক প্রায় ১০ গ্রুপ রয়েছে। প্রতিটি গরু আমদানি করলে তাদের আড়াই হাজার টাকা চাঁদা দিতে হয়। এভাবে ১০টি গ্রুপকে মোট ২৫ হাজার টাকা চাঁদা দিয়ে দেশে গরু প্রবেশ করালে দাম দ্বিগুণ হয়ে যায়। তিনি বলেন, দেশের খামারিদের মাধ্যমে উৎপাদিত গরুতে কোরবানির ৪০ শতাংশ ?চাহিদা পূরণ হয়। যদি চাঁদাবাজি বন্ধ না হয় তবে এবারের ঈদে ৫০ হাজার টাকার একটি গরুকে ৮০ হাজার টাকা দিয়ে কিনতে হবে বলেও জানান তিনি। চাঁদাবাজি ঠেকাতে সীমান্তে যে পরিমাণ টহল দেওয়া হয় তা পর্যাপ্ত নয়। বিজিবির টহল আরও জোরদার করার দাবি জানান তিনি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow