Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, বুধবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : রবিবার, ১২ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১২ মার্চ, ২০১৭ ০২:১৩
গ্যাসের দাম বাড়িয়ে সরকার যা পাবে জনগণ হারাবে বেশি
আনু মুহাম্মদ
নিজস্ব প্রতিবেদক

এলপিজি ও এলএনজিকে লাভজনক করতে সরকার গ্যাসের দাম বৃদ্ধি করেছে বলে মন্তব্য করেছেন তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা কমিটির সদস্যসচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ। গ্যাস সংকটের দোহাই দিয়ে বিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম বাড়াতে সরকার দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।

কিন্তু যে কয় টাকা সরকার এ খাত থেকে পাবে তার চেয়ে অনেক বেশি টাকা জনগণের পকেট থেকে চলে যাবে। গতকাল রাজধানীর মুক্তি ভবনের প্রগতি সম্মেলনকক্ষে ‘বাংলাদেশের গ্যাসসম্পদ, জাতীয় সক্ষমতা ও জ্বালানি খাতে সরকারি নীতি’বিষয়ক এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব বলেন। জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক প্রকৌশলী শেখ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ এতে সভাপতিত্ব করেন। অনুষ্ঠানে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মোশাহিদা সুলতানা।

সভায় অধ্যাপক বদরুল ইমাম বলেন, চমক দেখাতে গ্যাস কূপ খননের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বাপেক্সকে অকার্যকর দেখাতে এই উদ্যোগ। তিনি আরও বলেন, নীতিগত দুর্বলতার কারণে কখনো বাপেক্সকে কার্যকর করা যায়নি। বছরে ১০টি করে কূপ খননের মধ্য দিয়ে যে চমক সৃষ্টি করা হচ্ছে তা ভবিষ্যৎ জ্বালানি খাতের জন্য বিপজ্জনক বলে তিনি মন্তব্য করেন। হঠকারী একটি সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে বাপেক্সকে বিপদে ঠেলে দিয়ে একে ব্যর্থ প্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিণত করার ‘রিস্ক’ নেওয়া হচ্ছে।

শুধু চমক তৈরির জন্য এ ধরনের কর্মকাণ্ড করা উচিত নয়। এতে দেশের ক্ষতি হবে।

অধ্যাপক ড. আনু মুহাম্মদ বলেন, গ্যাস তহবিলে জমা হওয়া ১৫ হাজার কোটি টাকার কোনো হদিস নেই। আন্তর্জাতিক বাজারের দোহাই দেখিয়ে বাড়ানো হয়েছে গ্যাসের দাম।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow