Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৭ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১৭ মার্চ, ২০১৭ ০০:০১
অভিবাসন নিয়ে ফের ধাক্কা খেলেন ট্রাম্প
প্রতিদিন ডেস্ক

অভিবাসন নিয়ে আদালতে আবার বড় ধাক্কা খেলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এর আগে প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েই তিনি সাতটি দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ নিষেধ করে নির্বাহী আদেশ জারি করেন।

কিন্তু দেশটির ফেডারেল আদালত তা বাতিল করে দেয়। কিন্তু ট্রাম্প নাছোরবান্দা। সেই আদেশ কার্যকর করতে আট-ঘাট বেঁধে আগের আইনের দুর্বলতা কাটিয়ে ফের দ্বিতীয় দফায় গত ৬ মার্চ তা জারি করে। গতকাল তা কার্যকর হওয়ার কথা। কিন্তু তার কয়েক ঘণ্টা আগে আদালত ফের নিষেধাজ্ঞা দেয়। এর ফলে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের দ্বিতীয় অভিবাসন ফরমানটিও আর কার্যকর হবে না গোটা আমেরিকায়। তবে এতে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন ট্রাম্প। আদালতের নিষেধাজ্ঞার পর তিনি ট্যুইট করে বলেন, ‘এটি আদালতের বাড়াবাড়ি। ’ দেশটির ন্যাশভিলে এক সমাবেশে ট্রাম্প এও বলেছেন তিনি এ নিয়ে আইনি লড়াই চালিয়ে যাবেন।

আপিল করবেন। স্থানীয় সময় গতকাল মধ্যরাত থেকে এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। গত ৬ মার্চ এই আদেশটি জারি করার পরেই তা বাতিল চেয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয় হাওয়াই অঙ্গরাজ্য। স্থানীয় সময় বুধবার রাতে ডিস্ট্রিক্ট জাজ ডেরিক ওয়াটসন এক আদেশে ওই নিষেধাজ্ঞা আটকে দিয়েছেন। বিচারক ওয়াটসন বলেছেন সরকার জাতীয় নিরাপত্তার দোহাই দিয়ে যে নিষেধাজ্ঞা জারি করতে চাইছে তা ‘প্রশ্নবিদ্ধ’। ‘ওই আইনের ফলে যদি হাওয়াইয়ে ছাত্রছাত্রী ও পর্যটক আসার ওপর বিধিনিষেধ জারি হয়, তা হলে অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়বে হাওয়াই। শুধু তাই নয় ওই আইন হয়ে উঠবে মার্কিন সংবিধানের ধর্মবৈষম্যবিরোধী প্রথম সংশোধনীটিরও পরিপন্থী। ফলে, তা আমেরিকার সম্মানে আঘাত দেবে। নষ্ট হবে মার্কিন সংবিধানের ভাবমূর্তি। তাই আমেরিকার কোনো সীমান্ত বা বন্দরে বিদেশিদের ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে ওই অভিবাসন ফতোয়াটি বিবেচ্য হবে না। ’

যুক্তরাষ্ট্রের যে কয়টি রাজ্য মুসলিমদের প্রবেশ নিষেধাজ্ঞা বন্ধের চেষ্টা চালাচ্ছে হাওয়াই তার মধ্যে অন্যতম। জানুয়ারিতে ট্রাম্পের প্রথম নির্বাহী আদেশের বিরুদ্ধেও মামলা করেছিল হাওয়াই।

অভিবাসন বিষয়ক ট্রাম্পের প্রথম নির্বাহী আদেশে সাতটি দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও, দ্বিতীয় দফার আদেশে ইরাককে বাদ দেওয়া হয়। বাকি ছয়টি দেশ হলো ইরান, সিরিয়া, ইয়েমেন, সুদান, লিবিয়া এবং সোমালিয়া। নতুন আদেশ অনুযায়ী এই দেশগুলোর ওপর ৯০ দিনের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে এবং শরণার্থীদের ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ রাখা হয়েছে ১২০ দিন।

অপরদিকে, শুধু হাওয়াই নয়, ক্যালিফোর্নিয়া, ম্যারিল্যান্ড, ম্যাসাচুসেটস, নিউইয়র্ক, ওরেগন এবং ওয়াশিংটন রাজ্য সরকারও ট্রাম্পের নতুন ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে মামলা করেছে। নিষেধাজ্ঞা আটকে দিয়ে হাওয়াই ডিস্ট্রিক্ট কোর্টের দেওয়া রায়ে স্বভাবতই খুশি এ রাজ্যগুলো। ওয়াশিংটন রাজ্যের অ্যাটর্নি জেনারেল এ রায়কে ‘চমৎকার’ বলে মন্তব্য করেছেন। তার ভাষায়, ‘এটা খুবই উৎসাহব্যঞ্জক। এ মুহূর্তে এটা হচ্ছে অনেক রাজ্যের ও অনেক মামলার একটি দলগত প্রচেষ্টা। ’ এএফপি, বিবিসি।

up-arrow