Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, বুধবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : রবিবার, ১২ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১২ মার্চ, ২০১৭ ০২:১৭
জাটকা সপ্তাহের উদ্বোধন
ইলিশ রক্ষায় ৯০০ কোটি টাকার প্রকল্প
নিজস্ব প্রতিবেদক

জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহ-২০১৭-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে গতকাল মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হক জানিয়েছেন, জাতীয় মাছ ইলিশ রক্ষায় সরকার ৯০০ কোটির টাকার একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে কারেন্ট ও বেহুন্দি জালসহ অবৈধ জাল পোড়ানো হবে।

তিনি গতকাল দুপুরে রাজধানীর মৎস্য ভবনে এ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন। জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহে এবারের প্রতিপাদ্য বিষয়, ‘জাটকা ইলিশ ধরব না, দেশের ক্ষতি করব না’।

 এ অনুষ্ঠানে বলা হয়, জাটকা সংরক্ষণে দেশের মৎস্যবাজারগুলোতে ঝটিকা অভিযান চালানো হবে। সরকারের ভ্রাম্যমাণ আদালত এসব অভিযান পরিচালনা করবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব মাকছুদুল হাসান খান, মহাপরিচালক  সৈয়দ আরিফ আজাদ ও বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. সৈয়দ ইয়াহিয়া মাহমুদ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকাসহ ইলিশ সমৃদ্ধ নদী অববাহিকার ৫ লক্ষাধিক  জেলের জীবন ও জীবিকা বহুলাংশে ইলিশের ওপর নির্ভরশীল। এজন্য প্রতিবছর জাটকা ইলিশ আহরণ নিষিদ্ধ সময়ে সরকার প্রায় ২ লাখ ৩৬ হাজার জেলে পরিবারকে খাদ্য সহায়তা প্রদান করছে। জেলেদের জন্য প্রদেয় প্রণোদোনা প্রাপ্তি বাবদ এ পর্যন্ত প্রায় ১৪ লাখ জেলেকে পরিচয়পত্র প্রদান করা হয়েছে। তিনি জানান, ইলিশ রক্ষা করতে চলতি বছরের জানুয়ারিতে বরিশাল, ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী ও নোয়াখালীতে আইন রক্ষাকারী সংস্থার সহায়তায় সম্মিলিত বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। বিগত ২০০৮-০৯ অর্থবছরে যেখানে ইলিশের উৎপাদন ছিল ২.৯৯ লাখ মেট্রিক টন, সেখানে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়ে ৩.৯৫ লাখ মেট্রিক টনে উন্নীত হয়েছে। প্রয়োজনীয়তার নিরিখে বিদ্যমান আইন সংশোধন করে জাটকা আহরণ নিষিদ্ধ সময় ১ মাস বাড়িয়ে নভেম্বর থেকে জুন পর্যন্ত এবং জাটকার দৈর্ঘ্য ২৩ সেন্টিমিটার হতে বৃদ্ধি করে ২৫ সেন্টিমিটার উন্নীত করা হয়েছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow