Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০১:৫৪
ডাক বিভাগের পার্সেলে ১৮০০ কেজি মাদক ‘খাত’
নিজস্ব প্রতিবেদক

জিপিও এবং শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের বৈদেশিক পার্সেল শাখা থেকে বিপুল পরিমাণ ইথিওপিয়ান  মাদক ‘খাত’ আটক করা হয়েছে। ১৭৪০ কেজি ওজনের এই খাত পাঠানো হয়েছে ১০৪টি পার্সেলে করে। সিআইডি এবং কাস্টমস পৃথক অভিযান চালিয়ে ইথিওপিয়ান এই মাদকের চালান আটক করে। সিআইডির সিরিয়াস ক্রাইম স্কোয়াড ইথিওপিয়া থেকে আমদানি করা ১৬০০ কেজি মাদক খাত আটক করে। সিআইডি জানায়, জিপিও বৈদেশিক পার্সেল শাখা থেকে ২০ জনের নামে আসা এই মাদক আটক করা হয়। বিপুল পরিমাণ এই মাদক আনা হয়েছে ৯৬টি কার্টনে করে।

শাহজালালে ১৪০ কেজি : এদিকে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কার্গো ইউনিটের অভ্যন্তরে অবস্থিত”ফরেইন পোস্ট অফিসের মাধ্যমে ১৪০ কেজি ইথিওপিয়ান গাঁজা বা খাত আটক করা হয়।

৩ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কাস্টম হাউসের ঢাকার একটি দল এবং জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা (এনএসআই)-এর সহযোগিতায় গত রবিবার ভারত থেকে আসা জেট এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইট থেকে ৮টি সন্দেহজনক কার্টন আটক করে। পরে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। পরবর্তীতে বিমানবন্দরে কর্মরত বিভিন্ন সংস্থার উপস্থিতিতে কার্টনগুলো খোলা হলে এর ভিতরে গ্রিন টিয়ের মতো দেখতে পণ্যগুলো আটক করা হয়। যা মূলত ইথিওপিয়ান গাঁজা বা খাত। এর ওজন ১৪০ কেজি।

কাস্টমস জানায়, এটি পানির সঙ্গে মিশিয়ে তরল করে সেবন করা হয়। সেবনের পর মানবদেহে এক ধরনের উত্তেজনার সৃষ্টি করে। যাতে অনেকটা ইয়াবার মতো প্রতিক্রিয়া হয়। এটি বাংলাদেশে আসা নতুন এক ধরনের মাদক।

এর রপ্তানিকারক হলেন ইথিওপিয়ার জিয়াদ মুহাম্মদ ইউসুফ, আদ্দিস আবাবা। বাংলাদেশের আমদানিকারক হলো এশা এন্টারপ্রাইজ। ঢাকার তুরাগ এলাকায় অফিস।

উল্লেখ্য, গত ৩১ আগস্ট ও ৮ সেপ্টেম্বর একই ধরনের দুটি পণ্য চালান আটক করা হয়েছিল, যার ওজন ছিল যথাক্রমে ৪৬০ কেজি ও ১৬০ কেজি। আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বর্তমান পণ্য চালানটি মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

 

up-arrow